জানুয়ারি ২৯, ২০২২ ৪:৪৫ পূর্বাহ্ণ

অধ্যাপক মুহাম্মদ আমির উদ্দিনের উপর প্রাণনাশের হুমকি দাতা ও হামলাকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

 

আজ সকাল ১১.৩০ মিনিটের সময় চট্টগ্রাম গণঅধিকার ফোরাম উত্তর-দক্ষিণ মহানগর শাখার উদ্যোগে করদাতা সুরক্ষা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মুহাম্মদ আমির উদ্দিনের প্রাণনাশের হুমকি ও হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন, বিক্ষোভ সমাবেশ চকবাজার মোড়ে চ.গ.অ. ফোরাম মহানগর শাখার আহবায়ক প্রবীণ রাজনীতিবিদ আবু মোহাম্মদ হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সদস্য সচিব মোঃ নুরুদ্দীন হোসেন নুরুর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চ.গ.অ. ফোরামের কেন্দ্রীয় সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন চ.গ.অ. ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা এম.এ হাশেম রাজু। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চ.গ.অ. ফোরামের উত্তর জেলার আহবায়ক মোহাম্মদ নুরুল হাকিম লোকমান, দক্ষিণ জেলার যুগ্ম আহবায়ক মোহাম্মদ ইসমাইল সওদাগর, মোহাম্মদ মোরশেদুল আলম, চ.গ.অ. ফোরামের কেন্দ্রীয় মানবাধিকার সম্পাদক আলহাজ্ব এস.এম আবদুল মাবুদ, শিল্প বিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ নওশা মিয়া, সমবিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, সহকারী সম্পাদক মোহাম্মদ জানে আলম, সহ-সম্পাদক গাজী সেলিম, অফিস সম্পাদক মোহাম্মদ আখতার হোসেন, মোহাম্মদ মামুন প্রমূখ। প্রধান অতিথির বক্তব্য আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম বলেন ৬০ লক্ষ নগরবাসীর পিতার আসনে বসে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ.জ.ম. নাছির নগরবাসীকে সেবা দানের পরিবর্তে চট্টগ্রাম করদাতা সুরক্ষা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মুহাম্মদ আমির উদ্দিনের প্রাণনাশের হুমকি ও হামলা করার নির্দেশনা দিয়ে দেশ এবং জাতির সামনে নিজেকে সন্ত্রাসীর গডফাদার হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছেন। ইহা বড়ই দুঃখজনক ঘটনা। হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধির প্রতিবাদ করা ও নগরবাসীর পক্ষে অধিকার আদায়ের কথা বলায় কি তাঁর অপরাধ? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অধ্যাপক মুহাম্মদ আমির উদ্দিনের প্রাণনাশের হুককি দাতা ও হামলাকারীর বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক সন্ত্রাসী অস্ত্রদারীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে বিচার করুন। প্রধান বক্তা এম.এ. হাশেম রাজু বলেন, চট্টগ্রাম নগরীর জনগণের ভোটে নির্বাচিত হলে আজ আ.জ.ম নাছির উদ্দিন এই ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে লিপ্ত হতে পারতেন না, জবাবদিহি করতে হতো। ভোট ডাকাতি করে পবিত্র চেয়ারে বসে তিনি পূর্বের চরিত্রে ফিরে গেলেন এবং বেসামাল হয়ে পড়েছেন। জনাব রাজু আরো বলেন কালবিলম্বর না করে বর্ধিত হোল্ডিং ট্যাক্স বাতিল করুন। রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা, গ্রেফতারি পরোয়ানা, সম্পদ বাজেয়াপ্তের হুমকি প্রদান করে ৬০ লক্ষ নগরবাসীর পক্ষে গড়ে উঠা চলমান আন্দোলন এক দিনের জন্যও বন্ধ হবে না। দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথেই থাকব। নগরবাসীর বিজয় হবেই। নগরবাসীর ভাষা বুঝতে চেষ্টা করুন।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply