বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, ২রা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঈদ ছুটিতে পারকি সৈকতে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড়

আরমান হোসেন

নান্দনিকতা ও সমুদ্রের মিতালী দেখতে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার পারকি সমুূ্দ্র সৈকতে ভিড় জমিয়েছে পর্যটকরা। ঈদ-উল-আযহার দীর্ঘ ছুটিতে ঘুরতে আসছে ভ্রমণ পিপাসুরা। গতকাল ১৫ আগস্ট বৃহস্পতিবার পারকি সমুদ্র সৈকতে অধিক পর্যটকদের আনাগোনা লক্ষ্য করা গেছে।বিকাল থেকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি ছিল চট্টগ্রামে। বৃষ্টি উপেক্ষা করেই পর্যটকদের ছিল উপচে পড়া ভিড়। চট্টগ্রাম শহর থেকে ভ্রমণে আসা আফিফ নামের এক পর্যটক অনলাইন ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম বাংলাপোস্টবিডিকে জানান, কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের বিকল্প হিসেবে পারকি সৈকতে আসা। এখানে এসে সবাই আনন্দ করে দিনটি অতিবাহিত করে খুব ভাল লাগলে।

চট্টগ্রামের আনোয়ারায় অবস্হিত পারকি সমুদ্র সৈকত দৃষ্টিনন্দন একটি সৈকত। সমুদ্রের ঢেউ,মনোরোম হাওয়া,রিসোর্ট ও ঝাউবনের সারি পারকি সমুদ্র সৈকতকে সৌন্দর্য্যেকে বৃদ্ধি করেছে। জানা যায়,১৯৯৩-৯৪ এবং পর্যায়ক্রমে ২০০২ সালে আনোয়ারার উপকূলকে রক্ষা করার জন্য পারকি ও আশেপাশের এলাকায় ৮০ হেক্টর জায়গার উপর কিছু ঝাউগাছ লাগানো হয়।গাছগুলো বড় হলে এটি স্হানীয়দের কাছে ঝাউবাগান নামে পরিচিতি লাভ করে। বর্তমানে দেশব্যাপী পরিচিতি লাভ করেছে এই সৈকত।সরকারের পর্যটন মন্ত্রণালয় পারকি সমুদ্র সৈকতকে আধুনিক বিচ ও পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে তিন বছর মেয়াদি প্রকল্প হাতে নিয়েছে বলা জানা গেছে।প্রকল্পটি ২০২০ সালের মধ্যে সম্পন্ন হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।এটি হলে পারকি সমুদ্র সৈকত আধুনিক পর্যটন হিসেবে গড়ে উঠবে বলে মনে করেন স্হানীয়রা।

আরো খবর

Leave a Reply