বাংলাদেশ, শুক্রবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আনোয়ারায় ভূমি প্রতারণার মামলার জালে দুই ইউপি সদস্য

মুহাম্মদ রবিউল আলম রবিন
        আনোয়ারা উপজেলায় ভূমি প্রতারণা ও জাল দলিল মামলায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই)’র তদন্তের জালে পড়ে আটক হয়েছে ১ নং বৈরাগ ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ সাদ্দাম হোসেন। এছাড়াও একই মামলায় আসামী হয়েছে মোঃ কামাল নামে সাবেক আরেক ইউপি সদস্যসহ মোট তিনজন । পিবিআই তদন্ত সূত্র জানা যায়, আনোয়ারা উপজেলার ১নং বৈরাগ ইউনিয়নের বাসিন্দা আব্দুল হাকিম তার সরকার কর্তৃক ভূমি অধিগ্রহণের এল /এ শাখার টাকা উত্তোলনের জন্যে তার চাচাত ভাই জামালের ধারস্ত হয়। পরে ২/৫/২০১৯ ইং তাং জামালকে পাওয়ার অব অ্যার্টানি দেয় আব্দুল হাকিম। আর এই সুযোগে ১নং ওয়ার্ডের বর্তমান মেম্বার সাদ্দাম হোসেন ও জামালের ভাই সাবেক মেম্বার কামালসহ এই তিন জনের যোগসাজশে আব্দুল হাকিমের বাড়ি ও নাল জমি জামালের নামে দলিল করে নেয় । পরে তাদের আচারণ সন্দেহজনক হলে স্থানীয় চেয়ারম্যান কে নালিশ করে আব্দুল হাকিম। ডাকা হয় শালিসি বৈঠক। সালিশে বৈঠকে কামাল জানায় তার ভাই জামাল আব্দুল হাকিমের জমি ক্রয় করে নিয়েছে। বিষয়টি ভুয়া বুঝতে পেরে চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিমকে আদালতে মামলা করতে বলেন। পরে আব্দুল হাকিম আদালতে মামলা করলে বিজ্ঞ আদালত মামলাটি অধিক তদন্তের জন্য ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই)’র কাছে হস্তান্তর করে।পিবিআই মামলাটি ৪ মাস তদন্ত করে জামাল ও তার ভাই সাবেক মেম্বার কামালসহ ও বর্তমান মেম্বার সাদ্দাম হোসেন কে আসামী করে পিবিআই মামলাটির তদন্ত আদালতে দাখিল করে। সোমবার (১৮ জানুয়ারি) চট্টগ্রাম সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ১’র আদালতে জামিন চাইতে গেলে বিজ্ঞ বিচারক জামিন না মন্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করে বর্তমান ইউপি সদস্য সাদ্দাম হোসেন কে। এবিষয়ে জানতে চাইলে পিবিআই ( তদন্ত) অফিসার আবু হানিফ বলেন, বিষয়টি প্রাপ্ত তথ্যের আলোকে তদন্ত করে আমি আদালতে প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। এই মামলায় একজন আসামীও আটক হয়েছে।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply