বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ২৬শে মে, ২০২০ ইং, ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ডাক্তারের অবহেলায় শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ

নজরুল ইসলাম চৌধুরী

চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে  এক মহিলার পরপর দুইবার এভয়েশন করার পর দায়িত্বে অবহেলার কারণে এক নবজাতক শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ করেছেন তার পরিবার। জানা যায়, আজ সকাল আনুমানিক ৬ ঘটিকার সময় বন্দর থানাধীন সীম্যান হোস্টেল এলাকার মালুম বাড়ির এমরান হোসেনের স্ত্রী সুমা আক্তার জনির মাতৃত্বজনিত ব্যাথা অনুভব হলে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তি হওয়ার পর বার বার প্রচন্ড ব্যাথার কথা কর্তব্যরত ডাক্তারকে বললে কোন ব্যবস্থাপত্র ও ইমার্জেন্সী কোন পরীক্ষা নিরীক্ষা ছাড়া উনার পেটে কিছু হয়নি বলে ডাক্তাররা জানায়। কিন্তু সীমাহীন ব্যাথা আরম্ভ হলে সুমা আক্তার জনি ব্যথা সহ্য করতে না পেরে চিৎকার করতে থাকলে এক পর্যায়ে নার্স এসে তাকে গালমন্দসহ খারাপ আচরণ করে এবং চিৎকার না করতে বলে এবং বলে যে তোর পেটে কিছু হয়নি। বেশি চিল্লা চিল্লি করলে হাসপাতাল থেকে বের করে দেবো। পরে এসে নার্সরা জোর করে তাকে অন্য রুমে নিয়ে দুই দুইবার এভয়েশনের করার চেষ্টা করে। কিন্তু প্রচুর রক্তক্ষরণসহ ব্যাথার ফলপ্রসু কোন কাজ না হওয়াতে নার্সরা তাকে সিটে রেখে চলে যায়। ব্যাথায় জ্ঞান হারা অবস্থায় বিকাল আনুমানিক ৫টায় জনি আক্তার সিটেই ডাক্তার/নার্সের সহযোগিতা ছাড়া একটি নবজাতক মৃত সন্তানের জন্ম দেয়। এতে তার পরিবার ক্ষিপ্ত হয়ে ডাক্তাররা আমার সন্তানকে মেরে ফেলেছে বলে হাসপাতালে চিৎকার করতে করতে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। পরে সুমা আক্তার জনির স্বামী এমরান হোসেন বাদী হয়ে ডাক্তার ও নার্সের অবহেলার কারণে স্ত্রীর মৃত্যু শয্যা ও সন্তানের মৃত্যুর বিষয়টি হাসপাতালের সাধারণ সম্পাদক বরাবর লিখিত অভিযোগ করে এবং বিষয়টি নিকটস্থ ডবলমুরিং থানায় অবহিত করেন।

এ ব্যাপারে হাসপাতালের পরিচালক নুরুল হকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন যদি ডাক্তার ও নার্সের কর্তব্যের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু শয্যা ও শিশুটির মৃত্যু হয় তার জন্য আমরা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কমিটি গঠনের মাধ্যমে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব।  প্  প্রসংগত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী চিকিৎসা সেবায় ডাক্তারদের আরো আন্তরিক ও সেবায় মনোযোগী হওয়ার নির্দেশ দিলেও কিছু কিছু ডাক্তারদের দায়িত্বে অবহেলার কারণে চিকিৎসক সমাজের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে ।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply