বাংলাদেশ, শুক্রবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নতুন মাসের শুরুতেই ছ্যাঁকা! ফের দাম বাড়ল রান্নার গ্যাসের

অগস্ট মাসেও রান্নার গ্যাসের দাম বাড়ল। কলকাতায় ভর্তুকিহীন গার্হস্থ্য রান্নার গ‍্যাসের দাম বেড়ে হয়েছে ৬২১ টাকা। এর আগে জুন এবং জুলাই মাসে রান্নার গ্যাসের দাম বাড়িয়েছিল তেল কোম্পানিগুলি।
gas

হাইলাইটস

  • অগস্ট মাসেও রান্নার গ্যাসের দাম বাড়ল।
  • কলকাতায় ভর্তুকিহীন গার্হস্থ্য রান্নার গ‍্যাসের দাম বেড়ে হয়েছে ৬২১ টাকা।
  • এর আগে জুন এবং জুলাই মাসে রান্নার গ্যাসের দাম বাড়িয়েছিল তেল কোম্পানিগুলি।

দেশজুড়ে করোনার দাপটে সাধারণ মানুষের নাজেহাল অবস্থা। এর মধ্যে ফের রান্নার গ্য়াসের দাম বাড়াল রাষ্ট্রায়ত্ত তেল কোম্পানিগুলি। এই নিয়ে পরপর তিন মাস রান্নার গ্যাসের দাম বাড়ল। জুলাই মাসে কলকাতায় ভর্তুকিহীন গার্হস্থ্য রান্নার গ‍্যাসের দাম ছিল ৬২০ টাকা ৫০ পয়সা। তা ৫০ পয়সা বেড়ে হয়েছে ৬২১ টাকা। ১ অগস্ট, শনিবার থেকে নয়া দাম কার্যকর হবে।

তবে অগস্টে গ্রাহকরা ১৪.২ কিলো এলপিজি সিলিন্ডার নিলে ব‍্যাংক অ্যাকাউন্টে কত টাকা ভর্তুকি হিসাবে পাবেন তা সরকারি তেল স‌ংস্থাগুলির তরফে জানানো হয়নি। কলকাতায় ১৯ কিলো নন-ডমেস্টিক সিলিন্ডারের দাম ১ টাকা বেড়ে হয়েছে ১১৯৮ টাকা ৫০ পয়সা।

এর আগে পরপর দু’মাস গ্যাসের দাম বেড়েছে। গত জুন মাসে মেট্রো শহরে রান্নার গ্যাসের দাম এক ধাক্কায় ৩০ টাকার বেশি বাড়িয়ে দিয়েছিল তেল সংস্থাগুলি। সে বার কলকাতায় গ্যাসের সিলিন্ডারের দাম বেড়েছিল সাড়ে ৩১ টাকা। সে ধারা অব্যাহত জুলাই মাসেও। সেবার ভর্তুকিহীন গ্যাস সিলিন্ডারের (১৪.২ কেজি) দাম বৃদ্ধি পায় সাড়ে চার টাকা। এবার বৃদ্ধির হার অতটা না হলেও তা মধ্যবিত্তের জন্য স্বস্তিদায়ক ইঙ্গিত নয় বলেই মনে করা হচ্ছে।

বিশ্ব বাজারে অপরিশোধীত তেলের দাম গত এক বছরে প্রায় ৪০ শতাংশ হ্রাস পেলেও ভারতে গার্হস্থ্য রান্নার গ‍্যাসের সিলিন্ডারের জন্য গ্রাহককে ২০ শতাংশ অতিরিক্ত অর্থ দিতে হচ্ছে। এর মধ্যে স্থানীয় পরিবহন খরচ যুক্ত হওয়ায় বহু গ্রাহকের ভর্তুকির অংক কমতে কমতে শূন্যে এসে ঠেকেছে। অনেক গ্রাহক ভর্তুকি হিসেবে খুবই সামান্য অর্থ ফেরত পাচ্ছেন।

বর্তমানে প্রতি মাসে রান্নার গ্যাসের দাম স্থির করে তেল কোম্পানিগুলি। এই মূল্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে সরকারের প্রচ্ছন্ন নিয়ন্ত্রণ থাকে। কিন্তু মোদী সরকার গ্যাসের দাম বিনিয়ন্ত্রণের পথে হাঁটতে চাইছে। সরকারের যুক্তি, এর ফলে বিদেশি লগ্নি বাড়বে। যার হাত ধরে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে দেশেই গ্যাসের উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব হবে।সবটুকু পড়তে ক্লিক করুন

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply