বাংলাদেশ, শুক্রবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আলীকদমে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের অভিযোগ

 

লামা-আলীকদম (বান্দরবান) প্রতিনিধি
১৮ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য আলীকদম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ আবুল কালামের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন ও বহিরাগত সন্ত্রাসী এনে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টির অভিযোগ এনেছেন প্রতিদ্বন্ধি নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জামাল উদ্দিনের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক মংব্রাচিং মার্মা ও সদস্যসচিব দুংড়ি মং মার্মা। ১১ মার্চ স্বাক্ষরিত এ অভিযোগের কপি প্রধান নির্বাচন কমিশনার, নির্বাচন কমিশন সচিব ও জেলা রিটার্নিং অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার কাছে মেইলে এবং ডাকযোগে পাঠানো হয়েছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, আলীকদম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থী রয়েছেন দুইজন। একজন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জামাল উদ্দিন অপরজন বিএনপি সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবুল কালাম। গত ০১ মার্চ থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর পর থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম নির্বাচন আচরণ বিধি লঙ্ঘন করে রাত ৮ টার পরও গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে জনসভা করে যাচ্ছেন। তাকে আচরণ বিধি মেনে চলার জন্য স্থানীয় প্রশাসন থেকে নিষেধ করার পরও তিনি পেশীশক্তির বলে আচরণ বিধি তোয়াক্কা করছেন না বলে অভিযোগে দাবী করা হয়।
অভিযোগে প্রকাশ, এ স্বতন্ত্র প্রার্থী স্থানীয় প্রশাসনকে বিতর্কিত করতে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে তিনি মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছেন। প্রার্থী এবং তার সমর্থক কিছু অফিসারকে স্টা- রিলিজ করা হয়েছে বলে এলাকায় প্রোপাগা-া ছড়াচ্ছে। নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে নির্বাচনী সভায় হত্যার হুমকী দেওয়ার অভিযোগ করছেন নৌকা প্রতীকের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক মংব্রাচিং মার্মা ও সদস্য সচিব দুংড়ি মং মার্মা। এ দু’নেতা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।
তারা বলেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আবুল কালামের সাথে এ উপজেলার বাইরের বিভিন্ন সন্ত্রাসীগোষ্ঠীর সাথে আঁতাত রয়েছে। গত একসপ্তাহ ধরে সাধারণ ভোটারদের প্রভাবিত করার জন্য যানবাহন ব্যবহার করে এক এলাকার জনসভায় অন্য এলাকা থেকে শত শত লোক নিয়ে জনসভা করে যাচ্ছেন। নির্বাচনী ব্যয় করার জন্য সুনির্দ্ধিষ্ট অর্থ ধার্য থাকার পরও স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম ইতোমধ্যে দশগুণের বেশী কালো টাকার ব্যবহার করছেন। তিনি ইতোপূর্বে অত্র আলীকদম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান থাকার কারণে অত্র উপজেলায় একাধিক মাদক ব্যবসায়ী, ইয়াবা চোরাচালানীর সাথে তার আঁতাত রয়েছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়।

আরো খবর

Leave a Reply