সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১ ৩:০৫ পূর্বাহ্ণ

ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা (২০৬) শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনি সমীপে

মাননীয়,

 

 

গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রী ডা. দীপু মনি সমীপে,
শ্রদ্ধেয় মনি আপারে,

গরম গরম কথার শুরুতে আমার লাখ কোটি সালাম জানিবেন। আশা করি, আল্লাহ মালিকের অপার মহিমায় ভালো থাকিয়া বৈশ্বিক এই করোনাকালে নানান কল্যাণকর কর্মসুচী পালন ও দেশের ভবিষ্যত হরেক – রকম চিন্তা করিয়া দিন যাপন করিতেছেন। আমিও গ্রাম বাংলার এক মফস্বল শহরে থাকিয়া দেশের ভবিষ্যতের কথা ভাবিয়া ছাগলের তিন নাম্বার বাচ্ছার মতো খাইয়া না খাইয়া বাঁচিয়া আছি। গেলবারে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহেদ মালেক সমীপে ঠাণ্ডা মিয়ার গরম কথা লিখিবার সময় এইবার আপনার সমীপে লিখিব বলিয়াছিলাম, এইজন্য লিখিতেছি বলিয়া রাগ করিবেন না বরং শত ব্যস্ততার মধ্যেও গরম কথাটুকু পড়িয়া দেখিবেন ও যাহা প্রয়োজন তাহা করিবেন আর ভুল হইলে নিজ গুনে মাফও করিয়া দিবেন।

আপারে,

আপনি হইলেন, বাংলাদেশের প্রথম মহিলা পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত অত্যন্ত সফলতার সাথে মন্ত্রীত্ব চালাইয়াছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদের নতুন মন্ত্রিসভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাইয়াছেন আপনি ।

আপনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ-এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং ভাষা আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ও পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র লীগের প্রথম কাউন্সিল-নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এম.এ ওয়াদুদের কন্যা। চাঁদপুর-৩ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্যও আপনি। শুনিয়াছি, আপনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়- প্রতিবেশী দেশসমূহের সাথে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হইয়াছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে  কমনওয়েলথ মিনিস্ট্রেরিয়াল অ্যাকশন গ্রুপ-এর প্রথম নারী এবং দক্ষিণ এশীয় চেয়ারপার্সন নির্বাচিত হন আপনি। এ ছাড়াও আপনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সমুদ্র জয় করিয়াছে। এতে করে বাংলাদেশ সরকার প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমার এবং ভারতের সাথে প্রায় চার দশকের সমুদ্র সীমা সংক্রান্ত অমীমাংসিত বিষয়টি আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় চূড়ান্তভাবে নিষ্পত্তির উদ্যোগ গ্রহণ করিতে পারিয়াছে ।

সামাজিক উন্নয়ন এবং প্রশাসনিক ক্ষেত্রে আপনার অনন্য অবদানের জন্য আপনি মাদার তেরেসা আন্তর্জাতিক পুরষ্কারে ভূষিত হইয়াছেন। ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ২০তম কাউন্সিলে পুনরায় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসাবে নির্বাচিত হইয়াছেন। ২০১৯ সালে ৬ জানুয়ারী আপনি একাদশ জাতীয় সংসদের অধীনে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এর দায়িত্ব নিয়াছেন।

আপনার স্বামী  তৌফীক নাওয়াজ বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের একজন বিখ্যাত আইনজীবি ও আন্তর্জাতিক একটি ল’ফার্মের প্রধান।তাহা ছাড়া তৌফীক নাওয়াজ উপ মহাদেশের দু’ হাজার বছরের ঐতিহ্য মন্ডিত ধ্রুপদী সঙ্গীতের উৎস হিসেবে পরিচিত ‘আলাপ’ এর একজন নামকরা শিল্পীও ।

 আপারে, 

লোকেরা বলিতেছে , পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসাবে আপনি যতটা সফল হইয়াছেন ঠিক তাহার চেয়ে বেশী ব্যর্থ হইয়াছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে। বৈশ্বিক অতি মহামারীর আমলে আপনার সিদ্ধান্ত গুলো লইয়া জ্ঞানী লোকেরা তুমুল সমালোচনা করিতেছে। পরীক্ষা হইবে না এই কথা বলিয়া ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষা অমনোযোগী করিবার জন্য অভিভাবকেরা আপনাকে  দায়ী করিতেছে। এই কথা বলিয়া আপনার কিংবা আপনার সরকারের কী লাভ হইল ? কোচিং সেন্টার বন্ধ করিলেন ।  কিন্ত আসলেই  কোচিং সেন্টার কী বন্ধ হইল? শিক্ষকেরা থানা পুলিশকে ঘুষ দিয়া অহঃরহ কোচিং সেন্টার চালাইতেছে। শিক্ষকদের ঘুষ দিবার শিক্ষাটা আপনি শিক্ষা মন্ত্রী হইয়া শিখাইলেন ! অটো পাশ দিয়া সারা জীবনের জন্য ছাত্রছা্ত্রীদের কলংকিত করিলেন কেন ?  ছোট সিলেবাস দিয়া হইলেও পরীক্ষা নেওয়া উচিত ছিল বলিয়া চিন্তাশীল লোকেরা বলিতেছে। এমন কোন কথা বলিবেন না যাহাতে শিক্ষার্থীদের মনোবল ও অমনোযোগিতা তৈরী হয় । ঘরে বসিয়া সময় ও যোগাযোগ খরচ বাঁচিতেছে সেটাকে কাজে লাগান ।

আপারে 

স্কুল কলেজে না যাইয়াও শিক্ষার্থীরা  বেতন ও নানান ফি দিতে হইতেছে । এটা কেমন সিদ্ধান্ত ? অভিভাবকেরা যেখানে কর্মহীন হইয়া পড়িয়াছে সেখানে এই সব বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সুন্দর সমাধান দিতে পারে । স্কুল ও কলেজে ডিজিটাল বাংলাদেশে এনালগ বহু শিক্ষক রহিয়াছে ইহারা ছাত্র ছাত্রী ও আইটি লোকদের কাছে হাসির পাত্র বলিয়া শুনিতেছি । ইহাদের জাতীয় সম্পদে পরিণত করুণ নইলে জাতীর বোঝা হইয়া থাকিবে।করোনাকালে বাংলাদেশ টেলিভিশন ও গণমাধ্যমগুলো ব্যাপক ভুমিকা রাখিতে পারে। বাংলাদেশে এমন কোন বাড়ী নেই যেখানে টেলিভিশন নাই, টেলিভিশনে কেন্দ্রীয় ভাবে রুটিন করিয়া ক্লাশ লইলে অটোপাশ আর দরকার হইবে না।ছাত্র ছাত্রীরা ঘরে বসিয়া। অধ্যয়ণ করিতে পারিবে। প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করিয়া যথাদ্রুত সম্ভব এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিন।নইলে মূর্খ জাতি গঠনের কারিগর হিসাবে ইতিহাস আপনাকে ক্ষমা করিবে না। কথাটা একটু কড়া হইলেও অসংখ্য সাধারণ মানুষের মনের কথা এইটি। যাহা বলিলাম শুধু  দেশ, জাতির উপকার ও আপনার সম্মাণ অটুক থাকিবার জন্যই বলিলাম।

আজ আর না। আপনার মঙ্গল ও সুস্বাস্থ্য কামনায় । ইতি আপনারই গ্রাম বাংলা অখ্যাত

ঠাণ্ডা মিয়া

গ্রন্থনা ম. আ. হ

আাগামী সংখ্যায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমীপে ঠাণ্ডা মিয়ার গরম  ( ২০৭ )  সম্প্রচার করা হইবে।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply