জানুয়ারি ২৯, ২০২২ ৫:০৮ পূর্বাহ্ণ

সিআরবি: চট্টগ্রামবাসী রক্তচক্ষু উপেক্ষা করেই রাজপথে নেমেছে – বাবুল

সিআরবি রক্ষা আন্দোলন, চট্টগ্রামের সদস্যসচিব বর্ষীয়ান আইনজীবী ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল বলেছেন, চট্টগ্রামের মানুষকে রক্তচক্ষু দেখিয়ে লাভ হবে না।

ব্রিটিশ আমল থেকে মহান মুক্তিযুদ্ধ হয়ে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির রায় কার্যকর করা পর্যন্ত চট্টগ্রামবাসী রক্তচক্ষু উপেক্ষা করেই রাজপথে নেমেছে, আন্দোলন করেছে, বিজয় ছিনিয়ে এনেছে।

সিআরবি বাঁচাও আন্দোলনেও জিতবে চট্টগ্রামের মানুষ। কারণ সিআরবি চট্টগ্রামবাসীর ফুসফুস। এ ফুসফুস ধ্বংস করে শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ রোগীর জন্য হাসপাতাল নির্মাণ করতে দেব না আমরা। এ দাবি আদায়ে আমরা বদ্ধপরিকর। এ লক্ষ্যে আমরা অবিচল।

বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) নাগরিক সমাজ, চট্টগ্রামের উদ্যোগে আয়োজিত ধারাবাহিক অবস্থান কর্মসূচি উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

সিআরবি এলাকা হলো চট্টগ্রামের প্রাকৃতিক অক্সিজেন ভূমিবৈচিত্র্য ও প্রাণবৈচিত্র্যের অন্যতম প্রধান ক্ষেত্র। এতে হাসপাতাল কিংবা অন্য কোনো স্থাপনা করলে এর পরিবেশ প্রকৃতি নষ্ট হবে এবং এর প্রভাব চট্টগ্রাম মহানগরের ৭০ লাখ মানুষকে ভোগ করতে হবে। সিআরবিতে প্রস্তাবিত হাসপাতালের জায়গায় রয়েছে মুক্তিযুদ্ধে শহীদ জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান চাকসু জিএস আবদুর রবসহ নয়জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদের কবর। এসব কবরের ওপর ব্যক্তিমালিকানাধীন মুনাফামুখী হাসপাতাল শুধু নয় যেকোনো স্থাপনাই হবে মহান মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের অবমাননার শামিল। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ওপর আস্থা রেখেছি। আমাদের পরিবেশবান্ধব নেত্রী কখনোই এখানে বাণিজ্যিক স্থাপনা হতে দেবেন না।

ছাত্রলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন পলাশের সঞ্চালনায় এবং সাবেক ছাত্রনেতা শিবু প্রসাদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ নেতা বিপু ঘোষ, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী হাসিনা আক্তার টুনু, জেনিফার আলম, মুক্তিযোদ্ধা গবেষক ও কবি মোহাম্মদ জামসেদ উদ্দিন, ছাত্রলীগ নেতা জয়নাল উদ্দিন জায়েদ, আরাফাতুল মান্নান ঝিনুক, মাহমুদুল করিম, আবদুর রহিম জিল্লু, কাজী জামি, এমএ মনির, মোস্তাফিজ উদ্দিন মাহিন, মোহাম্মদ সাকিব, মামুনুর রশিদ রায়হান, শুভ দত্ত, পিকলু শীল জয়, সাজ্জাদ হোসেন জাফর, কৃষক লীগ নেতা হুমায়ূন কবীর মাসুদ প্রমুখ। সঙ্গীত পরিবেশন করেন নারায়ণ দাশ।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply