বাংলাদেশ, শুক্রবার, ৩০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আজ পবিত্র আখেরি চাহার শোম্বা

মুহাম্মদ রবিউল আলম রবিন
আজ বুধবার পবিত্র আখেরি চাহার শোম্বা । হিজরি সালের সফর মাসের শেষ বুধবার। আখেরী চাহার শোম্বা হলো ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের পালিত অত্যন্ত মর্যাদাপূর্ণ একটি স্মরণীয় দিবস বা দিন। আখেরী চাহার শোম্বা একটি আরবী ও ফার্সি শব্দ-যুগল; এর আরবী অংশ আখেরী, যার অর্থ “শেষ” এবং ফার্সি অংশ চাহার শোম্বা, যার অর্থ “বুধবার”।
পবিত্র আখেরি চাহার শোম্বা। এ দিনে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জ্বরমুক্ত হয়ে সর্বশেষ গোসল করেন। গোসল শেষে নাতিদ্বয় হযরত ইমাম হাসান (রা.), হযরত ইমাম হোসাইন (রা.) এবং মা ফাতেমা (রা.) কে ডেকে এনে তাদের সাথে সকালের নাস্তা করেন। হযরত বেলাল (রা.) এবং সুফফাবাসীগণ বিদ্যুতবেগে এ সুসংবাদ মদিনার ঘরে ঘরে ছড়িয়ে দেন। এ সুসংবাদে সাহাবায়ে কেরামগণের মধ্যে আনন্দের ঢেউ খেলে যায়। তারা বাঁধভাঙা স্রোতের ন্যায় দলে দলে এসে হুজুর (সা.)-কে একনজর দেখার জন্য উদগ্রীব হয়ে ওঠেন।
হুজুর (সা.)-এর রোগমুক্তিতে সাহাবায়ে কেরাম এতটাই খুশী হয়েছিলেন যে, হযরত আবুবকর সিদ্দিক (রা.) তৎকালীন সময়ে ৫ হাজার দিরহাম গরীবদের মধ্যে বিলি করেছিলেন। হযরত ওমর (রা.) দান করেন ৭ হাজার দিরহাম। হযরত ওসমান (রা.) দান করেছিলেন ১০ হাজার দিরহাম ও হযরত আলী (রা.) দান করেছিলেন ৩ হাজার দিরহাম। ধনী ব্যবসায়ী হযরত আবদুর রহমান (রা.), ইবনে আউফ (রা.) ১০০ উট আল্লাহর রাস্তায় বিলিয়ে দেন। রাসূল (সা.)-এর সামান্য আরামবোধের কারণে সাহাবীগণ কিভাবে জান-মাল উৎসর্গ করতেন এটাই তার সামান্য নমুনা।
কুরআনের এসব অতীত ঘটনা স্মরণ করে মানুষ হেদায়েতের আলো লাভ করে। আখেরি চাহার সোম্বার দিনে গোসল শেষে শোকর গোজার হিসেবে দু’রাকাত নফল নামাজ আদায় শেষে রোগ থেকে মুক্তির দোয়া ও দান-খয়রাত হচ্ছে বুজুর্গানে দ্বীনের আমল। আজ আখেরি চাহার সোম্বার দিবস স্মরণে মুসলীম বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও পালন করে আখেরি চাহার শোম্বা। এদিন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরকারি ছুটির দিন এবং অফিস-আদালতে ঐচ্ছিক ছুটির দিন।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com