এপ্রিল ১০, ২০২১ ৫:৫৪ অপরাহ্ণ

লামায় আইনজীবিদের ফুল কোর্ট রেফারেন্স স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত

লামা সংবাদদাতা
লামা সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের আইনজীবি প্রয়াত মৃদুল বড়ুয়ার স্মরণ সভা উপলক্ষে ফুল কোর্ট রেফারেন্স অনুষ্ঠি হয়েছে। এ্যাডভোকেট মৃদুল বড়ুয়া বিচার প্রার্থী প্রন্তিক মানুষের আইনি সেবায় নিরলস ছিলেন। তাঁর পেশাগত কাজ ছিল সরকারের লিগ্যাল এইড বান্ধব” লামা কোর্টের বিচারক অনুষ্ঠানের সভাপতি এসব কথা বলেন।
আজ ২৪ ফেব্রুয়ারি বেলা সাড়ে ১১ টায় বিজ্ঞ আদালত এজলাস প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আনিছুর রহমান।
লামা আইনজীবি সমিতির আয়োজনে এই প্রথম প্রয়াত আইনজীবি মৃদুল বড়ুয়ার স্মরণে ফুল কোর্ট রেফারেন্স পালিত হলো। তরুণ আইনজীবি মামুন মিয়ার সঞ্চালনায় স্মরণ সভায় স্মৃতিচারণমূলক এ্যাডভোকেট প্রয়াত মৃদুল বড়ুয়ার জীবিদ্দশায় কৃতকর্ম নিয়ে আলোকপাত করেন নবীন-প্রবীন আইনজীবি, সাংবাদিক ও আইনজীবিদের কার্য সহায়করা।
স্মরণসভায় বক্তারা বলেন, প্রয়াত এ্যাডভোকেট মৃদুল বড়ুয়া একজন আত্মমর্যাদা, দৃড়চেতা ব্যাক্তিত্ব সম্পন্ন মানুষ ছিলেন। নির্মোহ-নির্লোভ এই মানুষটির জীবনাদর্শ প্রত্যেকের জন্য অনুকরণীয়-অনুস্মরণীয়। বিচার বিভাগ পৃথকী করণের পর তিনি পিটিশন রাইটার পেশা থেকে সালে ২০১৪ সালে তিনি আইনজীবি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। যোগদেন তার প্রিয় অঙ্গন লামা সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে।
ছাত্র জীবন থেকে সমাজ সচেতন একজন মানুষ, যিনি অল্পতে সন্তেষ্ট থাকতেন। উনবিংশ শতাব্দির ৯১ সালে কোন এক সময় প্রকৃতির বিশাল এক বিপর্যয়ে লন্ড-ভন্ড হয়ে দক্ষিণাঞ্চলসহ বাংলাদেশের উপকুলীয় এলাকাগুলো। মৃদুল বড়–য়া তখন ওয়াল্ড ভিশন নামের একটি এনজিওতে কর্মরত ছিলেন। সে সুবাধে তিনি কষ্টে পতিত, বিপন্ন মানুষের পাশে থাকার সুযোগ পায়। বিশেষ করে পাহাড়ী লামা উপজেলার দূর্গমের জনগোষ্ঠিকে তিনি মনেপ্রাণে ভাল বাসতেন। বিলাসিতা আর ছলছাতরী পঁছন্দ করতেন না তিনি।
কোটি কোটি টাকা তাঁর হাত দিয়ে মানুষকে বিতরণ করেছেন। কিন্তু নিজে বারোমাস বলা যায় অনটনে থেকেছেন। মনুষত্ব-বিবেক নিয়ে চলতেন এই বর্ষিয়ান সমাজ সেবক। রাজনৈতিক ও সামাজি অঙ্গনে তার নিবৃত পদচারণা সমাজকে পজেটিভ অনেক কিছু দিয়েগেছে। তাঁর সুদক্ষ পরিচালনায় লামার নেতৃত্বে অনেকের প্রাপ্তি ঘটেছে।
জীবনের অন্তিম সময় তিনি এও বুজেগেলেন, তাঁর প্রত্যাশিত প্রাপ্তির সমন্বয় ঘটেনি। “মানুষ আপন টাকা পর, যত পারিস মানুষ ধর” শ্রীশ্রী ঠাকুর অনুকুল চন্দ্রের এই মর্মবাণীটি তিনি তার জীবন প্রতিফলিত করতে সক্ষম হয়েছিলেন। প্রয়াত মৃদুল বড়–য়া ক্ষমতা আর টাকাকে আপন করতে চাননি। নীতি-আদর্শতে থেকে তিনি মানুষকে ভালবেসে আপন করেছেন।
অনেক অভিমান বুকে চেপে ধরে, পর্বতসম আত্ম মর্যাদা নিয়ে গত ১৯ ফেব্রুয়ারী এই আদর্শবান সমাজ সেবক, আইনজীব পরপারে পাড়ি জমায়। এর আগে হত প্রায় তিন বছর ধরে তিনি অসুস্থ্য ছিলেন। আর্থিক কোন সঞ্চয় করেননি, কিন্তু মানুষের অনেক ভালবাসা সঞ্চয় করে গেছেনে তিনি। তার মৃত্যুতে লামা সমাজ অঙ্গনে ।াদর্শগত শুন্যতা বিরাজ করবে।
তাঁর সন্তান-পরিবারের প্রতি দায়িত্ববান হওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন লামা আইনজীবি সমিতির নেতৃবৃন্দ।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply