আগস্ট ৯, ২০২২ ২:১৬ অপরাহ্ণ

চলতি মাসেই ঘূর্ণিঝড়-শীত, ডিসেম্বরে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ

ভরা কার্তিকে দিনে-রাতে তাপমাত্রার তারতম্য বাড়ছে। এখনও শীত আসার ঢের বাকি। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি থেকেই শীতকাল শুরুর কথা। কিন্তু এবার অক্টোবরের শেষ সপ্তাহ থেকেই রাতের তাপমাত্রার পতন ঘটতে শুরু করেছে। এমনকি উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় ভোরের কুয়াশার সাথে পুরোদস্তুর শীতের আমেজ চলছে। মঙ্গলবার (২ নভেম্বর) দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে সিলেটের শ্রীমঙ্গলে। সেখানে তাপমাত্রা ১৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমেছে। রাজধানী ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২০ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। একদিন আগে সোমবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল রংপুরের ডিমলায় ১৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।  

আবহাওয়াবিদ ড. আবুল কালাম মল্লিক বলেন, নভেম্বর শুরুর দিন থেকেই তাপমাত্রার পারদ নামতে শুরু করেছে। কোথাও কোথাও ঠাণ্ডা আমেজ শুরু হয়েছে। সামান্য পরিবর্তন দেখা গেলেও শীতের দেখা পেতে আরও কিছু দিন অপেক্ষা করতে হবে। দেশের উত্তর-পশ্চিমে একটা উচ্চ চাপ বলয় বিরাজমান করছে এখন। এই উচ্চ চাপ বলয় বঙ্গপোসাগরের জলীয় বাষ্পকে দক্ষিণের দিকে ঠেলে দেবে। সেই তাপমাত্রাটা গড়ে ১৮ থেকে ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠানামা করবে অঞ্চলভেদে। সেই হিসেবে নভেম্বরে এই তাপমাত্রা থাকবে। যেটা শীতকালে সাধারণত গড় তাপমাত্রা থাকে। ডিসেম্বরের শেষ নাগাদ একটি তীব্র শৈত্যপ্রবাহ হবে।

আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস জানিয়েছেন, চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে শীত নামবে আর ডিসেম্বরে তীব্র শৈত্য প্রবাহের সম্ভাবনা রয়েছে। ইতিমধ্যেই দেশ থেকে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমী বায়ু বিদায় নিয়েছে। কার্তিকেও হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।বরং নভেম্বরে বৃষ্টিপাতের পাশাপাশি ঘূর্ণিঝড়ের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। আর ঘূর্ণিঝড়ের রেশ না কাটতেই ডিসেম্বরে শৈত্যপ্রবাহেরও সম্ভাবনাও রয়েছে। সবটুকু জানতে ক্লিক করুন

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply