বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সুনামগঞ্জের মুসলিমপুরে এক পরিবারের ৩ জনকে আহত করে বসত ঘরে ডাকাতি  

আল-হেলাল,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি 

সুনামগঞ্জে এক গৃহবধু ও তার বৃদ্ধ শ্বশুড় কে আহত করে প্রকাশ্য দিবালোকে বসতঘরে থাকা মোবাইল ফোনসহ নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার ডাকাতি করেছে একদল চিহ্নিত মাদকসেবী। ৫ আগস্ট বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টায় সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের মুসলিমপুর গ্রামের উত্তরহাটি নিবাসী আব্দুল শহীদ (৮০) এর বসতবাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে। সংবাদ পেয়ে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার এসআই সাইফুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
সরজমিনে গিয়ে জানা যায় ৪ঠা আগস্ট মঙ্গলবার বেলা দেড়টায় পার্শ্ববর্তী সৈয়দপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামে একটি নতুন মসজিদ গড়ে উঠলে পুরাতন ও নতুন মসজিদ নিয়ে মুসল্লীয়ানরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েন। সৈয়দপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের আব্দুল গফুরের ২ পুত্র রহিম ও রমজান,রেনু মিয়ার পুত্র কাজল,আরফান আলীর পুত্র সিরাজ মিয়া ও মনসুর মিয়া প্রমুখ গোত্রীয় লোকজন পুরাতন মসজিদের মাইক মিম্বর ও লাশ বহনের খাটিয়া জোর করে নতুন মসজিদে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাতে মুসলিমপুর গ্রামবাসীর পক্ষে অসম্মতি জ্ঞাপন করেন আব্দুল শহীদের পুত্র বালি পাথর ব্যবসায়ী শাহীন মিয়া। কারন পুরাতন মসজিদে শাহীন মিয়ার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা অনুদান প্রদান করা হয়েছিল এবং সৈয়দপুর পশ্চিমপাড়া পুরাতন মসজিদে মুসলিমপুর গ্রামের মুসল্লীয়ানরা নামাজ আদায় করেন।
এই ঘটনার জের ধরে মঙ্গলবার সৈয়দপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের হোসেন মিয়ার দোকানের সামনে রহিম ও রমজান এ দুইভাই প্রতিপক্ষ শাহীন মিয়াকে মারপিট করতে উদ্যত হয়। কিন্তু স্থানীয় লোকজনের মধ্যস্থতায় রেহাই পায় শাহীন। পরদিন বুধবার রহিম ও রমজান সহোদরগন বিভিন্ন মাদক মামলার আসামী পার্শ্ববর্তী হুরারকান্দা গ্রামের মিরাস উদ্দিনের পুত্র আলমগীর,নজুম উদ্দিনের পুত্র মিরাজুল,কোনাগাঁও গ্রামের তাজুল ইসলামের পুত্র সন্ত্রাসী নুরুসহ ৪ জন ভাড়াটে সন্ত্রাসীকে নিয়ে ছুরি ডেগারসহ অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হামলা করে শাহীন মিয়ার বাড়ীতে। সন্ত্রাসীরা প্রথমেই
শাহীনের বৃদ্ধ পিতা আব্দুল শহীদ (৮০) কে গলায় ছুরি ধরে প্রাণে হত্যার ভয় দেখায়। ভাড়াটে ৪ সন্ত্রাসী শাহীনের বসতঘরে প্রবেশ করে তার স্ত্রী নাসিমা আক্তার কে বেদম মারপিট করে ঐ গৃহবধুর গলায় ডেগার ধরে বসতঘরের স্টিলের আলমিরাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র ভাংচুর ও তছনছ করে। একপর্যায়ে অসহায় নাসিমা আক্তার চিৎকার চেচামেচি শুরু করলে সন্ত্রাসীরা তার শ্লীলতাহানীসহ তলপেটে লাথি মেরে মেঝেতে ফেলে দেয়। এ সময় দেবরের স্ত্রীকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা শাহীনের ভাবী রিনা আক্তারকেও মুখচেপে ধরে রাখে। পরে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়। স্টিলের আলমিরা ভাঙ্গার পর একটি ব্যাগে সংরক্ষিত নগদ টাকা,২টি সিম্পনী ও নকিয়া মোবাইল ফোনসেট এবং স্বর্ণালংকার ডাকাতি করে বীরদর্পে পালিয়ে যায় ঐ সন্ত্রাসীরা। ঘটনার পরপরই আহত গৃহবধুকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনার সময় ব্যবসায়ী শাহীন মিয়া ছাতকে বালিপাথর ব্যবসায়ের কাজে ব্যস্ত ছিলেন বলে জানায় পরিবারের লোকজন। সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মোঃ শহীদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিতকরে বলেন,ঘটনার সংবাদ জানামাত্র ঘটনাস্থলে পুলিশ ফোর্স প্রেরন করেছি। এ ব্যাপারে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply