বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ৪ঠা আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

খাগড়াছড়িতে ইউপিডিএফ’র শীর্ষ সন্ত্রাসী আটক : অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার

 

খাগড়াছড়ি,প্রতিনিধি
পার্বত্য খাগড়াছড়ি জেলার মানিকছড়ি, গুইমারা ও রামগড় উপজেলার গ্রামগঞ্জ ও হাট-বাজারের ত্রাস হিসেবে পরিচিত, ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) এর রামগড় ইউনিটের সংগঠক একাধিক মামলার আসামি ভূবন ত্রিপুরা ওরফে অপুকে (৪৩) গ্রেফতার করেছে যৌথবাহিনী। সে খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার রাজেন্দ্র কার্বারী পাড়ার বাসিন্দা ক্ষীরেন্দ্র ত্রিপুরার ছেলে বলে জানা গেছে।

যৌথবাহিনীর হাতে আটকের পর তার দেয়া তথ্য মতে পৃথক একটি আস্তানা থেকে ১টি এলজি ও ৩ রাউন্ড গুলিসহ বেশকিছু চাঁদা আদায়ের রশিদ বই, প্রায় ৪০ হাজার নগদ টাকা, ছয়টি মোবাইল ফোন, ব্যাগ ও ব্যবহারের কাপড়, সংগঠনের ব্যানার, চার শতাধিক লিফলেট এবং গুরুত্বপূর্ণ দলিল দস্তাবেজ উদ্ধার করেছে যৌথবাহিনী।

এদিকে, ইউপিডিএফের প্রচার সম্পাদক নিরন চাকমা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সংগঠক, ভূবন ত্রিপুরা ওরফে অপুকে আটকের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে তার নিঃর্শত মুক্তির দাবী জানানো হয়েছে।

মানিকছড়ি থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘ ১ যুগেরও অধিককাল ধরে মানিকছড়ি, গুইমারা ও রামগড় উপজেলার বাটনাতলী ও পাতাছড়া ইউনিয়নের প্রায় ১৫/২০টি গ্রামের নির্জন জনপদে ইউপিডিএফ রামগড় ইউনিটের এই সংগঠক তার দলবল নিয়ে আধিপত্য বিস্তারের মাধ্যমে ত্রাস সৃষ্টি করে ব্যাপকভাবে চাঁদাবাজি করে আসছিল। ভূবন ত্রিপুরা ওরফে অপু ১৯৯৯ সালে ইউপিডিএফের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে সংগঠনের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করে আসছে।

সাম্প্রতিক সময়ে গ্রাম ও হাট-বাজারে লোকজনের ওপর ব্যাপক চাঁদাবাজিসহ ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালনার খবর নিশ্চিত হয়ে, মানিকছড়ির বাটনাতলী ক্যাম্পের সেনাবাহিনী এ সকল জনপদে টহল জোরদারের পাশাপাশি জানমালের নিরাপত্তা বৃদ্ধির পদক্ষেপ নেয়। গত বৃহস্পতিবার (৪ জুন) বিকেলে রামগড় উপজেলার নাভাঙ্গা নামক এলাকায় ইউপিডিএফ সন্ত্রাসীরা চাঁদাবাজির উদ্দেশ্যে সংগঠিত হচ্ছে মর্মে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাটনাতলী সেনা ক্যাম্পের একটি টহল দল অভিযান পরিচালনা করে ভূবন ত্রিপুরা ওরফে অপু আটক করতে সক্ষম হলেও তার অপরাপর সহযোগীরা গভীর জঙ্গলে পালিয়ে যায়।

এছাড়া, আটক ভূবন ত্রিপুরা অপুকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে শুক্রবার (৫ জুন) বিকেলে মানিকছড়ি উপজেলার জামতলা এলাকায় ইউপিডিএফ’র পৃথক একটি আস্তানায় অভিযান চালায় যৌথবাহিনী। এই আস্তানা থেকে উদ্ধারকৃত অস্ত্র, গুলি ম্যাগজিন ও সকল সরঞ্জামাদিসহ শুক্রবার তাকে মানিকছড়ি থানায় হস্তান্তর করা হয়। শনিবার সকালে তার বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে মানিকছড়ি থানায় অস্ত্র, সন্ত্রাস দমন ও চাঁদাবাজি আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। (মামলা নং ৩ তারিখ-৬ জুন-২০২০) মানিকছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ আমির হোসেন বিষয়টি স্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেছেন, আটক ইউপিডিএফ সংগঠক ভূবন ত্রিপুরা ওরফে অপু একাধিক মামলার আসামি।

এবিষয়ে, ইউপিডিএফের খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের সংগঠক অংগ্য মারমা জানান, ভূবন ত্রিপুরা ওরফে অপু সাংগঠনিক কাজে গেলে মানিকছড়ি উপজেলার বাটনাতলী ইউনিয়নের ন’ভাঙা নামক স্থান থেকে ৩টি মোটর সাইকেলযোগে গিয়ে একদল সাদা পোশাকধারী তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। পার্বত্য চট্টগ্রামে ইউপিডিএফের ওপর পরিকল্পিতভাবে রাজনৈতিক দমন-পীড়ন চালানো হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে নেতা-কর্মীদের প্রতিনিয়ত অন্যায়ভাবে ধরপাকড় করা হচ্ছে অভিযোগ করে, অবিলম্বে ভূবন ত্রিপুরাকে নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানিয়েছেন ইউপিডিএফ সংগঠক অংগ্য মারমা।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply