বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০১৯ ইং, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা (২০৮) হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ সমীপে

মাননীয়,

সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ সমীপে

এরশাদ ভাইজানরে,

গরম গরম কথার শুরুতেই আমার লাখ কোটি সালাম জানিবেন।আশা করি আল্লাহ মালিকের অপার মহিমায় অসুস্হ শরীরে বৃদ্ধ এই বয়সে অতীতের কথা ভাবিয়া ও ভবিষ্যতের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করিয়া কৌশলে আছেন।আমিও গ্রাম বাংলার এক নিভৃত পল্লীতে থাকিয়া শাহ মোহছেন আউলিয়া ও শাহ আমানত শাহের উছিলায় ছাগলের তিন নাম্বার বাচ্চার মতো খাইয়া না খাইয়া ৩০ ডিসেম্বর দিন লইয়া এক প্রকার মহা টেনশানেই আছি ।একেক জন একেক বলিতেছে।কোন কথার ভিত্তি পাইতেছি না।গেল সপ্তাহে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খান সমীপে ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা লিখিবার সময় আপনার সমীপে লিখিব বলিয়াছিলাম বলিয়া, লিখিতেছি বলিয়া রাগ করিবেন না।বরং মনোযোগসহকারে পড়িয়া দেখিবেন এবং যাহা প্রয়োজন তাহা করিবেন।

ভাইজানরে

আপনি হইলেন, এই দেশের দীর্ঘদিনের রাষ্ট্রপতি।আপনার মতো কেউই এই দেশে এতদিন এই পদে থাকিতে পারেন নাই।হালে আপনি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ রাষ্ট্রদূতের দায়িত্বও পালন করিয়াছেন আপনি।দেশের সেনাবাহিনী প্রধানসহ অসংখ্য গুরু দায়িত্ব পালনকারী সফল ব্যাক্তি আপনি।আপনিই একমাত্র ব্যাক্তি আন্দোলনের মুখে ক্ষমতা ছাড়িয়া দিয়া দেশে শান্তি স্হাপন করিয়াছিলেন। আপনার স্ত্রী রওশন এরশাদ বিরোধী দলীয় নেতা, আপনার ভাই জিএম কাদের মন্ত্রী ও আপনার ভাগিনী জামাই জিয়াউদ্দিন বাবলু মন্ত্রী ও এমপি ছিলেন।ক্ষমতা বরাবরই আপনাদেরই ছিল।আপনার জাতীয় পার্টির সাথে যারা জোট করিয়াছিল তাহাদের নেতাও আপনি।সব মিলিয়ে এই দেশটিতে আপনাদের অবস্হান আগেও ছিল এখনো আছে।যাক, সেই সব কথা।

ভাইজানরে,

গোটা দেশে কয়েকজন জাতীয় ব্যাক্তির মধ্যে আপনিও একজন আলোচিত মানুষ। নির্বাচনের এই সময়ে দেশের বাইরে থাকিবার কারণে গ্রামের লোকজন আপনাকে লইয়া নানান মুখরোচক কথাবার্তা বলিতেছে। বৃদ্ধ এই বয়সে রওশন এরশাদ আপনার সাথে থাকেন না এই বিষয় লইয়া ভোট বাজারে  গুজব ও অসত্যের বেশাতি চলিতেছে।বৃদ্ধ বয়সে স্ত্রী সাথে না থাকিলেতো বিষয়টি দুঃখের ও বেদনার।সেটাতো নিছক আপনাদের ঘরুয়া হিসাব – নিকাশ।এই দেশের অল্পশিক্ষিত, অশিক্ষিত ও গ্রামের বাচাল জাতীয় লোকেরাই এইসব কথা বলিতেছে।বিদিশা, জিনাত হোসেন, মেরি  আরো কতজনের নামে হরেক রকম কথাবার্তা চলিতেছে হাট বাজার ও চায়ের দোকানে। সাবেক আরেক রাষ্ট্রপতি বি চৌধুরীও খালেদাকে ছাড়িয়া আপনারই মতো শেখ হাসিনার আশ্রয় লইয়াছে।আপনারা দুইজনের মতিগতি লইয়া লোকেরা হাসি তামাশাও করিতেছে।

ভাইজানরে,

বিশে ডিসেম্বর বিষুদবার আপনার উপদেষ্ঠা ড. ফজলে রাব্বী না ফেরার দেশে গিয়াছেন।বি চৌধুরী, ড.কামাল হোসেন ও আপনিও কখন যান ঠিক নাই।এই লাইনে আছেন খালেদাও।শেষ বয়সে দেশের জন্য কিছু করুন।ড.কামাল হোসেন মানুষের ভোটাধিকারের জন্য লড়াই করিতেছে।জামাত, চিহ্নিত দূস্কৃতকারী ও ক্ষমতার জন্য দল বদলকারী সুবিধাবাদীদের আশ্রয় না দিলে কামাল হোসেন সাহেব বেশী সমালোচিত হইতেন না।আপনার ভাগিনী জামাই জিয়াউদ্দিন বাবলুকে লইয়া আপনি বেকায়দায় পড়িয়াছেন।ইসলামী ফ্রণ্ট মোমবাতিকে একটি আসনও না দেওয়া কী ঠিক হইয়াছে ? ইসলামী ফ্রন্টের আলেম-ওলেমারা আপনাকে বদ -দোয়া করিতেছে বলিয়া শুনিতেছি।বৃদ্ধ এই বিষয়ে আলেম সমাজের বদ -দোয়া নেওয়া ঠিক হয় নাই বলিয়া আপনার লোকেরাও বলিতেছে।লোকেরা বলিতেছে আবারো শেখ হাসিনার সাথে জোট বাঁধিয়া ক্ষমতায় যাইবেন। ক্ষমতায় গেলে সকালে এক বিকালে আরেক কথা বলিয়া নিজেকে প্রশ্নবিদ্ধ না করিয়া দেশের জন্য কিছু করিবেন।মনে রাখিবেন, মানুষের জীবন একটা, সময় কম কাজ বেশী।আজ আর না। আপনার মঙ্গল ও সুস্বাস্হ্য কামনায়। ইতি আপনারই গ্রাম বাংলার অখ্যাত

                                                                                                                                                                                                                          ঠাণ্ডা মিয়া

গ্রন্হনাঃ ম আ হ

২২ ডিসেম্বর ২০১৮

আগামী সংখ্যায় সিইসি নুরুল হুদা সমীপে ঠাণ্ডা মিয়ার গরম (২০৯) সম্প্রচার করা হইবে।

 

 

আরো খবর

Leave a Reply