ডিসেম্বর ৪, ২০২১ ২:৪৭ অপরাহ্ণ

ফেনীতে সংখ্যালঘুদের হামলা ও মারধরের ঘটনায় আরও একটি মামলা দায়ের, নতুন গ্রেপ্তার আরও ৬জন

 ফেনী প্রতিনিধি
ফেনী শহরে গত শনিবার রাতে কালীপাল গাজীগঞ্জ মহা প্রভুর আশ্রম, ট্রাংক রোড ও বড় বাজারের কালী মন্দিরে হামলা-ভাংচুরের ঘটনায় মন্দির কমিটির পক্ষ থেকে ফেনী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ট্রাংক রোডের জয়কালি মন্দির পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক তপন কুমার দাস বাদী হয়ে ২৫০ জন অজ্ঞাত আসামীর বিরুদ্ধে সোমবার রাতে এ মামলা দায়ের করেন। পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে এ মামলায় সন্ধিগ্ধ আসামী নোয়াখালীর সেনবাগের লদুয়া কানকির হাট এলাকার (বর্তমানে ফেনী পৌরসভার শাহীন একাডেমি মনু ভিলার) বাসিন্দা আবদুল্লাহ আল মিয়াজীকে (২১) গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তার অপর ৫ জনের মধ্যে ফেনী থানা পুলিশের দায়ের করা দুই মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছে ৪জন। তারা হলেন- লক্ষীপুর সদর উপজলার মাওলানা পাড়ার (ফেনীতে হোটেল ম্যানেজার) মো. সোহেল (২৬), বাগেরহাটের মোড়লগঞ্জের কাকড়াতলীর (বর্তমানে ফেনীর উকিলপাড়া) মো. রোমান শেখ (১৬), ফেনী সদর উপজেলার পাঁচগাছিয়া কটুমিয়া ভূঁঞা বাড়ীর মোয়াজ্জেম হোসেন (৩২) ও সাইফুল ইসলাম (৩৮)। এছাড়া একই ঘটনায় র‌্যাবের দায়ের করা মামলার আসামী ফেনী সদর উপজেলার লেমুয়ার মেহেদী হাসান মুন্নাকে (২২) জেলা ডিবি পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। নতুন গ্রেপ্তার ৬ জনকে গতকাল মঙ্গলবার ফেনীর আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। এ নিয়ে ফেনীতে মন্দির, আশ্রম ও দোকানপাটে হামলা ভাংচুরের ঘটনায় ৪ মামলায় ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মনির হোসেন জানান, র‌্যাব ও পুলিশ ও মন্দির কমিটির পৃথক মামলায় গত তিন দিনে ১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। গত সোমবার ফেনীর বিচারিক হাকিম আদালতে যে ৬ জনকে পাঠিয়ে প্রত্যেককে অধিকতর জিজ্ঞাাসাবাদের জন্য ৫ দিন করে রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়েছিল তাদের রিমান্ড শুনানী আগামী সোমবার অনুষ্ঠিত হবে।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply