অক্টোবর ৪, ২০২২ ৩:২৪ পূর্বাহ্ণ

ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা (৩২০) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমীপে

মাননীয়,

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমীপে,

শ্রদ্ধেয় হাসিনা আপারে,

গরম গরম কথার শুরুতে আমার লাখ কোটি সালাম জানিবেন। আশা করি আল্লাহ মালিকের অপার মহিমায় ভালো থাকিয়া ভিশন ও মিশন কায়েমের লক্ষ্যে নানান ফর্মূলা তৈরী ও বাস্তবায়ন করিয়া মহা- সুখেই আছেন। আমিও গ্রাম বাংলার এক মফস্বল শহরে থাকিয়া  তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধিতে হিমসিম খাইয়া ছাগলের তিন নাম্বার বাচ্ছার মতো খাইয়া না খাইয়া বাঁচিয়া আছি। গত সপ্তাহে সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল সমীপে ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা লিখিবার পর এইবার আপনার সমীপে লিখিব বলিয়াছিলাম। এইজন্য লিখিতেছি বলিয়া রাগ করিবেন না বরং শত ব্যস্ততার পরও গরম কথাটুকু পড়িয়া দেখিবেন ও যাহা প্রয়োজন তাহা করিবেন এবং ভুল হইলে নিজ গুনে মাফও করিয়া দিবেন।

আপারে,

আপনি হইলেন, এশিয়ার লৌহমানব শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী ও বাঙ্গালীর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় মেয়ে এই দেশের প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মতো বিশাল দলের প্রতীক নৌকাকে শক্ত হাতে হাল ধরার দক্ষ নেত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি । আপনার দক্ষ নেতৃত্বে দল ও দেশ চলিতেছে। দেশ ও দলের জন্য কাজ করা একই সাথে এটা আপনার মতো গোটা পৃথিবীতে কয়জনেরই বা আছে? রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলিয়া থাকেন আপনার একক সাহস ও বুদ্ধিতে নৌকা ঠিকভাবে চলিতেছে। খন্দকার মুস্তাকের দল যে  ওৎ ফাতিয়া বসিয়া নাই তাহা মোটেই ভুলিয়া যাইবেন না। মনে রাখিবেন, কুকুরের লেজ ১২ বছর চোঙ্গায় রাখিলেও সময় মতো বাঁকা হইয়া যায়। ১৫ আগষ্ট  ও ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা দুটো একই সুত্রে গাঁথা।যাক, সেইসব কথা।

আপনারে,

অতি মহামারী করোনাকালে আপনি সৎ সাহস লইয়া অনেক কর্মসূচী দিয়াছেন ও বাস্তবায়ন করিয়াছেন। যদিও বিরুদ্ধবাদীরা অনেক সমালোচনা করিতেছে। দেশে টিকা বানানোর সুযোগ দিয়া সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়াছেন। দেশের সকল মানুষকে টিকা দিতে হইবে। পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যাক্তিদের সবার আগে টিকা দিবার জন্য সমাজ সচেতন লোকেরা বলিতেছে। কারন এই ব্যাক্তিদের কিছু হইলে পুরো পরিবারটাই অন্ধকারে নিপতিত হইবে।

আপনারে, 

রাজনীতিতে এখন নীতি নাই কেন ? দূর্নীতিপরায়ন মার্কা মারা লোক  , ইয়াবা ব্যবসায়ী, আগে অন্য দল করিত এখন আওয়ামী লীগে আশ্রয় লইয়াছে, যেই দল ক্ষমতায় থাকে সেই  দল সাপোর্ট করিয়া সুবিধা আদায় করিয়া থাকে এই মানুষগুলোই এখন আওয়ামী লীগ নিয়ন্ত্রণ করিতেছে।রাজনীতির নামে হাজিরা নীতি, তোয়াজ নীতি,  ঘি, মাখন ও তেল মারা লোকজনই এখন বড় বড় পদবীধারী আওয়ামী লীগের হর্তা কর্তা।ইহাদের আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়া অনেক এমপি মন্ত্রী এখন কোটি কোটি টাকার মালিক হইয়াছে।ইহাদের ব্যাপারে খবরা খবর নিবেন।এলাকায় ইহাদের হোমরা চোমড়া আছে বটে কিন্তু সাধারণ জনগণ নাই।অনেক এলাকায় নৌকা পাইয়াও নিবার্চনে জিতিতে না পারিবার এইটায় আসল কারণ।আবার অনেক এমপি মন্ত্রীরা নৌকা প্রার্থীকে পছন্দও করিতে পারেন নাই।গোটা দেশজুড়িয়া এই কাণ্ড ঘটিয়াছে।কক্সবাজারের ১ ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করিয়া ৯৭ ভোট পাইয়াছে।বিষয়টি হালকা মনে করিবেন না।এই কারণে কোন কোন পদবীধারী ব্যাক্তির শাস্তি হওয়া দরকার তাহা আপনিই ভালো জানেন।

 আপারে,

চট্টগ্রামের মেয়রের পদমর্যদা লইয়া এত টানাটানি কেন? আগের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনকে প্রতিমন্ত্রীর মর্যদা দিলে এমন কী অসুবিধা হইত? আর যাই হোক এখন চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের হাল ধরিবার আ জ ম নাছির উদ্দিন অন্যতম যোগ্য ব্যাক্তি। নাছির ও খোরশেদ আলম সুজনের মধ্যে সমন্বয় করিয়া চট্টগ্রামে রাজনীতিকে ঢেলে সাজানো দরকার বলিয়া রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলিতেছে।মেয়র রেজাউল করিমকে প্রতিমন্ত্রীর মর্যদা দেওয়া উচিত বলিয়া চট্টগ্রামের লোকেরা বলাবলি করিতেছে।নাছির সাহেবকে প্রতিমন্ত্রীর মর্যদা না দেওয়াটা বেঠিক হইয়াছে বলিয়া একই লোকেরা বলিতেছে।

আজ আর না। আপনার মঙ্গল ও সুস্বাস্থ্য কামনায় আপনারই  গ্রাম বাংলার অখ্যাত ঠাণ্ডা মিয়া

ইতি আপনারই বিশ্বস্ত গ্রাম বাংলার

অখ্যাত   ঠাণ্ডা মিয়া

গ্রন্থনা ম আ হ
আগামী সংখ্যায় বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলম  সমীপে ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা (৩২১) সম্প্রচার করা হইবে।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply