বাংলাদেশ, শনিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ প্রসঙ্গে

কে এই মাদক ,ভূমিদস্যু ও অস্ত্র কারবারী বার্মাইয়া কামাল? শীর্ষক সংবাদের একটি প্রতিবাদ রেজিষ্ট্রি ডাকযোগে বার্মাইয়া কামালের পক্ষে এডভোকেট বিপ্লব কান্তি মহাজন Banglapostbd.com সম্পাদক ও প্রকাশক বরাবরে পাঠানো হয়।যা হুবহু সম্প্রচার করা হয়।

জনাব, আপনার বহুল প্রচারিত অনলাইন নিউজ “Banglapostbd.com” পত্রিকায় গত ০১ ডিসেম্বর ২০২০ ইং অপরাহ্নে ৩.০৩ সময় হইতে

প্রকাশিত “কে এই মাদক ,ভূমিদস্যু ও অস্ত্র কারবারী বার্মাইয়া  কামাল?” শীর্ষক সংবাদ আমার মক্কেলের গোচরীভূত হইয়াছে।   প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্ণ মিথ্যা , বাস্তবতা বিবর্জিত ,কাল্পনিক ও  মনগড়া সংবাদ হয়।আমার মক্কেল প্রতিবাদকারী কক্সবাজার জেলার জন্মগ্রহণকারী বাংলাদেশের নাগরিক হন। তাহার নামে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক গত ৩১/০১/২০১৭ইং তারিখে জাতিয় পরিচয় পত্র ইস্যু করা হইয়াছে। তাহার জাতীয় পরিচয় পত্র নং- ৬৮৬  ০০৮  ৯৬০৩   বিদায় তাহাকে বার্মাইয়া কামাল নামে রোহিঙ্গা নাগরিক বলাটা সম্পুর্ণ ন্যায় বিচার ও সাংবাদিকতার মানদণ্ডেরর্ পরিপহ্নি।

উপরন্তু উক্ত মোঃ কামাল দীর্ঘদিন হইতে বায়েজীদ বোস্তামী থানাধীন মুক্তিযোদ্ধা পাহাড়ে জনৈক জামাল আহমদের কেয়ার টেকার হিসেবে দায়িত্ব পালনকালীন উক্ত জামাল আহমদ সওদাগরে প্রতিপক্ষ কর্তৃক বিভিন্নভাবে হামলা, মামলা, নাজেহাল ও কষ্ট সহ্য করিয়া দীর্ঘদিন যাবত অত্যন্ত সুনামের সহিত দায়িত্ব পারন করেন। উক্ত জামাল আহমদ সওদাগরের কেয়ারটেকার হিসেবে দায়িত্বকালীন সময়ে জামাল আহমদ সওদাগরের জায়গা তাহার প্রতিপক্ষ জোর পূর্বক দখল করিতে না পারিয়া ১০/১০/২০১৬ইং তারিখে বায়েজিদ বোস্তামী  থানায় তাহার বিরুদ্ধে অবৈধ মাদকের মামলা (মামলা নং- ১৭, তাং- ১০/১০/২০১৬ইং রুজু হইলেও উক্ত মামলায় আসামী কামাল এর  নিকট হইতে কোন মাদক দ্রব্য উদ্ধার হয় নাই। (উক্ত মামলার এজাহার কলামে মোঃ কামালকে “জামাল সাহেবের ইনচার্জ ” হিসেবে উল্লেখ আছে)।

পরবর্তীতে ২৫/১০/২০১৬ইং তারিখে উক্ত জামাল আহমদ সওদাগরের প্রতিপক্ষ কর্তৃক আক্রোষের জের হিসেবে মোঃ কামালের  বিরুদ্ধে বায়েজীদ বোস্তামী থানার মামলা নং-   ৪২,  তাং-  ২৬/১০/২০১৬ইং রুজু হইলে উক্ত মামলায় আসামী কামালের নিকট  হইতে একটি দেশীয় তৈরি (রান্নার কাজে ব্যবহত হয় এমন ) একটি ছোরা উদ্ধারকে কৌশলে “দেশীয় তৈরি অস্ত্র” হিসেবে দেখাইয়া উক্ত মামলা রুজু করিয়াছে। উপরোক্ত মামলাদ্বয় বর্তমানে বিচারাধীন।পরবর্তীতে মোঃ কামালের সহিত জনৈক মোঃ ইউসুফ প্রকাশ ইউনুচ  এর মধ্যে ভুল বুঝাবুঝির কারণে বায়েজীদ বোস্তামী থানার মামলা নং-২৯(৯) ২০২০ ও বায়েজীদ বোস্তামী থানার মামলা নং-২৯(৯) ২০২০  মামলা রুজু হইলে উক্ত মামলাদ্বয় আপোষে নিষ্পত্তির জন্য আপোষনামা সম্পাদিত হয়। উল্লে­খ যে বায়েজীদ বোস্তামী থানার  মামলা নং-২৯(৯) ২০২০ এর আসামী হিসেবে মোঃ কামাল এর নাম  নেই। সুতরাং কোন মামলা বিচারাধীন থাকাবস্তায় কাউকে অপরাধী  সাব্যস্ত করে প্রতিবেদন প্রকাশ করা তাহা ন্যায় বিচার ও  সাংবাদিকতার মানদণ্ডের পরিপন্হি। কারণ আইনের সুপ্রতিষ্টিত নীতি  হইল যে , আদালত কর্তৃক সুনির্দিষ্টভাবে দোষী সাব্যস্ত না হওয়া  পর্যন্ত কাউকে অপরাধী হিসেবে গণ্য করা যাবে না । উক্ত জামাল  আহমদ সওদাগর দীর্ঘদিন আমার মক্কেল মোঃ কামাল কে নিয়মিত বেতন পরিশোধ না করিয়া ও বিভিন্ন রকম হয়রানি করার কারণে উক্ত জামাল আহমদ সওদাগরের চাকুরি ছাড়িয়া দিয়া বর্তমানে পার্শ্ববর্তী  জায়গার মালিক প্রকৌশলী (ME-63,Buet ) শিল্পপতি ও রোটারিয়ান (PDG) আবদুল আহাদ সাহেব এর সিকিউরিটি ইনচার্জ হিসেবে  যোগ্যদান করার পর হইতে স্হানীয় জনৈক শাহসুফি নেজাম প্রকাশ নেজাম মামা নামীয় ব্যাক্তি আমার মক্কেল মোঃ কামার এর ১৬ (ষোল)  বৎসর বয়সী কন্যা কামরুন নাহার তন্নীকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর  পূর্বক ধর্ষন করিলে আমার মক্কেল মোঃ কামাল এর স্ত্রী হোসেন আরা বেগম বাদী হইয়া শাহসুফি নেজাম প্রকাশ নেজাম মামা এর বিরুদ্ধে  গত ১৮/০২/২০১৯ইং তারিখে স্হানীয় বায়েজীদ বোস্তামী থানার  অভিযোগ দায়ের  করিলে তাহা বায়েজীদ বোস্তামী থানার মামলা নং-  ৩১, তাং- ১৮/০৮/২০১৯ ধারা- নারী ও শিশু নির্যাতন আইন-  ২০০০  (সংশোধীত-২০০৩) এর ৯ (১) ধারা মতে মামলা রুজুর প্রেক্ষিতে উক্ত  শাহসুফি নেজাম প্রকাশ নেজাম মামা গত ১৯/০৮/২০১৯ইং তারিখে  গ্রেপ্তার হইয়া জেল হাজতে থাকাবস্হায় তাহার দুই স্ত্রী পারভীন আক্তার  ও  উম্মে হাবীবা কে বাদী করিয়া আমার মক্কেল মোঃ কামার সহ অন্যান্যদের বিরুদ্ধে সি.আর.মামলা নং-৩৫৪/২০১৯  (বায়েজীদ বোস্তামী)ও সি. আর. আপনার প্রকাশিত সংবাদে আমার মক্কেল কামালের বিরুদ্ধে বায়েজীদ থানার রুজু কৃত ৫টি মামলার কথা উলে­খ থাকিলেও উপরোক্ত বর্ণণা ২টি মামলা ছাড়া বাকী মামলাগুলোর রুজুর বিষয় সত্য নয় এবং আমার মক্কেল মোঃ কামাল এর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের মধ্যে পারভীন আক্তার কর্তৃক আনীত সি. আর.-  ৩৫৪/২০১৯ ( বায়েজীদ বোস্তামী) মামলা গত ১০/১০/২০২০ইং তারিখে মহানগর গোয়েন্দা বিভাগ সি. এম. পি চট্টগ্রাম কর্তৃক তদন্ত  প্রতিবেদনে উক্ত অপরাধে প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া নাই মর্মে প্রতিবেদন পেশ করিলে বিজ্ঞ আদালত উক্ত ফৌঃ অভিযোগ খারিজ  করেন এবং উম্মে হাবিবা কর্তৃক আনীত গত ২২/০৯/২০২০ ইং তারিখে সি. আর ৩৬৩/২০২০ (বায়েজীদ বোস্তামী) মামলাটি গত  ১৫/১০/২০২০ ইং তারিখে মহানগর গোয়েন্দা (উত্তর) বিভাগ সি.এম.পি, চট্টগ্রাম কর্তৃক আসামীগণের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রাথমিক ভাবে সত্য বলিয়া প্রমানিত না হওয়ায় আমার মক্কেল মোঃ কামাল সহ অন্যান্যদেরকে অব্যাহতি দানের প্রার্থনা করিলে বিজ্ঞ  আদালত উক্ত মামলাটি খরিজ করেন। অন্যান্য অভিযোগ সমূহ স্হানীয় বায়েজীদ বোস্তামী থানার পক্ষগণের উপস্হিতিতে আপোষে নিষ্পত্তি  হয়ে যাওয়ায় আমার মক্কেল মোঃ কামাল এর বিরুদ্ধে উপরোক্ত বর্ণনার ২টি মামলা (বিচারাধীন) ছাড়া আর কোন মামলা , মোকদ্দমা নাই।

প্রকাশিত সংবাদে শিল্পপতি, রোটারিয়ান আবদুল আহাদ এর প্রতিষ্ঠানের দীর্ঘ ৩৬ বছরের একান্ত বিশ্বস্ত কর্মকর্তা (নির্বাহী  পরিচালক) জহরুল করিম ও র্দীঘদিনের বিশ্বস্ত স্টেইট অফিসার নুরুল আজম কে কামল এর সহযোগী হিসেবে বর্ণনা করা হইলেও প্রকৃতপক্ষে মোঃ কামাল একজন সাধারণ চাকুরীজীবি। (দারোয়ান) তাহার পক্ষে উচ্চশিক্ষিত কোন সহযোগী রাখা হাস্যকর বটে। আমার মক্কেল  মোঃ কামাল দীর্ঘদিন মোঃ জামাল সওদাগরের চাকুরি শেষে বর্তমানে শিল্পপতি, রোটারিয়ান আবদুল আহাদ এর সিকিউরিটি ইনচার্জ হিসেবে নিয়োগের পরবর্তীতে উক্ত জামাল আহমদ সওদাগর গং পরিকল্পিতভাবে শিল্পপতি, রোটারিয়ান আবদুল আহাদের সম্পত্তি  দখলের পায়ঁতারার অংশ হিসেবে আমার মক্কেল মোঃ কামাল গংকে প্রশাসনের মাধ্যামে কৌশলে সরাইয়া দিয়া শিল্পপতি , রোটারিয়ান  আবদুল আহাদ এর গত ২৩/৬/২০১১ইং তারিখে রেজিষ্ট্রিকৃত ২৫৫৫ নং কবলা মূলে প্রাপ্ত ৭১৬ শতক বা ১৮ সতের কানি আঠার গণ্ডা   সম্পত্তি (যাহার বি. এস. নামজারী খতিয়ান ১৭৯১/২৬৫০,যাহা Standrad Bank Ltd আগ্রাবাদ শাখা , চট্টগ্রাম এ ২৫৫৮/২০১  নং বন্ধকী দলিল মূলে বন্ধকী সম্পত্তি ) ভোগ দখলে খাকা জায়গাজোর পূর্বক দখলেরঅ পচেষ্টা হিসেবে আমার মক্কেল মোঃ কামাল এর  কন্যা কামরুন নাহার তন্নীর ধর্ষণ কারী শাহসুফি নেজাম প্রকাশ নেজাম মাম এর আক্রোষে পড়িয়া তাহার স্ত্রী গণ কর্তৃক দায়েরী   মিথ্যা ও সাজানো মামলার বিষয়ে মসগড়া, আজগবী ও কাল্পনিক বক্তব্যের আলোকে আপনার ভুল তথ্য দিয়া বিভ্রান্তিতে ফেলিয়া  আপনার বহুল প্রচারিত স্বানামধন্য অনলাইন পত্রিকাকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার অপপ্রয়াস চালাচ্ছেন বিধায় প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ খানা  আপনার বহুল প্রচারিত পত্রিকায়  প্রকাশ করিলে সংবাদ মাধ্যমের ভুমিকা কৃতজ্ঞ চিত্তে স্বরণ করিবে।

 

শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply