১৫ জুন ২০২৪ / ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ / রাত ৪:০৪/ শনিবার
জুন ১৫, ২০২৪ ৪:০৪ পূর্বাহ্ণ

ঠান্ডা মিয়ার গরম কথা (৩৩৬) রুহুল কবির রিজভী আহমেদ সমীপে

     

 মাননীয়,

 বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব  রুহুল কবির রিজভী আহমেদ সমীপে,

শ্রদ্ধেয় রিজভী ভাইজানরে, 

গরম গরম কথার শুরুতে আমার লাখ কোটি সালাম জানিবেন।আশা করি, আল্লাহ মালিকের অপার মহিমায় ভালো থাকিয়া দেশের গণতন্ত্র কায়েমের লক্ষ্যে নানান ফর্মূলা তৈরী ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রকাশ্যে  ও গোপনে সংগ্রাম চালাইয়া আসিতেছেন । আমিও গ্রাম বাংলার এক মফস্বল শহরে থাকিয়া দেশের ভবিষ্যতের কথা ও নতুন সরকারের নতুন নতুন ফরমায়েস দেখিয়া ছাগলের তিন নাম্বার বাচ্ছার মতো খাইয়া না খাইয়া বাঁচিয়া আছি। গেলবারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমীপে ঠান্ডা মিয়ার গরম কথা লিখিবার সময় এইবার আপনার সমীপে লিখিব বলিয়াছিলাম এইজন্য লিখিতেছি বলিয়া রাগ করিবেন না বরং শত ব্যস্ততার মধ্যেও গরম কথাটুকু পড়িয়া দেখিবেন ও যাহা প্রয়োজন তাহা করিবেন আর ভুল হইলে নিজ গুনে মাফও করিয়া দিবেন।

ভাইজানরে ,

রুহুল কবির রিজভী আহমেদ আপনার পুরো নাম ।কিন্তু দেশবাসী আপনাকে ‘রিজভী’ নামে চিনিয়া থাকে।আপনি হইলেন,   বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব। ২০১৬ সালের ১৯ শে মার্চ বিএনপির ষষ্ঠ সম্মেলনে আপনি জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব  নির্বাচিত হন। এছাড়াও আপনি  বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের দফতর সম্পাদক ও মুখপাত্র হিসাবে দায়িত্ব পালন করিয়াছেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভূগোল ও ইতিহাস এ দু’টি বিষয়ে এম. এ এবং আইন বিষয়ে আপনি  স্নাতক ডিগ্রীধারী ব্যাক্তি।

বামপন্থী বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়নের মাধ্যমে আপনি রাজীতিতে প্রবেশ করিয়াছেন। বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়ন রাজশাহী সরকারি কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন আপনি। পরবর্তীতে ছাত্রদল প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর আপনি জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলে যোগদান করেন এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পান ও পরবর্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি হিসাবেও আপনি দায়িত্ব পালন করেন।  ১৯৮৯ সালের সর্বশেষ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (রাকসু) নির্বাচনে আপনি ভিপি নির্বাচিত হন এবং ১৯৯০ সাল পর্যন্ত এ দায়িত্ব সুন্দরভাবে পালন করিয়াছেন।

ভাইজানরে,

‘২৩ সাল ও ২৪ সালের প্রথম সপ্তাহে শেখ হাসিনা সরকার ও হাবিবুল আউয়াল নির্বাচন কমিশনের ভোট বর্জন আন্দোলনে বিএনপি ও বিএনপি সমমনা রাজনৈতিক দলের আপনি ছিলেন কাণ্ডারী।তারেক জিয়া লণ্ডনে, মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও আমির খসরু যখন জেলে তখন আপনিই একমাত্র ভয়ভীতি ছাড়াই আন্দোলন চালাইয়াছেন । তবে কেউ কেউ বলিতেছে সরকারের নেটওয়ার্কের মধ্যে থাকিয়া সরকারের দেওয়া সরকার বিরোধী প্রচার অভিযান আপনি চালাইয়াছেন।রাজনীতিতে সুবিধাবাদী ও বেঈমানের সংখ্যা বাড়িয়াছে।তাই সহজে কোন কথা বিশ্বাস করা যেমন কঠিন আবার অবিশ্বাস করাও মুস্কিল।যাহারা এইসব বলিতেছে তাহাদের বক্তব্য হইল, সরকার চাইলে আপনাকে খুঁজিয়া বাহির করিয়া ফখরুল ও খসরুর মতো আটক করা কঠিন ছিল না।সরকার চাহিয়াছিল ফখরু ও খসরু জেলে থাকুক আর বিএনপি ও সমমনাদের  সামাল দিয়া চলিলে সরকার তাহাদের মিশন বাস্তবায়ন করা সহজ হইবে। গণ্ডগোল, হত্যা, খুন, মারামারি ছাড়াই রাতে নয় দিনেই সরকার নির্বাচন করিয়া দুনিয়াবাসীকে দেখাইয়া দিয়াছে।

ভাইজানরে,

নতুন সরকারে গৃহপালিত বিরোধী দল হইবে বলিয়া স্পষ্ট দেখা যাইতেছে। বিরোধী দলের নেতা হইবার জন্য জিএম কাদের কত কাতর হইয়াছে তাহার কথা বার্তা শুনিলে বুঝা যাইতেছে।কৌশলগত কারণে ভোটে অংশ গ্রহণ, সরকারে সামিল কিংবা সংসদে যাইতে না পারিলেও দেশবাসীর পাশে থাকিতে হইবে। দ্রব্যমূল্যের দাম বৃদ্ধি রোধে আন্দোলন করিতে হইবে।টাকা পাচাররোধ ও পাচারকৃত টাকা ফেরত আনিবার জন্য সরকারকে চাপে রাখিতে হইবে। সংসদে বিরোধীদল না হইলেও আপনারা অধিকাংশ সাধারণ মানুষের পছন্দের দল এইটা গোটা দুনিয়াবাসী জানে। সুতরাং আশাবাদী হইয়া মাঠে থাকিতে হইবে । মাঠ ছাড়িয়া দিবেন না।

আজ আর না। আপনার মঙ্গল ও সুস্বাস্হ্য কামনায় আপনারই গ্রাম বাংলার অখ্যাত ঠাণ্ডা মিয়া

গ্রন্থনাঃ ম আ হ

আগামী সংখ্যায় নতুন শিক্ষামন্ত্রী চটলার কৃতি সন্তান ব্যারিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল সমীপে ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা (৩৩৭) সম্প্রচার করা হইবে।

 

About The Author

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply