বাংলাদেশ, রবিবার, ১৬ই জুন, ২০১৯ ইং, ২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

আনোয়ারায় সামান্য বৃষ্টিতে বড় গর্তে পরিনত হয় সিইউএফএল সড়ক

 মহিউদ্দীন মনজুর আনোয়ারা থেকে
সামান্য বৃষ্টিতে বড় গর্তে পরিনত হয় আনোয়ারার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিইউএফএল সড়ক। বৈদেশিক বহুজাতিক কোম্পানী ও বাংলাদেশের যৌথ পরিচালনায় সিইউএফএল , ডিএপি সার কারখানা, কাফকো সার কারখানা, কোরিয়ান ইপিজেড,আনোয়ারা পাওয়ার প্ল্যান্ট, সর্বোপরি বঙ্গবন্ধু টানেলের মত হেভি ইন্ডাস্ট্রিয়াল এরিয়াতে যাওয়ার প্রধান এই সড়কটি। চাতরী চৌমুহনী বাজার থেকে কেএসআই শিল্প কারখানার গেইট পর্যন্ত ৩ কিলোমিটারের অধিক সড়কের বিভিন্ন অংশে বড় বড় গর্তের ও খাদের সৃষ্টি হয়ে সামান্য বৃষ্টির পানিতে তা যেন এক একটি খালে পরিণত হয়। পানিতে আটকে যায় সিএনজি থেকে হেভি ট্রাক সহ যে কোন ধরনের যানবাহন, একটি গাড়ি আটকে গেলে হয় বিশাল লম্বা জ্যাম, কোরিয়ান কেইপিজেডে কর্মরত ২২ হাজার শ্রমিক যাদের অধিকাংশই নারী তারা চলাফেরা করেন এই সড়ক দিয়ে।
 
শিক্ষার্থী, পথচারী, চাকরিজীবীসহ নানা পেশার মানুষ চলাফেরা করেন এই সড়ক দিয়ে। বাজারের যানজট নিরসনের জন্য গত বছরে প্রায় ৬৩ লাখ টাকা ব্যয়ে গোল চত্বর, ফুটপাত সড়ক ও গাড়ি পার্কিং এর মেরামত করা হলেও আজ সোমবার সরেজমিন দেখা যায় চাতরী চৌমুহনী বাজারের পশ্চিমাংশের উত্তরপাশে মেরামতের অর্ধেক সড়কে বৃষ্টি ও নালার জমে দুর্গন্ধ পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে,যা চলাফেরা করা মুশকিল হয়ে পড়েছে।
আনোয়ারা উপজেলা প্রকৌশলী তছলিমা জাহান বাংলাপোস্টবিডিডটকম কে জানান, সড়কটি যেহেতু সিইউএফএল কর্তৃপক্ষের নামে সেহেতু এলজিইডির মাধ্যমে সড়কটির সংস্কার কাজ করা সম্ভব নয়,কর্তৃপক্ষ যদি এলজিইডির কাছে সড়কটি হস্তান্তর করে তাহলে অতি দ্রুত সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া সক্ষম হবে। তিনি ফুটপাতের বৃষ্টির পানিতে জমে থাকা পানির কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন নালাতে পলিথিন ও ময়লা আবর্জনা ফেলাতে এমন অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে এবং এর দায় বাজারের কিছু ব্যবসায়ীদের অসহযোগিতার কারণে বলে জানান তিনি। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. সোলায়মান জানান , সম্প্রতি সড়কটি সংস্কারের জন্য টানেল কর্তৃপক্ষ, সিইউএফএল, কাফকো, কেইপিজেডসহ বিভিন্ন কারখানার কর্মকর্তাদের যৌথ সভায় ৩ কোটি ৩৯ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সড়কটি সংস্কারের সিদ্ধান্ত হয়েছে কিন্তু যথাসময়ে সংস্কারকাজ শুরু না হওয়ায় এলাকাবাসী হতাশ।

আরো খবর

Leave a Reply