ডিসেম্বর ২, ২০২১ ৪:১২ অপরাহ্ণ

দাগহীন ত্বক পাওয়ার ঘরোয়া উপায়!

ত্বকের খুঁত ঢাকতে আমরা কত কিছুই না করি। ত্বকের সঙ্গে রং মিলিয়ে ফাউন্ডেশন, কনসিলার, কারেক্টর, একগাদা প্রডাক্ট ব্যবহার করি। এতে সমস্যা সাময়িকভাবে গা ঢাকা দেয় ঠিকই কিন্তু কমে না। তবে, কার্যকর সমাধান পেতে বেশি কাঠ-খড় পোড়ানোরও প্রয়োজন নেই। রান্নাঘরে একটু উঁকি মেরে দেখুন, দেখবেন ঝুলি থেকে একাধিক সমাধান বেরিয়ে এসেছে!

 

 

 

 

পাতিলেবু

ত্বকের দাগ-ছোপ নিয়ে যারা চিন্তিত তারা পাতিলেবুকে কাজে লাগাতে পারেন। পুরনো, জেদি দাগ-ছোপ হালকা করতেও পাতিলেবুর বেশ সুনাম রয়েছে।

টাটকা পাতিলেবু চিপে রস বের করে নিন। তুলো সরাসরি এই রসে ভিজিয়ে দাগের উপর লাগাতে পারেন। যদি সেনসিটিভ স্কিন হয়, সেক্ষেত্রে সামান্য পানি মিশিয়ে রস পাতলা করে নিন। অথবা লেবুর রসের সঙ্গে সমপরিমাণ মধু মিশিয়ে নিন। ১০-১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহার করলে ১৫ দিনেই পার্থক্য দেখতে পাবেন।

আলু

দাগ দূর করতে আলুও কিন্তু ভীষণ কার্যকর। হাইপারপিগমেন্টেশন বা মেচেতার সমস্যা থাকলেও আলু ব্যবহার করে দেখতে পারেন। আলুতে রয়েছে ক্যাটেকোলেজ নামক এক ধরনের উৎসেচক, যা ত্বক উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে।

আলুর খোসা ছাড়িয়ে একটু মোটা করে স্লাইস করে নিন। একটা স্লাইসের উপর কয়েক ফোঁটা পানি দিয়ে তা ত্বকে সার্কুলার মোশনে ঘষুন। ৫-১০ ঘষার পর ঈষদুষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন দু’বেলা এই পদ্ধতি ব্যবহার করলে একমাসেই দেখবেন দাগছোপ গায়েব হয়েছে।

খুব ভাল হয় যদি এরসঙ্গে লেবুর রস ব্যবহার করেন। আলু কুরিয়ে তাতে লেবুর রস মিশিয়ে মাস্ক হিসেবে মুখে লাগিয়ে রাখুন। আধঘণ্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন।

অ্যাপল সিডার ভিনিগার

দাগ-ছোপের প্রসঙ্গ উঠলে অ্যাপল সিডার ভিনিগারকে ভুললে চলবে না। ত্বক উজ্জ্বল করতেও এর জুড়ি মেলা ভার।

সমপরিমাণ অ্যাপল সিডার ভিনিগার ও পানি মিশিয়ে নিন। তুলোয় করে এই মিশ্রণ প্রয়োজনীয় অংশে লাগান। কয়েক মিনিট রেখে ঈষদুষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দিনে দু’বার করে কয়েক সপ্তাহ এই রুটিন মেনে চলুন। উপকার পাবেন।

অনেক সময় শরীরে জমে থাকা টক্সিনের কারণেও মুখে দাগছোপ দেখা দেয়। সেক্ষেত্রেও কিন্তু কাজে লাগাতে পারেন অ্যাপল সিডার ভিনিগার। কারণ এটি শরীর থেকে টক্সিন ফ্লাশ আউট করতেও অব্যর্থ। আধ গ্লাস ঈষদুষ্ণ পানিতে দু’ চা-চামচ অ্যাপল সিডার ভিনিগার ও এক চা-চামচ মধু মিশিয়ে নিন। সকালে ও রাতে এই মিশ্রণ খেলেও উপকার পাবেন।

ভিটামিন ই

ত্বক ভাল রাখতে ভিটামিন-ই-এর ভূমিকা সম্পর্কে নিশ্চয়ই সকলে জানেন। ত্বকে নতুন কোষ তৈরি করতে এই ভিটামিন আবশ্যক। আর দাগছোপ দূর করতে চাইলে ত্বকের নতুন কোষ তৈরির দিকে নজর না দিয়ে উপায় নেই। এটি সূর্যের রোদ থেকে ত্বকের ক্ষতি হওয়াও কমায়।

যেকোনও স্কিনকেয়ার অয়েল বা ময়শ্চারাইজারের সঙ্গে একটা বা দু’টো ভিটামিন ই ক্যাপসুলের মিশ্রণ মিশিয়ে নিন। রাতে শুতে যাওয়ার আগে প্রতিদিন এই মিশ্রণ মুখে লাগান। পরদিন সকালে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

হাতে সময় থাকলে মাস্ক বানিয়েও ব্যবহার করতে পারেন। আধকাপ মুলতানি মাটি, এক টেবলচামচ পেঁপে ও দু’টো ভিটামিন ই ক্যাপসুল একসঙ্গে মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরি করুন। এটি মুখে লাগিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট রেখে ঈষদুষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এছাড়া ভিটামিন ই অয়েলও সরাসরি মুখে লাগাতে পারেন। ১০ মিনিট রেখে মুখ ধুয়ে নিন। উপকার পাবেন।

হলুদ

রান্নাঘরের অতিপরিচিত উপাদান হলুদেরও ব্লিচিং প্রপার্টি রয়েছে যা হাইপারপিগমেন্টেশন থেকে শুরু করে ত্বকের যে কোনও দাগছোপ হালকা করতে এবং ত্বক উজ্জ্বল করতে অব্যর্থ। অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল ক্ষমতাসম্পন্ন হলুদ ত্বককে বিভিন্ন জীবাণুর হাত থেকেও রক্ষা করে।

এক চা চামচ করে হলুদগুঁড়ো ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে দাগের উপর লাগান। ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এই মিশ্রণ ব্যবহার করার পর অন্তত একঘণ্টা রোদে বেরনো চলবে না। গোসলের আগে এই প্যাক ব্যবহার করতে পারলে সবথেকে ভাল। পাতিলেবুর রসে সমস্যা থাকলে তার পরিবর্তে দুধও ব্যবহার করতে পারেন। ৫ মিনিট ত্বকে ভালভাবে মাসাজ করে ধুয়ে নিন

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply