বাংলাদেশ, বৃহস্পতিবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

পুলিশ ফাঁড়ির আশ্রয়ে পতেঙ্গায় চলছে অনৈতিক কাজ, পরিবেশ বিষিয়ে উঠছে

 

বিশেষ প্রতিনিধি

কাঠগড় এলাকার বাসার মালিক পক্ষ ডবল ভাড়া নিয়ে অনৈতিক কাজের সুযোগ করে দেবার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অগ্রিম ভাড়া ফেরত না পাওয়ায় অনেক ভাড়াটিয়া বাসাও ছাড়তে পারছে না। পুলিশ, মলিক ও দালাল চক্রের যোগসাজশে কতিপয় মানুষ অমানবিক কষ্ট পাচ্ছে ও এলাকার পরিবেশও ভয়াবহ রুপ নিচ্ছে । ধর্মভীরু মছল্লিসহ সাধারণ জনগণ এই অনৈতিক কাজ বন্ধের জন্য কোথায় যাবে তা বুঝে উঠতে পারছে না।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্হানীয় সুত্রে জানা গেছে, পতেঙ্গা থানার কাঠগর এলাকার মোজাফ্ফর আহমদের ৪টি বিল্ডিং রয়েছে।৩টি বিল্ডিং ৩ ভাই ও অপর ১টি বিল্ডিং বোনেরা দেখভাল করে থাকে।আকবরের বিল্ডিং এর ৩য় ও ৪র্থ তলায় জুয়া, মদ ও পতিতা ব্যবসা চলে।ওই বিল্ডিং এর মালিক আকবরও সুন্দরী পতিতা নিয়ে দিনরাত অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকে।

ওই বিল্ডিং এর ৩য় ও ৪র্থ তলার সবই মহিলা ব্যাচালর ভাড়াটিয়া থাকে।সকালে আসে ওরা আবার বিকেলে চলে যায়। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত খদ্দেরদের মনোরঞ্জন ও মদ জুয়ায় লিপ্ত থাকে তারা।

জানা গেছে, ওই সব ভাড়াটিয়াদের কাছ থেকে ২- ৪ লাখ টাকা পর্যন্ত মালিক পক্ষ গ্রহণ করেছে বলে ফোনে অভিযোগ করেছে এই প্রতিনিধিকে।ওই টাকার চুক্তিপত্র নেই দাতা – গ্রহিতার কারো মধ্যে।স্হানীয় পুলিশ ফাঁড়ীর ইনচার্জ হারুন বিশেষ সুবিধা নিয়ে আকবরের বড় ভাইয়ের ফ্যামেলি বাসায় ভাড়া থাকেন বলে কেউ ভয়েও ওই অসামাজিক কাজে বাঁধা দেয় না । পতেঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ীতে সদ্য যোগদানের পর পরই এস আই জামাল ট্রেনিং এ রয়েছেন।তাঁর মুঠোফোনে এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি কিছুই জানি না।

বর্তমানে পতেঙ্গা পুলিশ ফাঁড়ীর ইনচার্জ এস আই হারুন সাহেবের কাছে বিশেষ সুবিধা বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করেন এবং থানার ওসির সাথে কথা বলার কথা বলে লাইন কেটে দেন।এদিকে বাসার মালিক মোঃ আকবর এক মাসের মধ্যে এসব অনৈতিক কাজ বন্ধ হয়ে যাবে জানান ও এক মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলেন।এদিকে ফাড়িঁর পুলিশ হারুনের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ আসছে আমাদের অফিসে।

এদিকে জনৈক ফরিদ মুঠো ফোনে বলেন, মালিক আকবর থেকে ১ লাখ অগ্রিম বাবদ পান। রুপা ও তানিয়া দুইজন একই ফোনে বলেন, রুপা ৪ লাখ ও তানিয়া ৩ লাখ টাকা অগ্রিম জমা দেন এবং তানিয়া ১ ভরি ৪ আনা সোনাও জমা দেন।এসব ঘটনা সবই পুলিশ ফাড়িঁর সংশ্লিষ্ট সকলেই জানে।

 

 

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply