বাংলাদেশ, শুক্রবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সাহায্যের জন্য আবেদন : অসহায় রবিউল ইসলামকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

 

চট্টগ্রাম জেলার সোনাই মুড়ী গ্রামের মরিয়ম বেগমের বড় ছেলে রবিউল ইসলাম। তার বয়স ১০ বছর, সে একজন মাদ্রাসার মেধাবী ছাত্র। বড় দুঃখের বিষয় তার বাবা নেই, মা একজন অসহায় পরিবারের মেয়ে। তার পিতা বিবাহের পর থেকে ৩ সন্তান রেখে চলে গেলে তাদের নিয়ে কোন রকমে বেঁচে থাকেন মরিয়ম। হঠাৎ মরিয়মের বড় ছেলে মাথায় একটি টিউমার দেখা দিলে তার আর্থিক অবস্থা ভাল না থাকায় নিকটস্থ হাসপাতালে ডাক্তারের চিকিৎসা নেন। এক পর্যায়ে দিন দিন বড় হয়ে গেলে তা অপারেশন করার পরামর্শ দেন। এক পর্যায়ে অসহায় মরিয়ম বেগম একিট পোশাক কারখানায় চাকুরী করে তার তিন সন্তান দুটো ডাল-ভাত দেয়। তাকে দেখার মত কেউ নেই। তাঁর কপালের দু:খ দিন দিন বেড়ে গেলে এর সাথে সাথে তার বড় ছেলে ১০ বছরের রবিউলে মাথার যন্ত্রণায় ছটপট করতে দেখে সে শেষ চেষ্টাটুকু করে যেতে চাই তার ছেলের জন্য। কিন্তু তার চিকিৎসা করতে নিতে হবে দেশের বাহিরে তার ব্রেইন টিউমার অস্ত্র পচারের পর বড় আঁকারে হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। আল্লাহর উপর ভরশা রেখে বলছি আপনাদের ছেলে-সন্তান মনে করে আমার এই মাদ্রাসা পড়ুয়া মেধাবী ছাত্র রবিউল ইসলামকে বাঁচান। অতিব জরুরী তাকে বাহিরে নিয়ে গেলে বাঁচতে পারে বলে বাংলাদেশের বিশেষজ্ঞ ডাক্তারগণ জানান। আপনাদের এ সাহায্যের মাধ্যমে আমার ছেলে রবিউল ইসলামকে দেশের বাহিরে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা করাতে পারবো বলে আশা রাখি। আমি অসহায়, আমার রবিউল হত দারিদ্র পরিবারের সন্তান। পরিবারের উপার্জনকারী একমাত্র আমি তার মা। আমি মরিয়ম বেগম (মা) তার ঠিক মত ঔষধের খরচ যোগাতে হিমশিম খেয়ে যায়। তাকে চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে পাঠাতে আমার প্রায় ৪-৫ লক্ষ টাকার প্রয়োজন। আপনাদের এই ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সাহায্যে ফিরে দিতে পারে আমার আদরের সন্তান রবিউল ইসলামের নতুন জীবন। দেশ-বিদেশী ভাই-বোন ও হৃদয়বান ব্যক্তিবর্গের কাছে আকুল আবেদন জানান একটি বারের জন্য হলেও আমাকে সাহায্যে হাত বাড়িয়ে দিয়ে আমার পুত্র রবিউলের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসুন।

যোগাযোগে : বিকাশ নাম্বার- ০১৭৫৯-৬৬৭২০৩ সাহায্য পাঠালে আমার সন্তানের নতুন জীবন ফিরে পাবে বলে আশা রাখি। আল্লাহ আপনাদের মঙ্গল করুক। নিবেদক : মরিয়ম বেগম (অসহায় মা)

আরো খবর

Leave a Reply

Close