অক্টোবর ১৬, ২০২১ ৪:৩৯ পূর্বাহ্ণ

সামাজিক শৃংখলার অধঃপতন

মাহমুদুল হক আনসারী
জাতির জন্য শৃংখলা অপরিহার্য অংশ। শৃংখলা ছাড়া কোন জাতি গোষ্ঠী অগ্রগতি অর্জন করতে পারেনা। শৃংখলা থাকতে হবে ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ এবং রাষ্ট্রে। ব্যক্তির মধ্যে শৃংখলা অনুশীলন,অনুকরণ প্রতিষ্ঠা ব্যতিরেখে পারিবারিক শৃংখলা প্রতিষ্ঠা হয়না। পারিবারিক শৃংখলা থেকে সামাজিক শৃংখলা পাওয়া যায়। সামাজিক শৃংখলা প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে রাষ্ট্রীয় শৃংখলা সম্ভব নয়। আজকের সমাজে যেটা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সেটি হলো শৃংখলা প্রতিষ্ঠা। মানুষ তার কাজকর্মে শৃংখলা রক্ষা করতে চায়না। সৃশৃংখল জীবন ব্যক্তির মধ্যে লক্ষ্য করা যায়না। মানবীয় জীবন চলার পথে যেভাবে শৃংখলা রক্ষা করতে হয় তা অনেক ক্ষেত্রেই আমরা বাস্তবায়ন করছিনা। একজন ব্যক্তির যেভাবে চলনে বলনে উঠতে বসতে শৃংখলাপূর্ণ আদর্শ দেখানোর কথা ছিলো সেটা শিক্ষিত , কম-শিক্ষিত বা অশিক্ষিত কারো মধ্যেই শৃংখলার অনুশীলন সমাজ ক্রমেই ভুলতে বসছে। মানুষ প্রয়োজনের জন্য ভোগ করবে। তার জন্য যতটুকু প্রয়োজন সে পরিমাণ সে ভোগ করবে, আহার করবে,ভক্ষণ করবে,উপভোগ করবে। কিš‘ দেখা যায় তার যা প্রয়োজন এর চেয়েও বেশি সে নষ্ট করছে। তার যেটুকু বসার জায়গার দরকার সে তার চেয়েও বেশি জায়গা দখল করে অন্যজনকে ভোগান্তিতে ফেলছে। চলাচল , চলাফেরায় আচার আচরণ ব্যবহারে মানুষের শৃংখলা পূর্ণ ব্যবহার খুব কম সংখ্যক মানুষে রপ্ত করে থাকে। আচার ব্যবহার , খাওয়া দাওয়া আতিথিয়তা সম্ভাষণ সবকিছুতে মানবিক শৃংখলা অনুপস্হিত। খাওয়া দাওয়া , উঠা বসাতে মানুষের একটা শৃংখলা থাকে। মানুষ যতই উন্নতি অগ্রগতি তার জীবনে উপলধ্বি করে তার মধ্যে শৃংখলা একটি বিশাল বিষয়। শিক্ষা, দীক্ষা, ব্যবসা-বাণিজ্য,চাকরী-বাকরী পারিবারিক সামাজিক রাষ্ট্রীয় সমস্ত কাজে অগ্রগতির জন্য অবশ্যই শৃংখলা শব্দটি কর্মক্ষেত্রে থাকা চায়। সকল ধর্মের মর্ধে শৃংখলার কথা বলা হয়েছে। শৃংখলা শিক্ষা দেওয়া হয়েছে। যেমন ধরুন নামাজ, রোজা, হজ্ব, যাকাত ইত্যাদি। ইসলাম ধর্মে যারা প্রবেশ করবে তারা এসব ইবাদত নির্দিষ্ট সময়ে পালন করবে। নামাজ আদায় করার জন্য নিয়ম কানুন এবং শৃংখলার কথা বলা হয়েছে। নামাজের সময়ানুবার্তীতা , শৃংখলা শিক্ষা দেয়। সে শৃংখলা ছাড়া নামাজ আদায় করলে হবেনা। যেমন নামাজ পড়ার জন্য যে নিয়ম-কানুন ইসলামে বলা হয়েছে সেটা অনুসরণ করেই নামাজ আদায় করতে হয়। অনুরুপ রোজা পালনের জন্য সেখানেও একটা