বাংলাদেশ, বুধবার, ২৪শে জুলাই, ২০১৯ ইং, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ভেজাল এবং দূর্নীতি বিরোধী অভিযান সারা বাংলাদেশে ছড়িয়ে দেওয়া প্রয়োজন – সুজন

 

ভেজাল এবং দূর্নীতি বিরোধী অভিযান সারা বাংলাদেশে ছড়িয়ে দেওয়া প্রয়োজন বলে অভিমত প্রকাশ করেছেন জনদুর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই শীর্ষক নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। তিনি ৩ জুলাই বুধবার বিকাল ৪ টায় হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মাদ রুহুল আমিনকে সাহসিকতার সাথে ভেজাল এবং দূর্নীতি বিরোধী অভিযান পরিচালনার জন্য চট্টগ্রামবাসীর পক্ষ থেকে সম্মাননা প্রদান করেন।

এ সময়  সুজন বলেন, ভেজাল এবং নকল পণ্যে সয়লাব হয়ে গিয়েছে বাংলাদেশ। শিশু খাদ্য থেকে শুরু করে জীবন রক্ষাকারী ওষুধেও ভেজালে ভরপুর। ধনী থেকে গরীর কেউই ভেজালের ভয়াবহতা থেকে মুক্ত নয়। এ যেন ভেজালের রাজ্যে বসবাস। প্রতিটি মানুষের সুস্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজন বিশুদ্ধ খাদ্য। একটি সমৃদ্ধশালী জাতি গঠনে বিশুদ্ধ খাদ্য একান্ত অপরিহার্য। কিন্তু সেই বিশুদ্ধ খাদ্য প্রাপ্তিতে বাঁধা হয়ে দাড়িয়েছে কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী। তাদের ভেজাল খাদ্য উৎপাদন এবং বিপণনের ফলে সারা বাংলাদেশ আজ ভেজালে আক্রান্ত। এসব ভেজাল খাদ্য গ্রহণ করে জনসাধারণ লিভার, কিডনী, ফুসফুসসহ দীর্ঘমেয়াদী অসুখে পতিত হচ্ছে। প্রশাসন ধারাবাহিকভাবে ভেজাল বিরোধী অভিযান পরিচালনা করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও ভেজাল খাদ্য উৎপাদন এবং বিপণনকারীর বিরুদ্ধে তার দৃঢ় মনোভাব পোষন করেছে। ভেজাল খাদ্য উৎপাদকারী এবং বিপণনকারী উভয়েই দেশ ও জাতির শত্রু। এদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থার পাশাপাশি সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলা একান্ত প্রয়োজন। তিনি ভেজাল খাদ্য উৎপাদনকারী এবং বিপণনকারীর সামাজিক পরিচয় গণমাধ্যমে তুলে ধরার আহবান জানান। ভেজাল খাদ্য উৎপাদকারী এবং বিপণনকারীকে মাদক কারবারীর অনুরূপ শাস্তি প্রদানের জন্যও প্রশাসনের নিকট অনুরোধ জানান তিনি। সাহসিকতার সাথে ভেজাল বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে ইতিমধ্যে জনসাধারনের আস্থা অর্জন করেছেন হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মাদ রুহুল আমিন। আমরা চট্টগ্রামবাসীর পক্ষ থেকে আপনাকে সম্মাননা জানাতে এসেছি। সারা বাংলাদেশে আপনার মতো আরো অনেক সাহসী কর্মকর্তা আছে। তারা সবাই যদি নিজ নিজ দায়িত্ব থেকে ভেজাল এবং দূর্নীতির বিরুদ্ধে এগিয়ে আসেন তাহলে দেশ অচিরেই ভেজাল ও দূর্নীতি মুক্ত হবে। সুজন ঘুষ বন্ধে ঘুষ বোর্ড স্থাপনের মতো ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কে অভিনন্দন জানান। এতে করে কর্মকতা-কর্মচারীরা ঘুষ গ্রহণে নিরুৎসাহিত হবেন। তিনি এ ধরনের উদ্যোগ সকল সরকারী অফিসে গ্রহণ করারও আহবান জানান।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হাজী মোঃ ইলিয়াছ, ইকবাল বাহার, আব্দুর রহমান মিয়া, মোঃ নিজাম উদ্দিন, সংগঠনের সদস্য সচিব হাজী মোঃ হোসেন, সাইদুর রহমান চৌধুরী, মোরশেদ আলম, মোঃ শাহজাহান, সমীর মহাজন লিটন, স্বরূপ দত্ত রাজু, জসীম উদ্দিন তালুকদার, মীর মোহাম্মদ সাইফুর রহমান প্রমূখ।

আরো খবর

Leave a Reply