বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং, ৫ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধু কর্নার : নন্দিত উদ্ভাবন গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

অগ্রণী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু কর্নারকে নিয়ে ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার : নন্দিত উদ্ভাবন ‘গ্রন্থটির প্রকাশনা অনুষ্ঠান করা হয় বুধবার (৩১ জুলাই) বিকাল ৪ টায় বাংলা একাডেমির আব্দুল করিম সাহিত্য বিশারদ মিলনায়তনে। প্রকাশনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক- বিষয়ক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব মো.আসাদুল ইসলাম এবং একুশ পদক ভূষিত কবি ও উপন্যাসিক অসীম সাহা। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড এর সিইও মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম। আমন্ত্রিত অতিথিরা ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার : নন্দিত উদ্ভাবন’ শীর্ষক বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন । প্রকাশনা অনুষ্ঠানটি সভাপতিত্ব করেন অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত । অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বাচিকশিল্পী আহকাম উল্লাহ । অনুষ্ঠানের শুরুতে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড এর প্রধান কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপনের ধারণা এবং এর বাস্তবায়ন নিয়ে একটি ডকুমেন্টারি দেখানো হয় ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে এইচ টি ইমাম বলেন, বঙ্গবন্ধু কর্ণারের মতো উদ্ভাবনী সিদ্ধান্ত সারাদেশে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে ছড়িয়ে দেয়ার দরকার । তিনি বাংলাদের মুক্তিযুদ্ধকে একটি স্বার্থক জনযুদ্ধ হিসেবে উল্লেখ করে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এবং সংবিধানের মৌলিক ইতিহাস তুলে ধরেন। তিনি বলেন , শেখ মুজিবুর রহমানকে অনেকে জাতির জনক হিসেবে উল্লেখ করেন এবং এখানেও উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু শেখ মুজিব রহমান জাতির জনক নয়, বরং ‘জাতির পিতা’ জাতির জনকের মাঝে একটি বায়োলজিক্যাল টার্ম থাকে , যা ব্যবহার করা ঠিক নয়, আমাদের সংবিধান অনুযায়ীও তাই । তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু হচ্ছে বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা, এবং স্থপতি। বঙ্গবন্ধু কর্নারের প্রকাশনা শুধুমাত্র বঙ্গবন্ধুকে একটা শ্রদ্ধা জানানোর উপলক্ষ মাত্র। কবি অসীম সাহা তার বক্তব্যে বলেন, “বঙ্গবন্ধুর সমালোরচনাকারীরা শুধু আত্মঘাতীই নয়, বরং চরম ঘৃণ্য কূৎসা রটাচ্ছে ।” তিনি আরো বলেন, বর্তমান আমাদের দেশে বাংলাভাষাকে যর্থাথ মর্যাদা দেয়া হচ্ছে না, বর্তমানে যে বাংলা ব্যাকরণগুলো রয়েছে তা অসংখ্য ভুলে ভরা। তিনি বলেন, ক্ষণকালের জন্য ইতিহাসকে বিকৃত করা যায় কিন্তু দীর্ঘকালের জন্য তা কখনোই সম্ভব নয়। বঙ্গবন্ধুর ৭ ই মার্চ এর ভাষণকে যে বিকৃত করার চেষ্টা চালানো হয়েছিল তা কখনো সম্ভব নয়। তিনি আরো বলেন, শেখ হাসিনার মাধ্যমে দেশের প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন করা সম্ভব। যারা শেখ হাসিনার সমালোচনা করে, তাদের জানা উচিত শেখ হাসিনা যা বলেন তা বাস্তবায়ন করেন। পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংকসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান আমাদের ঋণ দেয়নি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোনো বিদেশি সাহায্য ছাড়াই তা বাস্তবায়ন করতেছেন। সভাপতির ভাষনে জায়েদ বখত বলেন, বঙ্গবন্ধুকে জানার আমাদের এখনো অনেক বাকি তাই বঙ্গবন্ধুকে জানতে এবং বঙ্গবন্ধু চর্চার জন্য এই বঙ্গবন্ধু কর্নার। উল্লেখ, অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও মোহাম্মদ শামস- উল ইসলাম জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে ২০১৬ সালে অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড এর প্রধান কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন করেন।বঙ্গবন্ধু কর্নার নামে এই গ্রন্থটিতে স্থান পেয়েছে বঙ্গবন্ধু কর্নার নিয়ে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ, কলাম, মন্তব্য, প্রশংসা, তথ্য, ইতিবৃত্ত ইত্যাদি বিষয়।

 

আরো খবর

Leave a Reply