১৫ জুন ২০২৪ / ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ / রাত ৪:১৩/ শনিবার
জুন ১৫, ২০২৪ ৪:১৩ পূর্বাহ্ণ

সাহিত্য পাঠচক্রের সভায় বক্তারা- এপার-ওপার বাংলার সাহিত্য – সংস্কৃতি চর্চা আরো সুদৃঢ় করতে হবে

     

চট্টগ্রাম সাহিত্য পাঠচক্রের উদ্যোগে পশ্চিমবঙ্গের বিশিষ্ট বাচিকশিল্পী, কবি, শিক্ষক ও সংস্কৃতিসেবী দেবিকা বন্দোপাধ্যায়ের একক আবৃত্তি, আলোচনা সভা, সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান গত ১৯ জানুয়ারী সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম একাডেমী মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি বাবুল কান্তি দাশের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ইউএসটিসির সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ডাঃ প্রভাত চন্দ্র বড়ুয়া। উদ্ধোদক ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগনেতা সৈয়দ মাহমুদুল হক। প্রধান বক্তা ছিলেন চবি অধ্যাপক ড. জিনবোধি ভিক্ষু।
বিশেষ আলোচক ছিলেন বাংলা একাডেমী পুরষ্কারপ্রাপ্ত কবি, সাংবাদিক, শিশু সাহিত্যিক রাশেদ রউফ, লেখক ডাঃ প্রণব কুমার চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ন সম্পাদক রাশেদ মনোয়ার, শিক্ষাবিদ, প্রাবন্ধিক অধ্যক্ষ ছন্দা চক্রবর্তী, উত্তরজেলা জাসদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ভানুরঞ্জণ চক্রবর্তী, দৈনিক সমকালের ডিজিএম সুজিত কুমার দাশ, নাট্যজন, সংস্কৃতিসেবী সজল চৌধুরী, কলামিষ্ট লায়ন এ.কে.জাহেদ চৌধুরী, আওয়ামীলীগনেতা এম.এ.রহিম, দক্ষিণজেলা যুবলীগনেতা লায়ন সন্তোষ কুমার নন্দী, সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম, শিক্ষক বিজয় শংকর চৌধুরী, অধ্যাপিকা নিশাত হাসিনা শিরিন, কবি আবু মুসা চৌধুরী। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আসিফ ইকবালের পরিচালনায় এতে কবিতা আবৃত্তি,সঙ্গীতে অংশগ্রহণ করেন সঙ্গীতশিল্পী অচিন্ত্য কুমার দাশ, সঙ্গীতা চৌধুরী, কাকলী দাশগুপ্ত, কবি সজল দাশ, আবৃত্তিশিল্পী শবনম ফেরদৌসী, কবি মনজুর আলম, কবি শ্রাবন্তী বড়ুয়া, নাসিমা আকতার, ছাত্রনেতা মনজুর আলম, ছড়াকার সাফাত বিন সানাউল্লাহ প্রমুখ।এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আবৃত্তিশিল্পী শাহীন ফেরদৌসী, নুরুল আবছার, রতন ভট্টাচার্য, সংগঠক নাসির হোসেন জীবন, ছাত্রনেতা রেজাউল করিম লিটন, শাহাদাত হোসেন, আজিজুর রহমান, শিহাবুর রহমান, মোঃ জাফর, ওয়াহিদুজ্জামান প্রমুখ। সভায় প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারতবাসী যেভাবে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে, সহযোগিতা করেছে তা আমরা যুগ যুগ মনে রাখব। বাংলাদেশ- ভারত সম্পর্ক আরো সুদৃঢ হবে। এপার ওপার বাংলা সাহিত্য – সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে বাংলা ভাষাকে আরো সমৃদ্ধতর করতে হবে। উদ্ধোধক তার বক্তব্যে বলেন ভারত – বাংলাদেশ সবসময় বন্ধুত্বপুর্ণ সম্পর্কের মাধ্যমে বাণিজ্য, সাহিত্য- সংস্কৃতি সর্বোপরি উন্নয়ন সম্পর্ক সহযোগিতা আরো বেগবান হবে। তিনি উভয় বাংলার কবি – সাহিত্যিকদের মধ্যে সংস্কৃতি চর্চাকে আরো জোরালো করার আহবান জানান। প্রধান বক্তা বলেন আমরা সবসময় ভারতবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞ। বাংলাদেশ – ভারতের বন্ধুত্বপুর্ণ মেলবন্ধন বিশ্ব ইতিহাসে বিরল।

About The Author

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply