বাংলাদেশ, শুক্রবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চরফ্যাসনে সংখ্যালঘু পরিবারের বাড়ি-ঘর ভেঙ্গে পাশের পুকুরে ফেলে দিয়েছে যুবদলের নেতারা

ভোলা চরফ্যাসন উপজেলার আহম্মদপুর ইউনিয়নের ফরিদাবাদ গ্রামের চকিদার খাল বাজার এলাকায় একটি সংখ্যালঘু পরিবারের বাড়ি-ঘর ভেঙ্গে পাশের পুকুরে ফেলে দিয়েছে একটি প্রভাবশালী মহল। এখন সেখানে শুধু ভিটে পড়ে রয়েছে। রয়েছে ভাঙ্গা-চুরা ঘরের মালামাল। পরিবারটি এখন খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। তবে এঘটনায় এলাকাবাসী দোষী ব্যক্তিদের শাস্তি দাবী করেছেন। পুলিশ অভিযুক্ত কাউকে গ্রেফতার করেনি। তবে এঘটনার সাথে আহম্মদপুর ৮ নং ওয়ার্ডের যুবদল সভাপতি আইয়ুব আলী ও হাসন আলী গংরা জড়িত থাকার কথা বলছেন এলাকাবাসী। চরফ্যাসন উপজেলার আহম্মদপুর ইউনিয়নের ফরিদাবাদ গ্রামের চকিদার খাল বাজার এলাকায় সরকারি জমিতে প্রায় ৫০ বছর ধরে বাড়ি ঘর বানিয়ে বসবাস করে আসছেন কাঠ মেস্ত্রী সুবল। জীবনের বেশীর ভাগ সময় কাটিয়েছেন এই সরকারী খাস জমিতে ঘরে। মেস্ত্রী কাজের টাকা জমিয়ে ৫০ বছর পূর্বে মাটি ভরাট করেছেন। দুই ছেলে, দুই মেয়ে আর স্বামী স্ত্রী মিলে আস্তে আস্তে বাড়িটিকে সাজানো শুরু করেছিলেন। কিন্তু, এভাবে তাদের স্বপ্ন ভেঙ্গে ফেলবে প্রভাবশালী মহল তা ওই পরিবারটি কখনো ভাবেননি। গত ১৪ এপ্রিল রবিবার বিকাল ৪টার দিকে যুবদল সভাপতি আইয়ুব আলী এবং হাসান আলীর নেতৃত্বে রবিউল, সবুজ, সোহাগ, শাকিল, কালু, কালাম, ইবু ও সেকান্তরসহ বেশ কয়েকজন যুবক দেশীয়-অস্ত্র নিয়ে সুবর মেস্ত্রী বাড়িতে হামলায় চালায় এবং বাড়ি- ঘর ভাংচুর করে। হামলায় তুলসী রানী (৪০), সান্তনা (১২), শিল্পি (২০), সিদাম (১৪) ও রাজীব (১৮) আহত হয়। গুরুতর আহত তুলসী রানী চরফ্যাসন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বর্তমানে আতংকের মধ্যে পরিবার পরিজন নিয়ে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে পরিবারটি। চরফ্যাসন থানার এ এস আই নজরুল ইসলাম বলেছেন, এ ঘটনায় ৯ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি অভিযোগ পত্র দাখিল করেছেন ঘটনার শিকার তুলসী রানী। আমি ইতোমধ্যে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি।

আরো খবর

Leave a Reply

Close