বাংলাদেশ, বৃহস্পতিবার, ২০শে মার্চ, ২০১৯ ইং, ৭ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ।

মাতৃভাষা বাংলার জন্য যাঁরা শহীদ হলেন

শেয়ার করুন
0Shares

লায়ন ডা. বরুণ কুমার আচার্য বলাই

মাতৃভাষা বাংলার জন্য যাঁরা শহীদ হলেন, তাঁরা ভাষার বরপুত্র হিসেবে খ্যাত। যতদিন পৃথিবীতে বাংলা ভাষা চর্চা ও দেশের অস্তিত্ব থাকবে ততদিন তাঁদের জীবনকর্ম আমাদের কাছে প্রাতঃস্মরণীয় হয়ে থাকবে। ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস পৃথিবীতে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। মায়ের ভাষা রক্ষার জন্য বাঙালি জাতিরাই রাজপথে প্রাণ দিয়েছে। এরকম নজির বিশ্বে কোথাও নেই। বাংলাদেশ ও ভারতের আসাম রাজ্যে ভাষার জন্য শহীদ হয়ে প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন বাঙালি মায়ের দামাল ছেলেরা। এই প্রজন্মকে জানানোর জন্য ২০১৯ সালের ভাষার মাস ফেব্র“য়ারিতে বাংলাদেশের মাতৃভাষা আন্দোলনে শহীদদের জীবন ও পরিচিতি তুলে ধরছি।
ভাষাশহীদ রফিক উদ্দিন: রফিক উদ্দিন আহমেদের জন্ম ১৯২৬ সালের ৩০ অক্টোবর। মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার পারিল বলধারা গ্রামে। বাবা আবদুল লতিফ। মা রাফিজা খাতুন। পড়াশুনার হাতেখড়ি পরিবারে। শৈশবে প্রাথমিক পড়ালেখা শুরু কলকাতার মিত্র ইনস্টিটিউটে। পড়াশুনা তারপর ১৯৪৯ সালে মানিকগঞ্জের বায়রা উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ওই স্কুল থেকে তিনি ১৯৪৯ সালে ম্যাট্রিক পাশ করেন। ম্যাট্রিক পাশ করার পর রফিক উদ্দিন মানিকগঞ্জ দেবেন্দ্রনাথ কলেজে বাণিজ্য বিভাগে ভর্তি হন। আই.কম. ক্লাস পর্যন্ত পড়লেও পরে পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যায়। ঢাকায় এসে পিতার সঙ্গে প্রেস পরিচালনা করতে শুরু করেন। পরে আবার জগন্নাথ কলেজে ভর্তি হন। এই কলেজে পড়ার সময়ে তিনি রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পড়েন।
২১শে ফেব্র“য়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজের সম্মুখের রাস্তায় ১৪৪ ধারা ভেঙ্গে বিক্ষোভ প্রদর্শনরত ছাত্র-জনতার মিছিলে রফিক অংশগ্রহণ করেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হোস্টেল প্রাঙ্গণে পুলিশ গুলি চালালে সেই গুলি রফিকউদ্দিনের মাথায় লাগে। গুলিতে মাথার খুলি উড়ে গিয়ে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়। মেডিকেল হোস্টেলের ১৭ নম্বর রুমের পূর্বদিকে তার লাশ পড়ে ছিল। ছয় সাত জন ধরাধরি করে তার লাশ এনাটমি হলের পেছনের বারান্দায় এনে রাখেন।
বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে রফিকই প্রথম গুলিবিদ্ধ হন। তাই বলা যায় তিনিই ছিলেন ভাষা আন্দোলনের প্রথম শহীদ। রফিক সাহিত্যিক ও সাংস্কৃতিক চর্চায় বিশেষভাবে উৎসাহী ছিলেন। কলকাতায় থাকাকালে তিনি পারিল-বলধারা যুবক সমিতির কার্যকরী পরিষদের সদস্য ছিলেন। তাঁর লাশ দাফন করা হয়েছিল আজিমপুর গোরস্থানে।
ভাষাশহীদ আব্দুল জব্বার: ভাষাসৈনিক আবদুল জব্বারের জন্ম ১৩২৬ বাংলা, ২৬ আশ্বিন। ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও থানার পাঁচাইর গ্রামে। বাবা আবদুল কাদের। পড়াশুনার হাতেখড়ি পরিবারে। তারপর তিনি গ্রাম্য পাঠশালায় প্রাথমিক পড়াশুনা শুরু করেন। পাঠশালায় কিছুদিন পড়াশুনা করার পর আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে তিনি বাধ্য হয়ে লেখাপড়া বন্ধ করে দেন। যুক্ত হন কৃষিকাজে। পিতাকে সার্বক্ষণিক কৃষিকাজে সাহায্য করেন। তখন তাঁর বয়স ছিল মাত্র ১০বছর।
আবদুল জব্বার ১৫ বছর বয়সের সময় একদা পরিবারের সাথে রাগ করে জীবন সংগ্রামের অজানা পথে বেরিয়ে আসেন। এই অসঙ্গতিপূর্ণ সমাজের কারণে তিনি অনেক কষ্ট, ক্ষুধা, যন্ত্রণা নিয়ে অবশেষে নারায়ণগঞ্জে এসে জাহাজ ঘাটে কাজে যুক্ত হন। বছরখানেক পর তিনি এক ইংরেজ সাহেবের সান্নিধ্যে আসেন। সাহেব তাকে একটি চাকরি দিয়ে বার্মায় পাঠান। সেখানে আবদুল জব্বার দশ-বারো বছর অবস্থান করে দেশে ফিরে আসেন। আবদুল জব্বার দেশে ফিরে আমেনা খাতুন নামে এক যুবতীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। আমেনা-জব্বার দম্পতি এক পুত্র সন্তান জন্ম দেন।
আবদুল জব্বার-আমেনা খাতুন পরিবারে ১৯৫১ সালের শেষের দিকে এক পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। জন্মের ৪ মাস পরে আবদুল জব্বারের শাশুড়ি ক্যান্সারে আক্রান্ত হন। শাশুড়িকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য ১৯৫২ সালের ২০শে ফেব্র“য়ারি তিনি ঢাকায় আসেন। শাশুড়িকে হাসপাতালে ভর্তি করে আবদুল জব্বার মেডিকেলের ছাত্রদের আবাসস্থল (ছাত্র ব্যারাক) গফরগাঁও নিবাসী হুরমত আলীর রুমে (২০/৮) উঠেন। ২১ ফেব্র“য়ারি আন্দোলনরত ছাত্রদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ শুরু হলে, কি হয়েছে দেখবার জন্য তিনি রুম থেকে বের হয়ে আসেন। ঠিক তিনি যখন ছাত্রদের কাছে গিয়ে দাঁড়ালেন তখনই পুলিশ গুলি শুরু করে। জব্বার গুলিবিদ্ব হন। ছাত্ররা তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা জব্বারকে মৃত ঘোষণা করে।
ভাষাশহীদ আবুল বরকত: ভাষা শহীদ আবুল বরকতের জন্ম ১৯২৭ সালের ১৩ জুন। ভারতের পশ্চিম বঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার কান্দি মহাকুমার ভরতপুর থানার বাবলা নামক একটি ছোট গ্রামে। আবুল বরকতের ডাক নাম ছিল আবাই। বাবা শামসুজ্জোহা। মা হাসিনা বিবি।
পড়াশুনার হাতেখড়ি পরিবারে। প্রাথমিক পড়াশুনা শেষে তিনি পার্শ্ববর্তী গ্রাম তালিবপুর ইংলিশ হাই স্কুলে ভর্তি হন। ওই স্কুল থেকে ১৯৪৫ সালে মেট্রিক পাশ করেন। মেট্রিক পাশ করার পর তিনি বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজে ভর্তি হন। এই কলেজ থেকে ১৯৪৭ সালে তিনি ইন্টারমিডিয়েট পাশ করেন। ১৯৪৮ সালে তিনি বাংলাদেশে চলে আসেন। ঢাকার পুরানা পল্টনে বিষ্ণুপ্রিয়া ভবনে তার মামা আব্দুল মালেক সাহেবের এই বাড়িতে বসবাস শুরু করেন। ওই বছর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে অনার্স কোর্সে ভর্তি হন। ১৯৫১ সালে তিনি অনার্স পরীক্ষায় দ্বিতীয় শ্রেণিতে চতুর্থ স্থান অর্জন করেন এবং এম.এ. শেষ পর্বে ভর্তি হন। ১৯৫২ সালের ফেব্র“য়ারী রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ঢাকা ছিল উত্তাল। এ আন্দোলন ছড়িয়ে গিয়েছিল সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, অফিস আদালতে এবং রাজপথের সবখানে।
ভাষা আন্দোলনের ঢেউ আবুল বরকতকে আলোড়িত করে। তিনি ভাষা আন্দোলনের সাথে যুক্ত হয়ে পড়েন। ভাষার দাবিতে ছাত্রদের মিছিল-মিটিং ও লিফলেট বিলিতেও তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। অধিকার আদায়ের দাবিতে শত শত বিদ্রোহী কন্ঠে “রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই” এই দাবিতে আন্দোলোন তীব্র হয়ে উঠে। পুলিশের সঙ্গে ছাত্র জনতার সংঘর্ষ হয়। বুলেট আর লড়াই শুরু হয়। পুলিশ লাঠিচার্জ এবং গুলিবর্ষণ শুরু করে।
তলপেটে গুলি লেগেছিল বরকতের। পরনের নীল হাফ শার্ট, খাকি প্যান্ট ও কাবুলী স্যান্ডেল রক্তে ভিজে যাচ্ছে। দু’তিন জন ছুটে এসে সুঠামদেহী বরকতকে কাঁধে তুলে জরুরী বিভাগের দিকে দৌড়াতে থাকেন। বরকত বলেছিলেন খুব কষ্ট হচ্ছে, আমি বাঁচবনা, বিষ্ণুপ্রিয়া ভবন পুরানা পল্টনে খবর পৌঁছে দিবেন। ডাক্তাররা তাকে বাঁচানো জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু, অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের জন্য সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয। ১৯৫২ সালে ২১ ফেব্র“য়ারী রাত ৮টার সময় ঢাকা মেডিকেল কলেজের জরুরী ওয়ার্ডে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
ভাষাশহীদ আব্দুস সালাম: ফেনী জেলার দাগনভূঞা উপজেলার মাতুভূঞা ইউনিয়নের লক্ষণপুর (বর্তমানে সালামনগর) গ্রামে ১৯২৫ সালের ২৭ নভেম্বর জন্ম হয় আবদুস সালামের। চার ভাই দুই বোনের মধ্যে সালাম সবার বড়। প্রথমে মাতুভূঞা করিম উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয় এবং ১৯৪২ সালে আতাতুর্ক উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। তার পিতা ফাজিল মিয়া কৃষিজীবী ছিলেন। পরিবারের আর্থিক অভাব অনটনের কারণে সালামের ম্যাট্টিক ফাইনাল পরীক্ষা দেয়া হয়নি। নিত্য অভাব দেখে সালামের রোজগারের ইচ্ছে জাগে। পাঠ চুকিয়ে জেঠাতো ভাই এর হাত ধরে ঢাকায় পাড়ি জমান। সেখানে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের মতিঝিল ‘ডাইরেক্টার অব ইন্ডাষ্ট্রিজ’ এ পিয়নের চাকুরি নেন। ৫২’র ফেব্র“য়ারির শুরুর দিকে সালাম বাড়িতে আসনে এবং কিছুদিন ছুটি শেষে ঢাকায় ফিরে যান। তখন মাতৃভাষা বাংলার দাবিতে রাজধানী ছিল আন্দোলন মুখর। ২৭ বছরের টগবগে যুবক সালাম জাতির জন্য, মায়ের ভাষার জন্য আন্দোলনে যোগ দেন। ছুটে যান মিছিলে।
২১ ফেব্র“য়ারি রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল প্রাঙ্গণে হাজার হাজার মানুষের সমাগম ঘটে। সেই মিছিলে তিনিও যোগ দেন। আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশের বর্বরোচিত গুলিবর্ষণে লুটিয়ে পড়েন, সালাম, বরকত, জব্বার, রফিক, শফিকসহ অনেকে। বুলেটবিদ্ধ সালামকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। টেলিগ্রামে খবর পেয়ে সালামের বাবা ফাজিল মিয়া, জ্যাঠাতো ভাই হাবিব ও প্রতিবেশী মকবুল আহমদ ঢাকায় ছুটে যান। দীর্ঘদিন সংজ্ঞাহীন থাকার পর ৭ এপ্রিল তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। পরদিন সকালে নামাজে জানাজা শেষে আজিমপুর গোরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়। গ্রাম থেকে আসা সালামের পিতা, জেঠাতো ভাই ও প্রতিবেশী মকবুল জানাজায় অংশগ্রহণ করেন।
১৯৯৯ সালের ১৮ নভেম্বর ফেনী জেলা পরিষদের অর্থায়নে ফেনী শহরের মিজান রোডে অবস্থিত কমিউনিটি সেন্টার ভাষা শহীদ সালামের নামে নামকরণ করা হয়। ২০০০ সালে ফেনী জেলার একমাত্র স্টেডিয়াম ভাষা শহীদ সালামের নামে নামকরণ হয়। শহীদ সালামের জন্মস্থান লক্ষ্মনপুর গ্রামের নাম পরিবর্তন করে সরকারী ভাবে সালাম নগর হিসেবে স্বীকৃতি পায়। ২০০০ সালে সরকার শহীদ আবদুস সালামকে মরণোত্তর ‘একুশে পদক’ প্রদান করেন। ২০০৭ সালে ২১ ফেব্র“য়ারী দাগনভুঞা উপজেলা মিলনায়তন ‘ভাষা শহীদ সালাম মিলনায়তন’ নামে নামকরণ করা হয়। এছাড়া ভাষা শহীদ আবদুস সালামের স্মৃতি রক্ষায় সালাম নগর গ্রামে ৬৩ লাখ ৮০ হাজার ২৫৮ টাকা ব্যয়ে একটি স্মৃতি গ্রন্থাগার ও জাদুঘর নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। ১৯৭৬ সালে সালামের পিতা ফাজিল মিয়া, ১৯৮২ সালে মা দৌলতের নেছা, ভাই সাহাব উদ্দিন, ১৯৯৯ সালে বোন কুরফুলের নেছা, ২০০২ সালে ভাই আবদুস সোবহান ও ২০০৭ সালের ৩ জানুয়ারি শহীদ সালামের ছোট বোন বলকিয়তের নেছা মারা যান।
ভাষাশহীদ শফিউর রহমান: ভাষা শহীদ শফিউর রহমানের জন্ম ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোন্নগরে ১৯১৮ সালের ২৪ জানুয়ারি। তাঁর পিতা মাহবুবুর রহমান ছিলেন ঢাকার পোস্ট এন্ড টেলিগ্রাফ অফিসের সুপারিনটেনডেন্ট। পড়াশুনার হাতেখড়ি পরিবারে। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পড়াশুনা শেষ করে কলকাতার গভর্নমেন্ট কমার্শিয়াল কলেজে ভর্তি হন। ওই কলেজ হতে তিনি আই.কম. পাস করেন। আই.কম. পাসের পর শফিউর রহমান চব্বিশ পরগনা সিভিল সাপ্লাই অফিসে কেরানীর চাকরি শুরু করেন। ১৯৪৫ সালের ২৮ মে শফিউর রহমান কলকাতার তমিজউদ্দিনের কন্যা আকিলা খাতুনকে বিবাহ করেন। আকিলা খাতুনের বয়স তখন ১২ বছর।
২২ ফেব্র“য়ারি শফিউর রহমান সকাল দশটায় অফিসে রওনা হন। সেদিন পাজামা, শার্ট, গেঞ্জি এবং কোট পরেছিলেন। পায়ে ছিল জুতা। সাইকেলে তিনি অফিসে যাতায়াত করতেন। সকাল সাড়ে দশটার দিকে নবাবপুর রোডে বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্র ভাষা করার দাবিতে বিক্ষোভরত জনতার উপর পুলিশ বেপরোয়া গুলিবর্ষণ করে। শফিউর রহমান গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতরভাবে আহত হন। তাঁকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। অস্ত্রোপচার সফল হয়নি। ওই দিন সন্ধা সাতটায় হাসপাতালে তিনি মারা যান।
শফিউর রহমানের এক মেয়ে এবং এক ছেলে। মেয়ে শাহনাজের বয়স তখন মাত্র তিন বছর। মেয়েকে তিনি অত্যন্ত স্নেহ করতেন। গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত অবস্থায় তিনি মেয়ের কথা স্মরণ করেন। আহত অবস্থায় তাঁর ডাক্তার ভাইকে তিনি বলেন, ‘আমার মেয়েকে দেখো। আমি বুঝতে পারছি আমি তার কাছে আর ফিরে যেতে পারব না’। ছেলে শফিকুর রহমান তখন মায়ের পেটে। ১৯৫২ সালের মে মাসে সে জন্মগ্রহণ করে।
গৌরদীপ্ত ভাষা আন্দোলনের অমর শহীদ শফিউর রহমানকে বাংলাদেশ সরকার মরণোত্তর একুশে পদক (২০০০) প্রদান করেন। শহীদ শফিউর রহমানকে আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা হয়।
ভাষাশহীদ আবদুল আউয়াল: ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে অন্যতম শহীদ আবদুল আউয়াল। পেশায় রিকসা চালক। বাবার নাম মোহাম্মদ হাশিম। বিবাহিত আবদুল আউয়ালের কন্যা বসিরণ। তিনি ২২ ফেব্র“য়ারিতে অনুষ্ঠিত শহীদের অন্তেষ্ট্রিক্রিয়ায় অংশ নিয়োছিলেন বলে জানা যায়। শেঅক মিছিলে তিনি যোগ দিয়েছিলেন। মিছিলটি যখন কার্জন হলের সামনের রাস্তায়, তখন একটি মিলিটারী ট্রাক সেই মিছিলের উপর দিয়ে চলে যায়। সেই ট্রাকে পিষে গিয়ে তার মৃত্যু হয়। ট্রাকের নিচে আরো একটি বালক নিহত হয়। তার নাম জানা সম্ভব হয়নি।
ভাষাশহীদ অহিউল্লাহ: ১৯৫২ সনে নবাবপুরে গুলিবর্ষণ হয়। এতে অহিউল্লাহ নামে একজন দশবছর বয়সী বালক শহীদ হন। তাঁর বাবা হাবিবুর রহমান রাজমিস্ত্রি। নবাবপুরে খোসমহল রেস্টুরেন্টের সামনে অহিউল্লাহের মাথা গুলিবিদ্ধ হয়েছিল। পুলিশ এই লাশ গুম করে ফেলায় মর্যাদার সঙ্গে করবস্থ করা যায়নি।

শেয়ার করুন
0Shares

আরো খবর

Leave a Reply