নিয়ম শৃংখলার কথা বলা হয়েছে। এর বাইরে গিয়ে রোজা পালন করলে রোজা আদায় হবে না। একইভাবে খাবার জন্য রান্না থেকে শুরু করে রাষ্ট্র পরিচালনা পর্যন্ত সবক্ষেত্রে একটা শৃংখলা থাকে। কিš‘ সমাজ পৃথিবী যখন যতই তথাকথিতভাবে উন্নতির দিকে ধাবিত হচ্ছে , ঠিক তখনই মানবতা এবং সমাজের মধ্যে শৃংখলার চরম অধঃপতন পরিলক্ষিত হচ্ছে। মানুষের জীবন , ব্যবসা-বাণিজ্য রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন সেক্টরে কোথাও শৃংখলা পরিলক্ষিত হ  চ্ছে না। পরিবারে পরিবারে নেই শৃংখলা । সমাজে সমাজে হৃদ্যতাপূর্ণ সৌহার্দ্য শৃংখলা উধাও। কেউ খেয়ে উল্লাস প্রকাশ করছে। আর কেউ বুভুক্ষু থেকে অসহায়ত্ব প্রকাশ করছে। তেলের মাথায় তেল যার আছে তার কোন অভাব নেই। তার মধ্যে কোন শৃংখলা খুঁেজ পাওয় যায়না। সে আরো চায় সে চাহিদার চেয়ে অতিরিক্ত ব্যবহার করে সমস্ত সুযোগ সুবিধা উ”িছষ্ট করে নষ্ট করছে। শৃংখলার অভাবে তার অর্থ বৈভবের অভাব নেই। তার কাছে মানবতা শৃংখলা সবকিছু হাস্যকর। ই”ছামতো সে চলছে আর ভোগ করছে ব্যবহার করছে। তার কাছে পরিবার সমাজ রাষ্ট্র তু”ছ বিষয়। উশৃংখলতা এক মহা সাগরে সমাজ আজ হাবুডুবু খা”েছ। বলা যায় যার কাছে প্রচুর পরিমাণ অর্থবিত্ত রয়েছে তার জন্য গোটা পৃথিবী উন্মুক্ত। তার নিকট শৃংখলার কোনো দাম নেই। সে যা চায় তাই করবে সেটাই তার জন্য শৃংখলা সেটাই সে দেখাবে। একজন মহিলা চলনে বলনে তার মনে চায় যে সে পুরুষ চরিত্র ধারণ করবে। সে সেভাবেই চলবে। পক্ষান্তরে পুরুষ যদি চায় সেও মহিলার পোশাক আচার ভঙ্গিমা অনুশীলন আচরণ করে ইচ্ছে মতো চলবে। সামাজিক রীতিনিতি মোটেও এ সবকে মেনে নিতে পারেনা। পুরুষ মহিলা তাদের চাল চলন শৃংখলায় কিছু পার্থক্য সৃষ্টিকর্তা করে দিয়েছে। সে নিয়ম মেনে পুরুষ মহিলাকে চলা দরকার। না হয় সামাজিক শৃংখলা আরো ভেঙ্গে পড়বে। দোকান-মার্কেট মসজিদ, ব্যবসা-বাণিজ্য রাষ্ট্রীয় সবগুলো সেক্টরে শৃংখলার অনুশীলন থাকা চায়।  গণপরিবহন থেকে শুরু করে ফুটপাত, রাস্তাঘাট সামাজিক সব ধরনের স্পট আয়োজনে কোথাও মানবতার মধ্যে শৃংখলা খুঁজে পাওয়া যায়না। তাহলে অদূর ভবিষ্যতে এ জাতির কী অবস্থা  হবে। শৃংখলা থাকা চায় বিদ্যালয় থেকে বঙ্গভবন পর্যন্ত। পরিবার থেকে সামাজিক সবগুলো সেক্টরে ব্যক্তি পরিবার সমাজ এবং প্রতিটি নগরালয়ে। যদি সে শৃংখলা এখন থেকে জাতি রপ্ত না করে তাহলে ভবিষ্যত সমাজ শৃংখলা কী সেটাও ভুলে যাবে। তাই আসুন ব্যক্তি পরিবার সমাজ ও রাষ্ট্রের সকল স্তরে শৃংখলাপূর্ণ জীবন যাপনে অভ্যস্ত হই।

 

 

 

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply