বাংলাদেশ, সোমবার, ১৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং, ৪ঠা ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চন্দনাইশের দিয়াকুলে উপসচিব সনজীদা তরুনদের কর্মমুখী শিক্ষা নিতে হবে

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সনজীদা শরমিন বলেছেন, নিজের ভাগ্যোন্নয়ন ও জাতির প্রগতির জন্য তরুন সমাজকে কর্মমূখী ও আত্মকর্মসংস্থানমূলক শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। নিজের ভাগ্য নিজেকেই গড়তে হবে। নিজেকে নিজে সহযোগিতা না করলে অন্য কেউ সহযোগিতা করবে না। অসহায় মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে বর্তমান সরকার অনেক প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে প্রথমবার ক্ষমতায় আসার পর গৃহহীন মানুষদের মাথা গোঁজার ঠাঁই করে দেয়ার জন্য দোহাজারী দিয়াকুল এলাকায় আশ্রয়ণ প্রকল্প নির্মাণ করে দিয়েছেন। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজের ভাগ্য পরিবর্তন করতে না পারলে অন্য কেউ আপনার ভাগ্য পরিবর্তন করে দেবেনা। যুব সমাজকে দক্ষ জনশক্তিতে রুপান্তরের জন্য কারিগরি শিক্ষার বিকল্প নেই। এমএ পাশ করলেই হবেনা, কারিগরি শিক্ষাও নিতে হবে। এতে আয়ের পথ উম্মুক্ত হবে। কারিগরি শিক্ষা নিলে তারা চাকরির পেছনে না ছুটে নিজেরাই অন্যকে চাকরি দেবে। বিদেশে গেলে দক্ষ কর্মী হিসেবে দ্বিগুন বেতন পাবে। প্রতিবেশীদের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে চলবেন। কারন, অসুস্থ হলে ডাক্তারের আগে প্রতিবেশী আসে। পরিবেশ রক্ষায় নির্বিচারে পাহাড় ও গাছকাটা প্রতিরোধে সকলকে সচেতন হতে হবে। ১৮ জানুয়ারি ২০২০ শনিবার চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার দোহাজারী পৌরসভার দিয়াকুলের আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন শেষে আশ্রয়কেন্দ্রবাসী, সাংবাদিক ও গন্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরিউক্ত কথাগুলো বলেন।
সহকারী কমিশনার(ভূমি) ও ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিবেদিতা চাকমার সভাপতিত্বে এবং সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ শাহ্ আলমের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (টিটিসি)’র অধ্যক্ষ প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম, চন্দনাইশ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কেশব চক্রবর্ত্তী, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম, পটিয়া উপজেলা সমবায় অফিসার হাবিব উল্লাহ, কানুনগো সুখহরন চাকমা, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা কৃষকলীগ যুগ্ম সম্পাদক নবাব আলী, সাবেক দোহাজারী ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ্ আল নোমান বেগ, দোহাজারী পৌরসভা যুবলীগের আহবায়ক মো. মনছুর আলী ফয়সাল, হাশিমপুর ইউনিয়ন যুবলীগ আহবায়ক সাইফুল ইসলাম, জাতীয় পার্টি নেতা এ কে এম বাদশা, সাংবাদিক এস এম নাসির উদ্দিন বাবলু, এস এম রহমান, সৈয়দ শিবলী ছাদেক কফিল, এম ফয়েজুর রহমান, এস এম রাশেদ হাসান, মোঃ কামরুল ইসলাম মোস্তফা, আবু তোরাব চৌধুরী, সৈকত দাশ ইমন, ফয়সাল চৌধুরী, সাবেক ইউ.পি সদস্য এস এম জামাল উদ্দীন, মোঃ ইয়াছিন, ইস্কান্দার মিয়া, রাজিয়া সুলতানা রাজু প্রমূখ।
তিনি এর আগে আশ্রায়ন প্রকল্পের পরিবেশ ও আবাসিক অবস্থা পরিদর্শন করেন। আশ্রয়ণ প্রকল্পবাসীদের সাথে তাদের জীবনযাত্রার মান, সমস্যা, করণীয় ইত্যাদি বিষয়ে মতবিনিময় করেন। তাদের উত্থাপিত দাবীগুলোর মধ্যে, পাহাড় ও ঘরের মাঝামাঝি ড্রেন নির্মাণ, আরসিসি সড়ক নির্মাণ, বিদ্যুৎ সহজলভ্য করণ, পানীয় জলের জন্য নলকূপ স্থাপন, স্যানিটেশন, মসজিদ, মন্দির, মাদরাসা, পুকুর খনন ইত্যাদির প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন। আশা করি, আশ্রায়ন প্রকল্পবাসীরা এর সুফল পাবেন। পাহাড়ের ঢালুতে বিপদজনক স্থানে কোন অবস্থাতেই বসবাস করা যাবে না।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply