বাংলাদেশ, শনিবার, ৩১শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বঙ্গোপসাগরে জাহাজডুবি ১দিন পরও ১৩ নাবিক নিখোঁজ

ভাসানচরের অদূরে উত্তাল ঢেউয়ে ১ হাজার ৮০০ টন গম নিয়ে ‘এমভি আখতার বানু’ জাহাজের ডুবে যাওয়ারর ১দিন  পেরিয়ে গেলেরও এখনও জাহাজটির ১৩ জন নাবিকের কোনও খোঁজ মেলেনি।আজ রবিবার ১৬ আগস্ট সকালে বাংলাদেশ লাইটার শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি ও নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের যুগ্ম-সম্পাদক মো. নবী আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানিয়েছেন, চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গনে অবস্থানরত বড় জাহাজ থেকে আমদানি করা গম খালাস করে নারায়ণগঞ্জ যাচ্ছিল ‘এমভি আখতার বানু’। গতকাল শনিবার বেলা ১১টার দিকে বৈরী আবহাওয়ায় উত্তাল সাগরে জাহাজটি ডুবে যায়। এরপর থেকে ওই জাহাজের ১৩ নাবিকের কোনও খোঁজ মেলেনি।

নবী আলম বলেন, ‘জাহাজডুবির ঘটনায় আমরা কোস্টগার্ড পূর্বাঞ্চল ও হাতিয়া কোস্টগার্ডকে জানিয়েছিলাম। কিন্তু তারা উত্তাল সাগরে অভিযান চালায়নি। মালিকপক্ষও জাহাজ পাঠায়নি। সকালে আমরা এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছি।’

এ বিষয়ে লাইটার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. রহিম বলেন, ‘জাহাজটির স্থানীয় এজেন্ট মাঝিরঘাটের শাহ আমানত শিপিং। পরিবহন করছিল আবুল খায়ের গ্রুপের গম। মালিকপক্ষকেও বারবার বলেছি, নাবিকদের উদ্ধারে জাহাজ পাঠাতে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোনও ব্যবস্থা হয়নি।’

শাহ আমানত শিপিংয়ের কর্মকর্তা পারভেজ বলেন, ‘নৌবাহিনী ও কোস্টগার্ডকে দুর্ঘটনার বিষয়ে জানানো হয়েছিল। এ ছাড়া স্থানীয়ভাবে ট্রলার   নিয়ে খোঁজাখুঁজি করেও নাবিকদের পাওয়া যায়নি।’

কোস্টগার্ডের হাতিয়া স্টেশন কমান্ডার লেফটেন্যান্ট বিশ্বজিত বড়ুয়া বলেন, ‘খবর পেয়ে আমাদের নিজস্ব বোট দিয়ে সাগরে তল্লাশি অভিযান চালানো হচ্ছে। তবে এখনও পর্যন্ত বলার মতো কিছু নেই। প্রয়োজনে উদ্ধারকারী জাহাজ লাগানো হবে।’

এদিকে শনিবার সকালে বঙ্গোপসাগরের ভাসানচরে একই এলাকায় ‘এমভি সিটি-১৪’ নামে একটি লাইটার জাহাজ বিরূপ আবহাওয়ার মধ্যে অপরিশোধিত ২ হাজার টন চিনি নিয়ে চট্টগ্রাম থেকে নারায়ণগঞ্জ যাওয়ার পথে উত্তাল সাগরে ডুবে যায়। তবে ওই জাহাজের ১২ নাবিককে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply