বাংলাদেশ, রবিবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভুমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ ও বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রঘুপতি সেনের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও শ্রমে গড়ে উঠছে কৈনপুরা উচ্চ বিদ্যালয়

 উন্নয়ন ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

 ১৯৫৫ সালে প্রতিষ্ঠিত কৈনপুরা উচ্চ বিদ্যালয়টি কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে। যুগে যুগে মানুষ গড়ার এই প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষার আলোক বর্তিতা হাতে নিয়ে সমাজ পরিবর্তনে ভূমিকা রেখে চলেছে। এই প্রতিষ্ঠান থেকে শিক্ষা নিয়ে ছাত্র ছাত্রীরা ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার সহ বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে কর্মরত রয়েছেন এবং অন্যান্যরা সমাজের বিভিন্ন সম্মানীয় কর্মে নিযুক্ত । বিভিন্ন সময়ে প্রতিকূল পরিবেশ পার হয়ে বিদ্যালয়ের এই পরিবর্তনে আমরা স্মরণ করি স্কুলের সকল ভূমিদাতা, অর্থদাতা, প্রতিষ্ঠাতা সহ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ আনোয়ারা কর্ণফুলী তথা চট্টগ্রামের অভিভাবক মরহুম আলহাজ্ব আখতারুজ্জামান চৌধুরীকে। তাঁর নিজস্ব উদ্যেগে নিজ অর্থায়নে এই বিদ্যালয়টির ভৌত অবকাঠামো বিনির্মানে অগ্রনী ভূমিকা রেখেছিলেন । এর ধারাবাহিকতায় তাঁরই সন্তান মাটি ও মানুষের প্রিয় নেতা, উন্নয়নের কান্ডারি, পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ, দক্ষিণ চট্টলার সিংহ পুরুষ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় ভূমি মন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বর্তমানে এই বিদ্যালয়ের উন্নতিতে অবদান রাখছেন । তাঁর সুদৃষ্টি ও সময়োপযোগী নির্দেশনায় বর্তমানে দায়িত্ব প্রাপ্ত অত্র বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর উপ কমিটির সদস্য ও আনোয়ারা উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানব সম্পদ উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক, এই বিদ্যালয়েরই প্রাক্তন ছাত্র, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী বাবু রঘুপতি সেন যিনি বর্তমানে বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের গুরুত্ব পূর্ণ পদে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন । ২০১৭ সালে সভাপতির দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে যে সকল উন্নয়ন কর্মকান্ড হয়েছে এবং যে কর্মকান্ড চলমান ও অদূর ভবিষ্যতে বাস্তবায়নের জন্য অনুমোদন নেওয়া হয়েছে তার ধারাবাহিক বর্ণনা নিন্মে তুলে ধরা হলো-

১) বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি বাবু রঘুপতি সেন ২০১৭ সালে দায়িত্ব গ্রহনের পর ব্যাক্তিগত ফান্ড থেকে বিদ্যালয়কে ২ লক্ষ টাকা অনুদান প্রদান করেন ।

২) ছাত্র ছাত্রীদের পড়ালেখার মান উন্নয়নের জন্য MPO ভুক্ত শিক্ষক, শিক্ষিকার পাশাপাশি বিদ্যালয় ফান্ড থেকে
২ জন প্রাতিষ্ঠানিক বেতনে খন্ডকালীন শিক্ষক নিয়োগ দেন । এ ছাড়া বিদ্যালয়ে শৃঙ্খলা রক্ষার্থে ছাত্র ছাত্রীদের
সুরক্ষায় ও তাদের স্কুল পালানো রোধে সার্বক্ষণিক একজন গেইটম্যান নিয়োগ করেন ।

৩) স্কুল ভবন, ক্লাসরুম সহ শ্রেণীকক্ষ পর্যবেক্ষনের জন্য সার্বক্ষণিক WiFi Connecition এর মাধ্যমে
সমগ্র বিদ্যালয়টি CCTV এর আওতায় আনা হয় ।

৪) শিক্ষক ও ছাত্র ছাত্রীদের প্রতিদিনের হাজিরার কাজ ডিজিটালাইজড করার লক্ষ্যে ICT Team দ্বারা
Attendance Machine বসানোর কার্যক্রম প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে যা জানুয়ারী ২০২১ সাল হতে
বাস্তবায়ন হবে বলে আশা করা যায় ।

৫) সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ভিশন কে সামনে রেখে তৈরি করা হয়েছে স্কুলের নিজস্ব ওয়েবসাইট ।
এই ওয়েবসাইটির ডেভেলপমেন্টের কাজ বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে যা ডিসেম্বর ২০২০ সালের মধ্যে শেষ করা
যাবে বলে আশা করা যায়। এ কার্যক্রমের লক্ষ্য একটাই, সমগ্র স্কুলটি ডিজিটালাইজড করা ।

6) সরকারী উপবৃত্তি ছাড়াও স্কুল পরিচালনা কমিটির সদস্যদের সুপারিশ ক্রমে বিনা বেতনে অথবা অর্ধ বেতনে
মেধাবীদের পড়াশুনার ব্যবস্থার প্রচলন করা হয়েছে ।

