বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ক্রসফায়ার’ আতঙ্ক ছিল টেকনাফের ঘরে ঘরে

টেকনাফে এখনো বিরাজ করছে ‘ওসি প্রদীপ’ আতঙ্ক। থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমারের আমলের প্রায় দুই বছর রাতে দূরে থাক দিনের বেলাতেও ঠিকমতো চলাফেরা করতে পারেননি হাজারও মানুষ।

মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়া না হওয়া কোনো বিষয় নয়, কখন কাকে কীভাবে তুলে নিয়ে গিয়ে টাকা আদায় কিংবা মাদক কারবারি তকমায় কথিত বন্দুকযুদ্ধের নামে ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয় সেই আতঙ্ক ছিল পুরো টেকনাফের ঘরে ঘরে—এমনটিই বলছেন সাধারণ মানুষ।

ওসি প্রদীপ ও তার সঙ্গীদের নির্যাতনের বিবরণ দিতে এখনো ভয় পাচ্ছেন অনেকে। ওসি প্রদীপ আইনের ফাঁক গলে যদি আবার টেকনাফে আসেন বা তার অর্ডারে নিপীড়ন চালানো টিম এখনো থানায় বিদ্যমান থাকায় যেকোনো সময় তাদের বন্দুকের টার্গেটে পরিণত হতে পারেন এমন আতঙ্ক ভর করে আছে তাদের ওপর।

প্রদীপ কুমার দাশ টেকনাফ থানার ওসি হয়ে আসার পর গত ২২ মাসে সেখানে ১৪৪টি ক্রসফায়ারের ঘটনা ঘটেছে বলে তথ্য এসেছে। এতে মারা গেছেন ২০৪ জন। ক্রসফায়ারে নিহত সবাইকে দেওয়া হয়েছে মাদক কারবারি অথবা অবৈধ অস্ত্র বহনকারীর তকমা। অথচ সাধারণ মানুষ বলছে, ক্রসফায়ারে নিহতদের বেশিরভাই ছিলেন নিরীহ মানুষ।

স্থানীয়রা বলছে, ‘রক্ত পিয়াসী’ বিতর্কিত ওসি প্রদীপ কারান্তরিণ ও সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার খবরে টেকনাফ জুড়ে হাজারো নির্যাতিত পরিবারে আনন্দের বন্যা বইছে। স্বস্তি ফিরেছে মানুষের মধ্যে। মেজর সিনহা হত্যা মামলায় ওসি প্রদীপ আসামি হয়ে কারাগারে যাওয়ায় শোকরানা নামাজ আদায় ও মিলাদ পড়িয়েছেন বলেও জানিয়েছেন অনেকে।  বিস্তারিত পড়তে ক্লীক করুন।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply