মে ৯, ২০২১ ৮:১৭ পূর্বাহ্ণ

.মসজিদে মুসল্লির সীমাবদ্ধতার সিদ্ধান্তের পূর্ণবিবেচনার দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলন

সমবেতকন্ঠে তওবা করার জায়গাটা সংকুচিত করবেন না
বিগত একবছরে করোনা মহামারির সংকটকালেও আল্লাহর ঘর মসজিদকে আঁকড়ে ধরে রাখা খতিব-ইমাম- মুয়াজ্জিন ও খাদেমদের মধ্যে কয়জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে? মসজিদে আসার কারণে কতজন মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে? মসজিদে করোনা ছড়ায় না বরং করোনা হতে বাঁচার সবচেয়ে সুরক্ষিত জায়গার নামই হল মসজিদ। সরকারের প্রতি অনুরোধ- আল্লাহর দরবারে সমবেতকন্ঠে তওবা করার জায়গাটা সংকুচিত করবেন না। লাখো হাফেজের পরিবার তারাবির সাথে জড়িত। অন্তত কুরআনের পাখিদের জন্য হলেও জুমার নামাযের ন্যায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে তারাবির জন্য মসজিদ উম্মুক্ত করার পূর্ণবিবেচনা করছি। অপরদিকে সারাদেশে মসজিদ কমিটির প্রতি বিশেষ অনুরোধ স্বাস্থ্য বিধিমেনে খতমে তারাবী চালু রাখার জন্য উদ্যোগ গ্রহন করুন। লাখো মানুষের সমাগমস্থল গার্মেন্টস গুলো লকডাউনে খোলা থাকবে বিপরীতে মসজিদে তারাবীহ নামাজ পড়তে পারবে ২০ জন। এসব সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে বুঝা ও তথ্য নেয়া জরুরী।
১৩ এপ্রিল মঙ্গলবার বেলা ২ ঘটিকায় চট্টগ্রাম নগরীর একটি রেষ্টুরেন্টে ধর্মীয় ও মানবকল্যাণ সংস্থা আল-হাসনাইন মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে পবিত্র মাহে রমজান মাসে মসজিদে ২০ জন মুসল্লির সীমাবদ্ধতার সিদ্ধান্তের পূর্ণবিবেচনার দাবীতে সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠকরেন ফাউন্ডেশনের মহাসচিব আলমগীর ইসলাম বঈদী। এতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা গিয়াস উদ্দিন নিজামী, আহলে সুন্নাত ওয়াল জমা’আত চট্টগ্রাম মহানগরের প্রচার সম্পাদক আলহাজ্ব মাওলানা সোহাইল উদ্দিন আনসারী, যুবসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তরের সমাজসেবা সম্পাদক হাফেজ মুহাম্মদ নূর, গাউসিয়া কমিটি জামালখান ওয়ার্ড শাখার সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ আবু জাফর সওদাগর, ছাত্রনেতা আরফাত হোসাইন, গোলাম ইয়াছিন, আসিফুর রহমান প্রমুখ।

 

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply