বাংলাদেশ, রবিবার, ২৯শে মার্চ, ২০২০ ইং, ১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কানেকটিকাটে অঞ্জলির মৃত্যুতে ম্যানচেস্টার প্রবাসীদের মহতি উদ্যোগ  

বাংলা প্রেস, নিউ ইয়র্ক

যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাট অঙ্গরাজ্যের ম্যানচেস্টার প্রবাসী অঞ্জলি কুলেন্তুনু মৃত্যুতে তার পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন ম্যানচেস্টার প্রবাসী বাংলাদেশিরা। কয়েকজন প্রবাসীর সহায়তায় তাৎক্ষনিকভাবে অর্থ সংগ্রহ করে অঞ্জলি কুলেন্তুনুর মরদেহ ধর্মীয় রীতি অনুযায়ীই সৎকার করা হয়। ম্যানচেস্টারের সংস্কৃতিসেবী রেখা রোজারিও ও শিল্পী কানন হাসানের বড়বোন অন্জলি গত শনিবার (২৩ ফ্রেব্রুয়ারি) হার্টফোর্ডের সেন্ট ফ্রান্সিস হাসপাতালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি মুত্যৃবরণ করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে দুরারোগ্য রোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি দুই মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন রেখে গেছেন। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা বাংলা প্রেস।
উল্লেখ্য, ম্যানচেস্টার প্রবাসী অঞ্জলি কুলেন্তুনুর সৎকারে আর্থিক সংকট দেখা দিলে স্থানীয় প্রবাসী বাংলাদেশিরা তার পরিবারের পাশে এগিয়ে আসেন। একদিনের ব্যবধানে তহবিল সংগ্রহে প্রায় সাত হাজার ডলার অর্থ সংগ্রহ করে অঞ্জলির সৎকার সম্পন্ন করেন। পরিবারের এ দুঃসময়ে সহমর্মিতা জানিয়ে তাদের পাশে আসায় স্থানীয় প্রবাসীদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন অন্জলির বড় মেয়ে রুপালি কুলেন্তুনু। যুক্তরাষ্ট্রে আসার পর থেকে রুপালি তার মা বাবাকে দেখাশোনা করেতেন।
অঞ্জলি কুলেন্তুনুর সৎকারে স্থানীয় বাংলাদেশি কমিউনিটির নেতৃবৃন্দরা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। এরা হলে হারুন আহমেদ, ব্যবসায়ী মাসুদুর রহমান অপু, মোল্লা বাহাউদ্দিন পিয়াল, জাহেদ চৌধুরী লিটন, মার্ক হাওলাদার রনি, ইম্মানুয়েল দত্ত সমির, মোবারক নওশাদ, আনোয়ার হোসেন হিমু, আরিফুল ইসলাম নিপুনসহ অনেকেই তহবিল সংগ্রহে অংশ নেন। প্রায় সাত হাজার ডলার অঞ্জলির পরিবারের হাতে তুলে দেন। তহবিল সংগ্রহে পৃষ্ঠপোষক ছিলেন মাসুদুর রহমান অপুসহ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কমিউনিটির ব্যক্তিবর্গ। বাংলাদেশি আমেরিকান অ্যাসোশিয়েশন অব কানেকটিকাট (বাক) ও বাংলাদেশ সোসাইটি অব কানেকটিকাট (বিএসসি)’র কর্মকর্তারা তহবিল সংগ্রহে অংশ নিলেও সাংগঠনিকভাবে এতে অংশ নেননি বাংলাদেশ খ্রিষ্টান অ্যাসোসিয়েশন অব কানেককটিকাট (বিসিএসি)। এ ঘটনাটি জানাজানি হলে অনেকেই মন্তব্য করে বলেন অঞ্জলি কুলেন্তুনু একজন খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের মানুষ অথচ তার সধর্মীয় সংগঠনটি আর্থিক সহযোগিতা না করায় বিষয়টি অত্যন্ত নিন্দনীয় ও দৃষ্টিকটু। বিসিএসি সবার আগেই এ মহতি কাজে এগিয়ে আসার প্রয়োজন ছিল বলে স্থানীয় প্রবাসীরা মনে করছেন।
এদিকে অঞ্জলি কুলেন্তুনুর শোক সন্তপ্ত পরিবারকে সমবেদনা জানাতেন নিহতের পরিবারের কাছে এসেছিলেন ম্যানচেস্টার সিটি মেয়র জো মোরান। অঞ্জলি কুলেন্তুনুর মৃত্যুতে ম্যানচেস্টার প্রবাসী বাংলাদেশিদের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। বিভিন্ন সংগঠনসহ ব্যক্তিগতভাবেও অনেকেই শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

 

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply