নভেম্বর ৩০, ২০২১ ৩:২৯ অপরাহ্ণ

রাজশাহীতে ত্রাণ বিতরণে বাঁধা, থানায় উভয় পক্ষের অভিযোগ

রাজশাহী প্রতিনিধি
স্বাস্থ্যবিধি মেনে ত্রাণ বিতরণ করতে গিয়ে বাঁধার মুখে পড়েছেন সমাজসেবক ও কাউন্সিলর প্রার্থী আশরাফ বাবু ও তার সহযোগিরা। দীর্ঘদিনের চলমান করোনা বিপর্যয়ে অসহায় গরীব মানুষ সাহায্য সহযোগিতা করার জন্য উদ্যোগ নেন ১৯ নং ওয়ার্ডের কৃতি সন্তান ও সমাজসেবক আশরাফ বাবু। কিন্তু তার ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানকে জনসভা বলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে একটি কুচক্রী মহল ৯ জুলাই( শুক্রবার) রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ১৯ নং ওয়ার্ডের ছোটবন গ্রাম পূর্বপাড়ায় মসজিদ পট্টিতে ত্রাণ বিতরণ কালে এই উদ্ভুত পরিস্থিতি সৃষ্টি করেন সেই কুচক্রী মহল। এমনটাই জানালেন রাজশাহী মহানগর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ১৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আশরাফ বাবু। চলমান লকডাউনে মানুষ যখন ঘরবন্দি। সে সময় সরকার বৃত্তবানদের প্রতি আহ্বান করছে অসহায়দের পাশে দাঁড়াতে। তখন সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে দলীয় লোকজনসহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষ মানবিক সহায়তা নিয়ে দাঁড়িয়েছেন দুস্থ অসহায়দের পাশে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯ নং ওয়ার্ডে ত্রাণ বিতরণের আয়োজন করেন আশরাফ বাবু। এই আয়োজনকে অপচার করছে একটি স্বার্থান্বেষী মহল। এই ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে বাঁধা দিতে কুচক্রী মহলের ইন্দনে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের পরিছন্ন কর্মী ও স্থানীয় মহিলাদের ব্যবহার করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন আশরাফ বাবু। এদিকে ঘটনার ভিডিওতে দেখা যায় মারমুখী আচারণে উক্ত নারী প্রভাবিত হয়ে ঘটনাকে ভিন্নখাতে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। এ বিষয়ে আশরাফ বাবু বলেন, আমার ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে বাঁধা সৃষ্টি করতে ১৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের লোকজন সেখানে উপস্থিত হয়। বাঁধা দিতে সে নারীদের ব্যবহার করেন। যে ভিডিওটি ভাইরাল করছে সেই ভিডিওতে আমার কোন ছবি নাই। কারন ঘটনার সময় আমি সেখানে উপস্থিত ছিলামনা। আর সরকার যেখানে অসহায়দের পাশে দাঁড়াতে বলছে, সেখানে বাঁধা দিবে কেন? তাহলে কি কারো কোন অসত উদ্দেশ্য রয়েছে? তবে এবিষয়ে ১৯ নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন ভিন্ন কথা বলছেন। তিনি বলেন, আমি ঘটনা শুনেছি। স্বাস্থ্যবিধির জন্য সরকার থেকে কড়া নিষেধাক্কা রয়েছে সেখানে গণজমায়েত করে সভা করছে।এমন খবর আমার কাছে এসেছে। সেখানে ত্রাণ দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। তা নাম মাত্র, তাদের উদ্দেশ্য সভা করা। তবে ঘটনা স্থলে যে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে তার সাথে আমার কোন সপৃক্ততা নাই। এ বিষয়ে চন্দ্রিমা থানার ওসি সিরাজুম মুনীর বলেন, বিষয়টি আমরা অবগত আছি। দুই পক্ষই অভিযোগ দিয়েছে। তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply