বাংলাদেশ, রবিবার, ১লা নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বায়তুশ শরফ ত্বরীকতের মিশন পীর কেন্দ্রীক নয় বলে গ্রহনযোগ্যতা স্বার্বজনীন

বায়তুশ শরফ আনজুমনে ইত্তেহাদ বাংলাদেশ কর্তৃক বায়তুশ শরফের প্রাণ পুরুষ কুতুবুল আলম শাহসূফী হযরত মাওলানা মীর মোহাম্মদ আখতর (রহ:) ও ও বায়তুশ শরফের প্রধান রূপকার শাহসুফী মাওলানা মোহাম্মদ আবদুল জব্বার (রাহ:) এর স্মরণে পবিত্র ইছালে সাওয়াব মাহফিলে বক্তারা বলেছেন আল্লাহ তালা সর্বযুগেই পৃথিবীর অনুতপ্ত অঞ্চলে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স:) এর সঞ্চাবনী আধ্যাত্মিক সুদাকে সুপেয় রাখতে হক্কানী ওলামায়ে কেরাম ও পীর মুর্শিদরূপী যে সকল ঝর্ণাধারা প্রবাহিত রেখেছেন তম্মর্ধ্যে মাওলানা শাহ মীর মোহাম্মদ আখতর (রহ:) ও মাওলানা শ,াহ আবদুল জব্বার (রহ:) ছিলেন অন্যতম। পীর সাহেবদ্বয় একদিকে ছিলেন মানবতার কল্যাণে নিবেদিত প্রাণ মাঠ কর্মী অন্যদিকে ছিলেন আধ্যাত্মিক সাধক, আল্লাহর কাছে অবনত মস্তক গোলাম। তাঁেদর প্রতিটি কথা ও কর্মই ছিল ইসলামী ভাবধারায় পরিপূর্ণ আলোয় উদ্ভাসিত। বক্তাগণ আরো বলেন, বায়তুশ শরফের ত্বরীকতের মিশন পীর বা ব্যক্তি কেন্দ্রীক না হওয়ার কারণে এর গ্রহনযোগ্যতা আজ স্বার্বজনীন। এরং এ কারনেই দেশ ও বিদেশের লক্ষ কোটি মানুষের ভক্তি, শ্রদ্ধা ও ভালবাসা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। বক্তাগণ আরো বলেন, বায়তুশ শরফ হচ্ছে সুদবিহীন ব্যাংকিং ব্যবস্থার সুতিকাগার এবং বাংলাদেশে বায়তুশ শরফই একমাত্র পূজিবাদীদের সুদভিত্তিক বাণিজ্য ও অর্থনীতির অভিশাপ থেকে জাতিকে মুক্ত রাখার জন্য সর্ব প্রথম উদ্যোগ নিয়েছিল। বক্তাগণ বায়তুশ শরফকে বিজ্ঞান ও আধ্যাত্মিক অনুশীলনের প্রাণ কেন্দ্র আখ্যায়িত করে আরো বলেন, জ্ঞান আহরনে অভ্যস্ত ও জ্ঞান পিপাসু মানুষদের জন্য বিশুদ্ধ ইসলামী ভাবাপন্ন দলীয় মতবাদ নিরপেক্ষ ইসলামী মূল্যবোধ ভিত্তিক একটি উচচতর গবেষণা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে জ্ঞান চর্চার সুযোগও করে দিয়েছে বায়তুশ শরফ।
ইসালে সাওয়াব মাহফিল উপলক্ষ্যে আজ ২৮ আগষ্ট সকাল থেকে খতমে কোরআন, খতমে বোখারী, খতমে তাহলীল শেষে বায়তুশ শরফ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অধ্যক্ষ প্রফেসর ড, মোহাম্মদ সাইয়েদ আবু নোমানের সভাপতিত্বে ও মজলিসুল ওলামা বাংলাদেশের মহাসচিব মাওলানা মামুনুর রশীদ নূরীর সার্বিক পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আনজুমনে ইত্তেহাদের সিনিয়র সহসভাপতি মোহাম্মদ আমান উল্লাহ খান, মীর আনোয়ার আহমদ, মাওলানা আবদুল হাই নদভী, মাওলানা মীম ছিদ্দিক আহমদ ফারুকী, মাওলানা কাজী নাছির উদ্দিন, মাওলানা আবুল হায়াত মুহাম্মদ তারেক, মাওলানা অধ্যক্ষ নুরুল আলম ফারুকী, মাওলানা কাজী জাফর আহমদ, মাওলানা আবু তাহের, মাওলানা শফিক আহম নইমী, মাওলানা নুরুল হুদা আল কাদেরী, মাওলানা আবদুচ সালাম হেলালী, মাওলানা ওবায়দুল্লাহ, লুৎফুল করিম মিন্টু, লিয়াকত আলী, মাওলানা ইউনুছ নুরী, মাওলানা শাব্বির আহমদ প্রমুখ।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply