বাংলাদেশ, সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০২০, ২৯ আষাঢ়, ১৪২৭

ভাষার মাস বইয়ের মাস ফেব্রুয়ারি মাস

 

আজহার মাহমুদ

বাংলা ভাষা। আমার মায়ের ভাষা। আমার প্রাণের ভাষা। তাঁজা রক্ত দিয়ে কেনা আমাদের মুখের ভাষা। যে ভাষার অধিকার আদায় করতে গিয়ে সালাম, বরকত, রফিক, জাব্বার সহ নাম না-জানা কত ভাই প্রাণ দিয়েছিলো। তাই এ ভাষা আমার কাছে প্রাণের ভাষা। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি বুকের তাঁজা রক্ত দিয়ে যারা আমাদের বাংলা ভাষাকে করেছে মর্যাদাপূর্ণ তাদের জানাই সালাম।

রক্ত দিয়ে কেনা আমাদের এই ভাষা আজ আর্ন্তজাতিকভাবে স্বীকৃত। এরপরও আমরা কেন জানি এই ভাষার সম্মান আর মর্যাদা রাখতে পারছি না। ৫২ সালে বুকের রক্ত দিয়ে এ ভাষাকে যারা মহান করেছে আজ আমরা যেন তাদের সেই কর্মের সম্মান রাখতে পারছি না। আমরা এখন বাংলা ভাষাকে অপমান আর অপদস্ত করছি প্রতিনিয়ত। আমার দেশে কিছু কিছু অতিশিক্ষিত রয়েছে যারা বাংলার মাঝখানে ইংরেজি মিশিয়ে কথা বলতে পারে। কথায় কথায় কয়েকটা ইংরেজি বলে বাংলাকে যেমন ছোট করা হয়, তেমনি যারা বলে তারা নিজেকে বড় মনে করে। আমরা ফেসবুকে এখন বাংলায় লিখি না। লিখি ইংরেজিতে বাংলা। ঘুরেফিরে আমাদের অক্ষর থাকে ইংরেজি। আমরা আ, ই, ক, খ এখন ভুলে গিয়েছি।  ধ ন প ফ আমাদের কাছে এখন পরিচিত শব্দ। এখনও অনেক লোক রয়েছে যারা বাংলা ভাষায় কয়টি অক্ষর রয়েছে সেটিও জানে না। জানলেও বলতে পারে না। বাংলা বানান সম্পর্কে আমাদের ধরণা না থাকলেও ইংরেজি গ্রামার সম্পর্কে আমাদের ধারণা প্রচুর। এটাই হচ্ছে আমাদের বাঙ্গালিত্ব।

আজ মনে হড়ে যাচ্ছে ভবানীপ্রসাদ মজুমদারের সেই কবিতাটি। যেখানে তিনি বলেছেন, ছেলে আমার খুব ‘সিরিয়াস’ কথায়-কথায় হাসে না / জানেন দাদা, আমার ছেলের, বাংলাটা ঠিক আসেনা। / ইংলিশে ও ‘রাইমস’ বলে ‘ডিবেট’ করে, পড়াও চলে / আমার ছেলে খুব ‘পজেটিভ’ অলীক স্বপ্নে ভাসে না / জানেন দাদা, আমার ছেলের, বাংলাটা ঠিক আসে না।

আসলে এমনই হয়ে পড়েছে আমাদের ভাষা। যেখানে আমরা নিজেরাই এখন অন্যভাষাকে প্রাধান্য দিচ্ছি। ভাবতে খুব কষ্ট হচ্ছে, এই আমাদের জন্যই কি ৫২’র ভাষা আন্দোলন হয়েছিলো! বড় অদ্ভুত আমরা বাঙ্গালী জাতি। আজ আমরা আমাদের ভাষা ভুলে যেতে বসেছি। একটু অতি শিক্ষত হলে ইংরেজি আর শিক্ষিত না হলে আঞ্চলিক ভাষা। শুদ্ধ বাংলা আমরা খুব বেশি মানুষ বলিও না।

শুধু তা-ই নয়, আমরা এখন আমাদের সংস্কৃতিটাও পরিবর্তন করে ফেলেছি। বাংলা ভাষার সংস্কৃতি, বাংলা সিনেমা, বাংলা নাটক, বাংলা গান, বাংলা গল্প, বাংলা কবিতা, বাংলা উপন্যাস এমনকি বাংলা প্রবন্ধও আমাদের কাছে এখন বিরক্ত লাগে। আমরা ইংরেজি উপন্যাস আর তামিল সিনেমা দেখি। আর বেশি আধুনিক হলে হলে হলিউড ছাড়া কিছুই দেখি না। আর রবিন্দ্রনাথ, নজরুলের চাইতে আমাদের কাছে শেক্সপীয়রের বই বেশি গ্রহণযোগ্য। এমনটাই এখন বাংলার চিত্র। আসলে এটা আমার আপনার একার কারণে নয়্ এটা আমাদের গোটা সমাজ ব্যবস্থার কারণে। আমরা অন্য সংস্কৃতি আমার দেশে প্রবেশ করতে দিয়েছি। অথচ আমার দেশের সংস্কৃতি অন্য কোথাও প্রবেশ করাতে পারি না। আমরা আমাদের টিভি চ্যানেল গুলো আমাদের দেশের চ্যানেল হাতে গুনে যা পাবো তার দিগুণ পাব বিদেশি চ্যনেল। যার কারণে ছোট ছোট ছেলেরা এখন বিদেশি চ্যানেল এবং ওই ভাষাতেই আকৃষ্ট হয়ে পড়ছে। আমি আর কারো কথা বলবো না। আমার ঘরেই আমার ছোট ভাই প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে আলাদিন এবং মোটো-পাতলু নামক দুটি অনুষ্ঠান দেখে। দুটোই হিন্দি ভাষার। তাই এখন সে বাংলায় সে অনুষ্ঠান দেখালে দেখতে চায় না। তার রুচি এখন হিন্দিতে চলে গেছে। আমরা ছোটবেলা শুক্রুবার বসে থাকতাম বাংরা সিনেমা দেখার জন্য। খেলতে যেতাম না। অথচ এখন আমার ছোট ভাইদের বাংলা সিনেমাতো দূরের কথা বাংলা চ্যানেল দিতেও দেখা যায় না। এই যে বাংরার প্রতি অনিহা এবং অবহেলা। এর কারণ কি? এমন হতে থাকলে আগামী প্রজন্ম এই ভাষাকে নিয়ে গর্ব অহংকার করতে ভুলে যাবে।

এই মাস বইয়ের মাস। অমর একুশে বইমেলাসহ সারাদেশে এই মাসে বিভিন্নভাবে বইমেলা অনুষ্ঠিত হয়। হাজার বই এই মাসে পাবলিশ হয়। লেখকরা তাদের সেরা লেখাগুলো নিয়ে বই বের করে মেলায়। যা পাঠকরা কিনবে এবং পড়বে। তবে সেই পাঠকরাও এখন আর নেই। এখন পাঠকের সংখ্যা দিন দিন কমছে। বর্তমান সময়ে পাঠকের চাইতে বেশি আছে লেখক। যার কারণে লেখকরাই লেখকদের বই কিনছে। আর পরিচিত ছাড়া খুব বেশি অন্যকারও বই কেনা হয় না। বিশেষ করে নতুন লেখকদের বইতো লেখকের বন্ধু এবং পরিবারের লোকজন ছাড়া কেউ কিনেও না। হাতেগুনা নামকরা কয়েকজন লেখকের বই পাঠকরা কিনে। এছাড়া যার যত বেশি পরিচিত লোক রয়েছে তার ততবেশি বই বিক্রি হয়। এক্ষেত্রে বইয়ের মান যাচাই করতে হয় না। তবে এসবের চেয়ে বেশি জরুরি হচ্ছে ভাষা। আমরা আমাদের ভাষাকে সম্মান করলে, এসব আপনা-আপনি ঠিক হয়ে যবে। তাই আমাদের প্রয়োজন বাংলাকে প্রাধান্য দিয়ে সবকিছু করা। বাংলার সাথে যেন অন্যকোন ভাষা মিশ্রিত না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে বাংলা আমাদের গর্ব, বাংলা আমাদের অহংকার।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply