বাংলাদেশ, শুক্রবার, ২৩শে আগস্ট, ২০১৯ ইং, ৮ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সাংবাদিক চৌধুরী হারুনের বাসায় হামলা ভাংচুর থানায় মামলা

রাঙামাটি প্রতিনিধি
সাংবাদিক চৌধুরী হারুনের বাসায় ব্যাপক ভাংচুর করেছে সন্ত্রাসীরা । আসামীরা কেউ আটক হয়নি। গত ১৯ জুলাই ২০১৯ইং শুক্রবার জুমার নামাজের পর বেলা আনুমানিক ২টি ঘটিকার সময় বাসায় আসার পথে সন্ত্রাসীরা বিনা উস্কানীতে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করতে আসে।
এ সময় কিছু বুঝে উঠার আগে দৌড়াইয়া বাসায় প্রবেশ করে আত্বরক্ষা করে। হামলাকারী সন্ত্রাসীরা কক্ষে ডুকে জানালার কাচ ও পানি সরবরাহের পাইপ ভেঙ্গে দিয়ে তান্ডব চালায় । তার আগেও পানি চলাচলের পাইপ ও জানালার কাচ ভেঙ্গে দিয়েছে। এই ঘটনায় কোতয়ালী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং-১১ তাং ২০/০৭/২০১৯ইং ধারা ১৪৩/৩৮৫/৪৪৭/৪৪৮/৪২৭/৫০৬(!!)দ:বি রুজু করা হয়েছে।
আসামী জরিপা বেগম (৪৮) স্বামী-: আব্দুর রউফ ,রিপাত (২২)পিতা-আব্দুর রউফ সাইফুল (বাবু) (২৭) পিতা:-আব্দুর রউফ সর্ব সং চম্পক নগর,রাঙ্গামাটিসহ অজ্ঞাতনামা ৩/জন মামলা দায়ের করা হয়েছে।
জানাগেছে,আসামীদের সাথে বিরোধ ছিল যা অনেক আগে স্থানীয়ভাবে মীমাংশিত হয়। বাড়ীর মালিক বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্সাস থেকে ঋৃণ নিয়ে নিমার্ণের কাজ এখনো অসামাপ্ত রয়েছে ।আগে হামলা হয়েছে ,মামলা না হওয়ায় বেপোরোয়া হয়ে উঠেছে। ঐসব বখাটে সন্ত্রাসী এলাকার চুরি ও মাদকাসক্ত ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে।
অপরদিকে নিমার্ণ শ্রমিক সুমন বলেন, কেন বাড়ীতে অর্তকিত হামলা করেছে কেউ বলতে পাচ্ছে না । আমাদের সাথে বাড়ীর মালিকের সাথে অন্য কারো সাথে কোন ধরনের কথা বলতে শুনেনি । ভুমি সংক্রান্ত সমস্যা অনেক আগে সমাধান হয়েছে।
কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ মীর জাহেদুল আলম রনি, সাংবাদিককের বাসায় হামলা ভাংচুর পর পর এসআই সাইফুলকে ঘটনাস্থলে তদন্ত করতে পাঠিয়েছি । ঘটনার সত্যতা থাকায় মামলা রজু করা হয়েছে। মামলার সাক্ষী প্রমাণসহ তদন্তভার দিয়েছি এসআই আল আমিন ।
সাাংবাদিক চৌধুরী হারুনুর রশীদ বলেন, দীর্র্ঘদিন ধরে প্রতিনিয়ত শাররিক ও মানসিক নির্যাতনের ফলে আমার পরিবারসহ নিরাপক্তাহীনতায় ভুগছি । এখন আসামীদের আটক করে আইনের আওতায় আনতে হবে। আমার ছেলে স্কুল –কলেজে যেতে ভয় পাচ্ছে ।তিনি আরো বলেন,২০১৬ সালে অলিখিত কাটিস পেপারে উভয়ের স্বাক্ষর নিয়ে ছাদের দুই পার্শ্বে ৫ ইঞ্চি করে ভেঙ্গে দিয়েছে। রড কেটে দিয়ে ঝুকিপুর্ণ ব্রীক ওয়ালে নীচে ৫ ইঞ্চি গাথুনী করেছি যা দৃশ্যমান।সাবেক ওসি আবদুর রশিদ ,শাওন ফরিদ,জাহাঙ্গীর আলম মুন্না ও ব্যবসায়ী নুরুল আজিম খান । ঝুকিপুর্ণ ব্রীক ওয়ালটি অপসারনের পৌরসভার নির্দেশনা রয়েছে । পরিমাপ করার জন্য জেলাপ্রশাসন ও পৌরসভার নোটিশ করা হয়েছে ।
উল্লেখ্য বাড়ীর বৃষ্টির পানি ফেলে তাদের ব্রীকওয়ালটি মারাত্বক ঝুকিপুর্ণ হয়ে পড়েছে, বর্ষার মৌসুমে যে কোন সময় আমার বাড়ীর ওপর ওয়ালটি ধসে পড়ে প্রাণ নাশের আংশকা করা হচ্ছে। আরেক নিমার্ণ শ্রমিক সেলিম জানায়, দীর্ঘদিন ধরে প্রতিনিয়ত সাংবাদিককে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে আসছে। এই কারণে আমরা নিয়মিত কাজ করতে পারি না।
৮ নংওয়ার্ড কাউন্সিলার কালায়ন চাকমা বলেন, হামলাকারীরা বেড়ে গেছে তাদের আইনের আওতায় আনা জরুরী । আমি স্বাক্ষী দেবো। এই ঘটনায় প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন রুবেল রাঙামাটি রিপোটার্স ইউনিটির সভাপতি সুশীল প্রসাদ চাকমা,সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মো.সোলায়মান সাধারণ সম্পাদক হিমেল চাকমা,রাঙামাটি সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি নন্দন দেব নাথ,সাংবাদিক সমিতির সভাপতি জিয়াউল হক জিয়া, জানালিষ্ট নেটওয়াক ও বিভিন্ন সাংবাদিক সংঘটনের নেতারা তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

আরো খবর

Leave a Reply