বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ২রা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্যাঢ্য র‌্যালীতে ‘আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস- ২০১৯’ উদযাপিত

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ‘আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস- ২০১৯’ শীর্ষক অনুষ্ঠান উদযাপন করে বিশ্বিবদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট।রবিবার (০৮ সেপ্টেম্বর) ইনস্টিটিউটটিতে এই অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৯:৩০ টায় আইইআর প্রাঙ্গণে উক্ত অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান। সাক্ষরতা দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘বহু ভাষায় সাক্ষরতা ; উন্নত জীবনের নিশ্চয়তা’। এ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী র‌্যালী, আলোচনা সভা ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ইনস্টিটিউটটি।

অনুষ্ঠান উদ্বোধনের পরে মাননীয় উপাচার্যের নেতৃত্বে ও আইইআরের সম্মানিত শিক্ষকমন্ডলী, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারিদের অংশগ্রহণে র‌্যালীটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার আইইআর প্রাঙ্গণে এসে মিলিত হয়।

স্বাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে উপানুষ্ঠানিক ও অব্যাহত শিক্ষা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আবদুস সালাম সাংবাদিকদের বলেন, শিক্ষাক্ষেত্রে ট্রান্সফরমেশনাল লিডারশীপ (রূপান্তরশীল নেতৃত্ব) দরকার, এমন শিক্ষা নেতৃত্ব দরকার যে শিক্ষা নেতৃত্বের মাধ্যমে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে যেটা করতে পেরেছে চীন, ভারত, শ্রীলংকা, তারা অতি অল্প সময়ের মধ্যে সারা দেশের মানুষকে স্বাক্ষর করে গড়ে তুলতে পেরেছে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের মানুষকে স্বাক্ষরিত করে গড়ে তুলতে শিক্ষা নেতৃত্ব ঠিক রেখে গবেষকদের নিয়ে, সরকারের প্রজ্ঞাবান লোকদের নিয়ে এবং সরকারের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সকলকে নিয়ে ঝাপিয়ে পড়ে সকল শিক্ষার্থীদের ঐক্যবদ্ধ এবং সকল ছাত্র নেতৃত্বকে এর মধ্যে নিয়ে আসা গেলে আগামী দুই বছরের মধ্যে আন্তর্জাতিক মানের গুণগত স্বাক্ষরতা সম্পন্ন একটি দেশ হিসেবে গড়ে তোলা সম্ভব।

উল্লেখ্য, ৮ সেপ্টেম্বরকে ইউনেস্কো কর্তৃক আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয় ১৭ নভেম্বর, ১৯৬৫ সালে। এর প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে ব্যক্তি, সম্প্রদায় ও সমাজে স্বাক্ষরতার গুরুত্ব তুলে ধরা। জাতিসংঘের সকল সদস্য রাষ্ট্র এই দিবসটি পালন করে থাকে। ১৯৬৬ সাল থেকে ইউনেস্কো ৮ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক স্বাক্ষরতা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে। এ দিবসটি পালনের মাধ্যমে সারা বিশ্বের মানুষকে তারা বলতে চায়, স্বাক্ষরতা একটি মানবীয় অধিকার এবং সর্বস্তরের শিক্ষার ভিত্তি। প্রতি বছর একটি বিশেষ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সে বছর স্বাক্ষরতা দিবস পালন করা হয়।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয়ার্ধে দুপুর ২:০০টা থেকে শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইআর) শহীদ ড. মো. সাদাত আলী সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো’র মহাপরিচালক জনাব তপন কুমার ঘোষ (অতিরিক্ত সচিব)। আলোচনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন, আইইআরের সম্মানিত পরিচালক, অধ্যাপক সৈয়দা তাহমিনা আক্তার। অনুষ্ঠানে উপানুষ্ঠানিক ও অব্যাহত শিক্ষা বিভাগের পক্ষ থেকে সাক্ষরতা দিবসের মূল প্রবন্ধ পাঠ করা হবে। উক্ত প্রবন্ধ বিষয়ে আলোচক হিসেবে থাকবেন আইইআরের সম্মানিত অধ্যাপক ড. আব্দুল মালেক।

আলোচনা সভার দ্বিতীয় পর্বে ইনস্টিটিউটের পক্ষ থেকে উপানুষ্ঠানিক ও অব্যাহত শিক্ষায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অসামান্য অবদান রাখায় আইইআরের সাবেক পরিচালক, উপানুষ্ঠানিক ও অব্যাহত শিক্ষা বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক ড. আবু হামিদ লতিফ-কে সম্মাননা প্রদান করা হবে। উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন উপানুষ্ঠানিক ও অব্যাহত শিক্ষা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আবদুস সালাম।

আরো খবর

Leave a Reply