৭) MPO ভুক্ত শিক্ষকদের উৎসাহ প্রদানের জন্য 2019 সালে প্রাতিষ্ঠানিক বেতন ১০% এবং ২০২০ সালের
মার্চ মাস থেকে ২৫% বেতন বর্ধিত করা হয়েছে  ১ লা মার্চ ২০২০  তারিখে বেতন বৃদ্ধি কার্যকর হয়।
এছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক বেতন পেতে পূর্বে অনেক বিলম্ব হলে ও বর্তমানে প্রতি মাসের ৫ তারিখের মধ্যে শিক্ষকরা
বেতন ভাতা বুঝে পাচ্ছেন ।

৮) বর্তমান পরিচালনা কমিটি এবং সভাপতি বাবু রঘুপতি সেন এর একান্ত আন্তরিক প্রচেষ্টায় এবং মাননীয়
ভূমিমন্ত্রী জনাব সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এর নির্দেশনায় অত্র বিদ্যালয়ে “শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব”
প্রতিষ্টিত হয় । এই ল্যাবে মন্ত্রনালয় কর্তৃক ৯ টি ল্যাপটপ এবং প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ফান্ড থেকে ১০ টি
ডেস্কটপ ক্রয় করা হয় । বর্তমানে ৩ টি পূর্বের ল্যাপটপ সহ মোট ২২ টি কম্পিউটার রয়েছে । এতে করে
বিদ্যালয়ের সকল ছাত্র ছাত্রীরা কম্পিউটার অপারেটিং এ পারদর্শী হবে বলে আশা করা যায় । পাশাপাশি
বিদ্যালয় ছুটির পর গ্রামের বেকার যুবকদের কম্পিউটার বিষয়ে প্রশিক্ষনের জন্য নাম মাত্র ফিতে
প্রশিক্ষণ কর্মসূচী চলমান রয়েছে।

৯) পূর্বের ১ তলা ভবনকে বর্তমানে ৪র্থ তলা সুদৃশ্য ভবনে উন্নীত করার কাজ প্রায় শেষ হয়েছে যা মাননীয়
মন্ত্রী মহোদয় ২০২০ সালের আগামী ডিসেম্বরে উদ্ভোধন করবেন বলে আশা করা যায় । এ ছাড়া ৩,০০০ বর্গফুটের
উপর ৪র্থ তলা বিশিষ্ট বিজ্ঞান ভবন মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের নির্দেশক্রমে বর্তমান অর্থবছরে প্রথম তলা
এবং পরবর্তী অর্থবছরে ৪র্থ তলার কাজ সম্পন্ন হবে এই মর্মে অনুমোদন নেওয়া আছে ।

১০) স্কুলের ভূমি ও ছাত্র ছাত্রীদের সুরক্ষার জন্য একটি বাউন্ডারি ওয়াল নির্মানের জন্য ইতিমধ্যে ১০ লক্ষ টাকা
স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে অনুমোদন পাওয়া গিয়েছে যার নির্মান কাজ আগষ্ট ২০২০ ইং তারিখে শুরু
হবে ।

১১) মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় আমাদের স্কুল পরিদর্শন কালে বলেছেন যে, কারিগরি শিক্ষাকে মূল্যায়ন করার জন্য
১টি ৪ তলা বিশিষ্ট কারিগরি বিদ্যালয় ও বিদ্যালয়ের শিক্ষক, আসবাবপত্র প্রদানের জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট
দপ্তরকে সুপারিশ করেছেন যার সিরিয়াল নম্বর ৩৬৫ ।  এটা ধারাবাহিকভাবে বাস্তবায়ন হবে বলে আশা
করা যায় ।

১৩) ইতিমধ্যে শিক্ষক, ছাত্র ছাত্রীদের সুবিধার জন্য প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র বিদ্যালয়ে সংযোজিত হয়েছে।

১৪) বিদ্যালয়ে সকল শিক্ষকদের MMC (Multi Media Class) ক্লাস পোস্টিং দেওয়ার জন্য
ভালো মানের একটি Android Mobile Set দেওয়া হয় । উল্লেখ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের নির্দেশনা
মোতাবেক প্রতি সপ্তাহে নির্দিষ্ট MMC (Multi Media Class) ক্লাস পোস্টিং বাধ্যতামূলক ।

এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সুনাম ও ঐতিহ্যকে অক্ষুন্ন রাখা, উন্নয়ন কর্মকান্ড অব্যাহত রাখার জন্য শিক্ষাবান্ধব পরিবেশ তৈরি করার লক্ষ্যে বিদ্যালয়ের সকল ছাত্র -ছাত্রী, শিক্ষক -শিক্ষিকা, প্রতিটি সচেতন অভিভাবক এবং শিক্ষানুরাগী সকল ব্যাক্তিদের স্ব স্ব অবস্থান থেকে  এক বিবৃতিতে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা কামনা করছেন বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বাবু রঘুপতি সেন ।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply