বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ৪ঠা আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

করোনাকালিন সময়েও স্বাস্থ্য বিধি না মেনে চলছে এনেক্স ওয়ার্ল্ড ওয়াইড লিমিটেড এর ডেস্ক ভিত্তিক ব্যবসা

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি

এনেক্স ওয়ার্ল্ড ওয়াইড লিমিটেড আগে এম এল এম ব্যবসার সিস্টেম থাকলেও এখন ই-কমার্স এর অনুমোদন নিয়ে ব্যবসা করে যাচ্ছেন চট্টগ্রামে।তাদের তথ্য অনুসারে ই-কমার্স ব্যবসা ঘরে বসেও করা যায়,  তবে প্রশ্ন দুর্যোগ কালিন সময়ে অফিসে সরকারি বিধি নিষেধ না মেনে লোক সমাগম হচ্ছে কেন? সরেজমিনে গেলে দেখা যায় প্রত্যেক ডেস্কে ৪-৫ জন মানুষ বসে তাদের ব্যবসার আলোচনায় ব্যস্ত থাকলেও দেখা যায়নি স্বাস্থ্য বিধির ছিটে-ফোটা নমুনাও।

৬ জুন সন্ধ্যা ৬ টা ২২ মিনিটে এনেক্স গ্রুপের ডাইরেক্টর রাজীব দাশ তার নিজের ফেসবুক ওয়ালে ৩ টি ছবি আপলোড করেন।যেখানে অধিক লোক সমাগম এবং সামাজিক দূরত্ব না মানার চিত্র ফুটে উঠেছে এবং তিনি নিজেও স্বীকার করেছেন ছবিগুলো ৬ জুন এর তোলা।তবে এই বিষয়ের সত্যতা যাচাই করতে তাদের কাজির দেউরিতে অবস্থিত ভি.আই.পি টাওয়ারের দু তলার এনেক্স ওয়ার্ল্ড ওয়াইড লিমিটেড এর অফিসে গেলে এই ব্যাপার সঠিক কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি এবং অফিস কর্তৃপক্ষ এবং চট্টগ্রাম অফিসের এডমিন রবিন মিত্র তা অস্বীকার করেন এবং বলেন ছবিগুলো আগের তোলা। তবে উল্লেখ যে, ছবি গুলো জুম করে দেখলে তাদের ডাইসে দাঁড়ানো সবার মুখে মাস্ক দেখা যায়। প্রথম গিয়ে এ বিষয়ে কোনো সত্যতা না পেলেও দ্বিতীয় দিন তার সত্যতা প্রমাণ পাওয়া যায়।

আজ ১০ জুন দুপুর বেলা করে তাদের অফিসে গেলে দেখা যায় তাদের ট্রেনিং হলে ১৫ জন ছেলে মেয়ে নিয়ে ট্রেনিং করান, কোম্পানির JRMO(জুনিয়র রিটেইলার মার্কেটিং অফিসার) প্রিয়াংকা পাল পরে আরো ট্রেনিং হলে আর লোক প্রবেশ করতে দেখা যায় এবং ডেস্কে তো মানুষ আছেই।এই বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন অফিস থেকে অনুমতি নিয়ে ট্রেনিং করাচ্ছেন এবং তিনি তার নিজের টিম মেম্বারদের ট্রেনিং করাচ্ছেন।তার সাথে আরো কথা বলতে গেলে বাঁধার সম্মুখীন হতে হয় অফিসে কর্মরত স্টাফদের কাছে। তবে এ বিষয়ে অফিস এডমিন রবিন মিত্রের সাথে কথা বললে তিনি বলেন এখানে কোনো ট্রেনিং সেশন হয়নি। যেখানে প্রিয়াংকা পাল স্বীকার করেছেন অফিসের অনুমতি নিয়ে ট্রেনিং করাচ্ছেন। এ বিষয়ে এনেক্স ওয়ার্ল্ড ওয়াইড লিমিটেড চট্টগ্রাম শাখার অফিস এক্সিকিউটিভ রাজিব মিত্রের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন আজ কে কোনো ট্রেনিং সেশন হয়েছে কিনা আমার মনে হয় না।  তিনি আরো বলেন, প্রিয়াংকা পালে ট্রেনিং করানোর এক্তিয়ার আছে কিনা তা দেখার বিষয় এবং তাকে অফিসে রেজিস্ট্রার্ড ট্রেইনার কিনা তা দেখার বিষয়। তবে তিনি বিভিন্ন যুক্তি দিয়ে সুন্দরভাবে ট্রেনিং এর ব্যাপারটি এড়িয়ে যেতে চান। তবে এ বিষয়ে রাজিব মিত্রের কাছ থেকে প্রশ্নের আশানুরূপ উত্তর না পাওয়ায় তাকে পূনরায় প্রশ্ন করলে তিনি বলেন তিনি প্রিয়াংকা পাল কে চিনেন না এবং এটা ডেফিনিটলি ট্রেনিং সেশন না।তিনি এটাকে ব্যবসায়ীক আলাপচারিতা হিসেবে ব্যাখ্যা দেন।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply