মে ৯, ২০২১ ৬:৪৬ পূর্বাহ্ণ

ঠান্ডা মিয়ার গরম কথা (৩০০) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমীপে

মাননীয়,

   বঙ্গকন্যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমীপে,

শ্রদ্ধেয় হাসিনা আপনারে,

গরম গরম কথার শুরুতে আমার লাখ কোটি সালাম জানিবেন।আশা করি, আল্লাহ মালিকের অপার মহিমায় ভালো থাকিয়া বৈশ্বিক করোনাকালে দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করিয়া নানান কল্যাণকর কর্মসুচী ও দেশের ভবিষ্যত হরেক রকম চিন্তা করিয়া দিনাতিপাত করিতেছেন। আমিও গ্রাম বাংলার এক মফস্বল শহরে থাকিয়া দেশের ভবিষ্যতের কথা ভাবিয়া ছাগলের তিন নাম্বার বাচ্ছার মতো খাইয়া না খাইয়া বাঁচিয়া আছি। গেলবারে আপনারই মনোনিত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন সমীপে ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা লিখিবার সময় এইবার আপনার সমীপে লিখিব বলিয়াছিলাম, এইজন্য লিখিতেছি বলিয়া রাগ করিবেন না বরং শত ব্যস্ততার মধ্যেও গরম কথাটুকু পড়িয়া দেখিবেন ও যাহা প্রয়োজন তাহা করিবেন আর ভুল হইলে নিজ গুনে মাফও করিয়া দিবেন।  ইতিপূর্বে যতবারই আপনার সমীপে গরম কথা লিখিয়াছি ততবারই মানুষের কল্যাণ হইয়াছে বলিয়া শুনিয়াছি।

আপনারে,

আপনি হইলেন, এই দেশের জাতির জনক এশিয়ার লৌহমানব বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় মেয়ে। বাংলাদেশের ৪ বারের প্রধানমন্ত্রী ও বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাধর ব্যাক্তি আপনি।দুনিয়া জুড়ে রহিয়াছে আপনার নেতৃত্বের প্রশংসা । দেশের মানুষ আপনাকে মানবতার মা বলিয়া ডাকেন।যদিও আল – জাজিরা চ্যানেল আপনাকে ‘মাদার অব মাফিয়া’ বলিয়া রিপোর্ট করিয়াছে। আপনার কোটি কোটি ভক্ত অনুরক্তরাও এইজন্য চরমভাবে নাখোশ হইয়াছে। অনেকে এইসব হলুদ সাংবাদিকতা বলিতেছে।আপনার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলিলেন আল জাজিরার বিরুদ্ধে মামলা করিবেন।অন্যদিকে দেশচ্যুত সাংবাদিক ড. কনক সরোয়ার, মেজর দেলোয়ার ও কর্ণেল শহীদ বিদেশে বসিয়া বহু আগে থেকেই আপনাকে মাদার অব মাফিয়া বলিয়া আসিতেছে। যাক, সেইসব কথা।

আপারে,

শুনিতেছি, অচিরেই আপনি মন্ত্রী সভার রদবদল করিবেন। অকাজের লোকগুলোর দরকার কী ? কাজ না করিয়া কথাবাজি করিয়া পতাকা লইয়া সময় নষ্ট করিয়া থাকে এমন মন্ত্রীদের থামিয়ে দিন। যাহাদের কথায় দলের ও রাষ্ট্রের ক্ষতি হয় এমন মন্ত্রীদের এইবার বাদ দিন। তরুণ, পরিক্ষী্‌ত ও সুশিক্ষিত যাহারা দলের ও মন্ত্রণালয়ে কাজ করিয়া দেশ ও দলকে গুছাইতে পারে এমন লোকদের মন্ত্রী পরিষদে ঠাঁই দিন। চট্টগ্রামের খোরশেদ আলম সুজনকে টেকনোক্রেট তালিকায় প্রতিমন্ত্রী কিংবা চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি করিবার জন্য অসংখ্য লোকেরা বিষয়টি আপনাকে জানাইবার জন্য অনুরোধ করিয়াছে।

আপারে,

আওয়ামী লীগে এখনো অসংখ্য নেতা কর্মী আছেন যাহারা পদবঞ্চিত ও ক্ষমতার কোন স্বাদ পায়নি।অথচ তাহারা দুঃসময়ের দলের কাণ্ডারী । ইহাদের খুঁজিয়া পুনর্বাসন করুন।হাইব্রিডদের আস্তে আস্তে চিহ্নিত করিয়া ত্যাগীদের মূল্যায়ন করা উচিত বলিয়া বয়ষ্ক ও প্রবীণ আওয়ামী লীগের নেতারা বলিতেছে। মীর্জা কাদের যেইসব কথা বলিয়াছে তাহা লইয়া ভাবা দরকার । শামীম ওসমান ও জয়নাল হাজারীসহ আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীরা মীর্জাকে সার্পোট করিয়া মুখও খুলিয়াছে। মনে রাখিবেন্‌, শামীম ওসমান ও জয়নাল হাজারীরা দলের নিখুঁত লোক।আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে উনারা সামনের সারিতে থাকিবার অতীতে রেকর্ড রহিয়াছে।

আপারে,

গোটা দেশ জুড়িয়া সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের আমেজ চলিতেছে। কোথাও কোথাও দুই নাম্বারী, খুনী, কালোবাজারী, ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ঋনখেলাপীরা আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হইতেছে।এইটা কীভাবে সম্ভব ? ইহাদের আশ্রয় প্রশ্রয় কাহারা দেয়? তাহারা মন্ত্রী, এমপি ও দলীয় নেতা যাহাই হোক তাহাদের পাত্তা দিবেন না। একজনকে একাধিক পদে রাখিবার কী দরকার? জহুর আহমদ চৌধুরী একসাথে ৪ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন। এখন কী সেই যুগ আছে ? যিনি চেয়ারম্যান হবেন তাহাকে দলের অন্য পদে না রাখাই ভালো।তেমনিভাবে সভাপতি/ সাধারণ সম্পাদক থাকিলে তাহার চেয়ারম্যান / মেয়র  হইবার কী দরকার? যেকোন একপদে রাখিবার নিয়ম করুন।তাহা হইলে অসংখ্য ত্যাগীদের মূল্যায়ন করিয়া তাহাদের মেধা ও শ্রম কাজে লাগাইতে পারিবেন।

আজ আর না।আপনার মঙ্গল ও সুস্বাস্হ্য কামনায় আপনারই বিশ্বস্ত গ্রাম বাংলার অখ্যাত ঠান্ডা মিয়া

গ্রন্হনা ম. আ. হ

আগামী সংখ্যায় নব নির্বাচিত মেয়র রেজাউল করিম সমীপে ঠান্ডা মিয়ার গরম কথা (৩০১) সম্প্রচার করা হইবে।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply