বাংলাদেশ, রবিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর কাছে যুক্তরাষ্ট্র আ.লীগের এক দফা এক দাবি

বাংলা প্রেস, নিউ ইয়র্ক: জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারন অধিবেশনে যোগ দিতে আসা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দলীয় নেতাকর্মিদের এখন একটাই দাবি যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সম্মেলন। বর্তমান কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে দলের গঠনতন্ত্র বহির্ভুত কর্মকান্ডসহ নানা অভিযোগের প্রেক্ষিতে অধিকাংশ নেতাকর্মিরাই তার উপর অনাস্থা এনেছেন। গত ২০১৮ সালে নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রীর নাগরিক সংবর্ধনার অনুষ্ঠানে এর বহিঃপ্রকাশ ঘটেছিল। প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই সভাপতির বিরুদ্ধে শ্লোগান দিয়েছিল নেতাকর্মিরা। কিন্তু গত এক বছরে সভাপতি পরিবর্তন কিংবা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও সম্মেলন না হওয়ায় নেতাকর্মিদের মাঝে ক্ষোভ বেড়েছে আরো দ্বিগুন। দলীয় নেতাকর্মিদের দাবির মুখে এবং সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবারে নতুন কমিটি সংক্রান্ত একটি চূড়ান্ত ঘোষনা দেবেন বলে অনেকেই আশা করছেন।এ খবর দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রস্থ বার্তা সংস্থা বাংলা প্রেস।
যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের বর্তমান কমিটি থাকবে নাকি ভেঙ্গে দেওয়া হবে এ নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন। ২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের ৭২তম সাধারন অধিবেশনে যোগ দিতে এসে কয়েক মাসের মধ্যেই সম্মেলনের প্রস্তুতি নেওয়ার ঘোষনা দিয়েছিলেন। এ সম্মেলনকে ঘিরে নেতাকর্মিদের মধ্যে দৌঁড়ঝাপও শুরু হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রীর উক্ত ঘোষনাকে কেন্দ্র করে দুই আওয়ামীলীগ নেতার দু’রকম বক্তব্যের ফলে বিভ্রান্তির শিকার হয়েছেন সাধারন নেতাকর্মিরা।
২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারি ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ গণমাধ্যমকে জানান, প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রী আগামী তিন থেকে চার মাসের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন।বর্তমান কমিটি ভেঙ্গে দেবার কথা বলেন তিনি। আব্দুস সোবহান গোলাপের এ বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান। তিনি তার ফেসবুকে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ প্রেসিডেন্টের ডেস্ক থেকে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ কার্যকরী কমিটির সকল সদস্যের সদয় অবগতির জন্য জানান, ‘দলীয় সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশক্রমে আসন্ন ত্রিবার্ষিক সন্মেলনকে কেন্দ্র করে প্রস্ততি কমিটি গঠন কল্পে আগামী ৯ই অক্টোবর (২০১৭) সোমবার বিকেল ৩টায় কার্যকরী কমিটির এক সভা লং আইল্যান্ড সিটির হোটেল হোম-২ তে অনুষ্ঠিত হবে।
এ ঘোষনার মাত্র ৪ ঘন্টা পর তিনি আবার তার ফেসবুকে লেখেন-গত ২৭ শে সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের একটি পত্রিকায় আওয়ামীলীগের দফতর সম্পাদক ড.আব্দুস সোবহান গোলাপের উদ্ধৃতি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের কমিটি ভেংগে দেওয়া সংক্রান্ত যে খবর প্রকাশিত হয়েছে তা সন্পূর্ন অসত্য,বানোয়াট,উদ্দেশ্য প্রনোদিত। এ ব্যাপারে ব্যক্তিগত ভাবে দফতর সম্পাদক ড.আব্দুস সোবহান গোলাপের সঙ্গে আমার কথোপকথন হয়েছে এবং তিনি অত্যন্ত জোড়ালো ভাবেই জানান এ ব্যাপারে তার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। কাউন্সিল করার লক্ষ্যে প্রস্ততি কমিটি করতে বলেছি এর বাহিরে কারো সঙ্গে কোন কথা হয়নি। তথাকথিত অসত্য সংবাদ প্রকাশের তীব্র প্রতিবাদ এবং নিন্দা জানান তিনি। এ ধরনের তথ্য বা খবরে চরম বিভ্রান্তিতে পড়েছেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মিরা।
অভিযোগ রয়েছে ড. সিদ্দিকুর রহমান যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের অনেক নেতাকর্মিদের বহিস্কারের হুমকি দিয়েছেন। তার একক ও হঠকারী সিদ্ধান্তের ফলে সাবেক সাধারন সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদসহ নির্বাহী কমিটির ৮জন সদস্য হয়েছেন বলির পাঁঠা।যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ পরবর্তীতে ৭ জনের বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করলেও সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদকে আর দলে ফেরার সুযোগ দেননি তিনি।
আওয়ামীলীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ উপেক্ষা করে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সম্মেলন না করে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে সাম্প্রতি বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য কমিটি করার অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয় আওয়ামীলীগের জন্ম ইতিহাস নিয়েও তাচ্ছিল্য করেছেন এই দুই নেতা। এসব অভিযোগে সাম্প্র্তি নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে পালকি পার্টি সেন্টারে সিদ্দিকুর রহমানের বিরুদ্ধে এক সংবাদ সম্মেলন করেছেন ত্যাগী নেতাকর্মিরা। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ ও আওয়ামী পরিবারের লোকজন এ সম্মেলনের আয়োজন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের দেখভালের দায়িত্বে থাকা শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের নাম ভাঙিয়ে সিদ্দিকুর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ মেয়াদ্দোত্তীর্ণ এ সংগঠন নিয়ে একের পর এক অসাংগঠনিক কর্মকাণ্ড চালাচ্ছেন।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, পাঁচ বছর আগে দুর্বৃত্তের হামলায় নিহত হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নজমুল ইসলাম। হৃরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরেক সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সিরাজউদ্দিন আহমেদ। সাধারন সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমানকে বহিষ্কার করা হয়েছে সাংগঠনিক শৃংখলা বিরোধী অপরাধে। গুরুতরভাবে অসুস্থ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক কাজী মনিরুল হকও মারা গেছেন ছয় বছর আগে। এসব শূন্য পদ পূরণের অনুমতি দিয়েছেন আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা নিজেই কিন্তু সেই নির্দেশ বাস্তবায়িত করার নামে নিজের পছন্দের ৪৬ জনকে কো-অপ্ট করা হয়েছে। যদিও সাধারণ সম্পাদক পদটি এখনও অপূর্ণই রয়ে গেছে।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন সংগঠনের দফতর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী। সংবাদ সম্মেলনের প্রেক্ষাপট উপস্থাপন করেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের অন্যতম সদস্য ড. প্রদীপ রঞ্জন কর।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘দলে অনুপ্রবেশকারী ও সুবিধাবাদী সিদ্দিকুর রহমান ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন এ দলের সমস্ত নিয়ম-কানুন, গঠনতন্ত্র ও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশনা উপেক্ষা করে নিজের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য এবং দলের নেতা-কর্মীদের প্রলোভন দেখিয়ে যা ইচ্ছা তাই করে চলছেন। কোন নিয়ম-কানুন ব্যতিত দলের অনেককে পদের লোভ দেখিয়ে নিজের অপকর্ম ঢাকার চেষ্টা করছেন।’

আরো খবর

Leave a Reply

Close