বাংলাদেশ, বুধবার, ৮ই জুলাই, ২০২০ ইং, ২৪শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে স্ত্রীর অত্যাচারে স্বামী গৃহ হারা!

চট্টগ্রামে এক স্ত্রীর অত্যাচারে স্বামী গৃহ হারা হয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে। চট্টগ্রামের লালখান বাজারের এক ভাড়াটিয়া দম্পতি এ ঘটনার শিকার। স্বামী আইনের আশ্রয় পেতে খুলশী থানায় অভিযোগও করেছে। জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গার জীবননগরের মৃত নুরুল ইসলাম এর পুত্র মোহাম্মদ সুজন এর সাথে চট্টগ্রামের খুলশী থানার মনির হোসেনের মেয়ে সোমা আক্তারের বিয়ে হয়। সংসার জীবনে তাদের একটি ফুটফুটে ৩ বছরের পুত্র সন্তান রয়েছে। স্বামী মোহাম্মদ সুজন একজন পেশায় কার ড্রাইভার স্ত্রী সোমা আক্তার একজন প্যাকেজ প্রোগ্রাম কর্মী। দুইজনে দুই পেশার লোক হওয়ায় অধিকাংশ সময় দুইজনেই প্রতিদিন প্রতি রাতে দেখা হয় না। স্ত্রী প্যাকেজ প্রোগ্রামের নামে প্রতি সপ্তাহে কয়েক রাত বাইরে দিন যাপন করে থাকে। এরই মধ্যে চট্টগ্রামে স্বামী সুজনের কোন আত্মীয় স্বপন না থাকায় স্ত্রী ও তার পক্ষের লোকেরা মিলে মোঃ সুজনকে নানান ভাবে নির্যাতন করতে থাকে। জানা গেছে, কৌশলে এক পর্যায়ে কর্জ টাকা পরিশোধের নামে মোহাম্মদ সুজনের নিজস্ব প্রতিষ্ঠান ‘দি রাশিয়ান মৃত্যুকুপ মোটর সাইকেল’টিও হাতিয়ে নেয়। ৪ লক্ষ টাকা দিয়ে এই সার্কাসটি বিক্রি করে দিয়ে একটি টাকাও মোহাম্মদ সুজনকে দেওয়া হয়নি। সমুদয় টাকা স্ত্রী সোমা আক্তার নিজ নিয়ন্ত্রণে রেখে দেয়। সুজনের স্ত্রী সোমা আক্তার একজন প্যাকেজ কর্মী ও পিতা একজন জুয়ারু। সোমা আক্তার প্রতিদিন স্বামী মোহাম্মদ সুজনকে টাকার জন্য নির্যাতন করে ও প্যাকেজের নামে কয়েক রাত চট্টগ্রামের অজান  স্হান এমনকি জেলার বাইরেও চলে যায়। কোথায় থাকে কোন প্যাকেজে অংশ গ্রহণ করে তার কিছুই জানে না স্বামী সুজন। ফলে ওই দম্পতির মধ্যে অশান্তি লেগেই আছে। সুজন এখন প্রাণভয়ে ছেলের মায়া ত্যাগ করে স্ত্রীর নির্যাতনের আশংকায় এদিক-ওদিক ঘুরে বেড়াচ্ছে। সেই নিজের প্রতিষ্ঠান ও মূলধন হারিয়ে এবং স্ত্রীর নির্যাতনের যন্ত্রনা সহ্য করতে না পেরে চট্টগ্রামের খুলশী থানা সহ প্রশাসনের দুয়ারে দুয়ারে ধর্না দিচ্ছে। সার্কাস বিক্রির টাকাও স্ত্রী সোমা আক্তার দিচছে না বরং স্বামীকে নানান ভাবে হুমকি- ধমকি দিচ্ছে। হালে স্ত্রীর নির্যাতনের শিকার হয়ে স্বামী সুজন গৃহ হারা হয়ে অমানবিক জীবন যাপন করছে।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply