বাংলাদেশ, রবিবার, ১৬ই জুন, ২০১৯ ইং, ২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

আনন্দময় ঈদ উৎসব

আবছার উদ্দিন অলি

ঈদ মোবারক। মাহে রমজান। রাসুল (সা:) এর প্রবর্তিত পবিত্র ইসলাম এই রমজান মাসে জগতের সকল আস্তিক মানুষের জন্য এনে দিল অফুরনীয় আনন্দ, সিয়াম সাধনার প্রার্থীত পথের সন্ধান। যুগ সমস্যার প্রচন্ড ব্যতি ব্যস্ততার মাঝে একটি স্বর্গীয় আনন্দপূর্ণ সময় এই রমজান। সমাজ, রাষ্ট্র, পরিবারে ভালবাসার নিবিড় বন্ধন অটুট করতে রমজানের গুরুত্ব অপরিসীম। নিজ নিজ কাজে ব্যস্ত থেকে মানুষ এই মাসেই স্রষ্টার সান্নিধ্য লাভ করতে আকুল হয়ে উঠে। সেই ঈদ আনন্দকে আরো বেশী আবেগ ও ভালবাসায় পরিপূর্ণ, দীর্ঘস্থায়ী করে তুলতে আমাদের ঈদের বিশেষ আনন্দ আয়োজনকে নতুনভাবে সাজানো হয়েছে। সবার সাথে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন বজায় রেখে ঈদের প্রতিটি মুহুর্তকে আরো বেশী প্রাণবন্ত করে তুলতে। শত শত বছরের বাঙালি ঐতিহ্যের ঈদ মহাসমারোহে বাদল দিনের বেহেস্তীর বাড়িধারা নিয়ে আমাদের হৃদয়ে নতুন আকিঞ্চন জাগাবে। পুরনো দিনের গ্লানি আর অসুন্দরকে দুরে ঠেলে নতুন উজ্জীবিত দিনের প্রত্যাশায় আমরা ব্যাকুল। কারণ “রমজানেরই রোজার শেষে এলো খুশীর ঈদ…” নজরুলের হৃদয় ছোঁয়া গীতের মাঝে সাহিত্য শিল্প নির্ঝাস অনেক বেশী আবেগ ঘন হয়ে উঠে। বাঙালির ঈদ আনন্দ হতে কিছু বিষয় তুলে এনে পরিবেশন করার মানসে আপনাদের পূর্ণ আস্থা ও সহযোগিতা আমাদের পাথেয় হোক। সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা।

ঈদ নিয়ে আসে মানুষে মানুষে প্রীতি মিলন, ঈদের শুভবানী, শুভ সম্ভাষণ, আজকের এই দিনে ভরে উঠুক উৎসবে, আনন্দে সবার মন। ধনী দরিদ্র রাজা প্রজা নেই কোন ভেদাভেদ হিংসা বিদ্বেষ ভুলে গিয়ে নতুন আশা বুকে নিয়ে গড়ে তুলি সুখের জীবন। মহামিলনের এই দিনে সুখ চায় প্রতিজন। নতুন করে বেঁচে থাকা নতুন স্বপ্ন ভালবাসা আমাদের এই আয়োজন।

মুসলমানদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর। প্রতি তিনশত পঁয়ষট্টি দিনে বছর গণনার মধ্যে ত্রিশ দিন সিয়াম সাধনা বা রোজা পালন, বিশ্ব মুসলিমের জন্য স্বয়ং আল্লাহ পাক ফরজ বা অবশ্য কর্তব্য বলে, সর্বশ্রেষ্ঠ এবং একমাত্র পূর্ণাঙ্গ ঐশী গ্রন্থ পাক কোরআন মজিদে ঘোষণা দিয়েছেন। ত্রিশ দিনের সিয়াম সাধনার শেষে পরম পাওয়ার লক্ষে অপার খুশির ঈদ উল ফিতর ঈদের নামাজ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয় সারা বিশ্বজুড়ে। মুসলিম জনপদের সকল ঈদগাহ আর মসজিদ সমূহে উম্মতে মুহাম্মদীর ঘরে ঘরে ঈদ উল ফিতরের পবিত্রতায় ভরা খুশি যেন বান ডেকে যায়। ধনী-গরীব নিরীহ নির্বিশেষে যার যার সামর্থানুসারে এ আনন্দনুষ্ঠানকে স্বার্থক ও মনোময় করে তোলার জন্যে সর্বোত্তম আয়োজনে ব্যস্ত। ঈদ খুশির, ঈদ আনন্দের, ঈদ ভালবাসার, ঈদ পাওয়ার, ঈদ দেওয়ার সুন্দর মনে নিজেকে সুন্দর করে উপস্থাপন করাই ঈদ। আমরা সবাই নিজেকে নিয়ে এতো ব্যস্ত হয়ে পড়েছি যে, অন্য কারো কথা শুনার আমাদের সময় নেই। ঈদ সেই সময়টা বের করে দেয়। আমরা আধুনিক হয়েছি, কিন্তু আমাদের নির্মল আনন্দ হারিয়ে গেছি। বেগ বেড়েছে কিন্তু আবেগ একেবারই নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা এতোটাই আত্মকেন্দ্রিক হয়ে পড়েছি যে, আনন্দ উৎসব গুলো পর্যন্ত প্রাণ খুলে উৎযাপন করার কথা ভুলে গেছি। অন্তত পক্ষে বছরের এই একটা দিনে আমরা সব ভেদাভেদ ভুলে এক হওয়ার জন্য সবাই ঈদের জামাতে নামাজ পড়তে যায়। সিয়াম সাধনার মাস রমজান।

প্রিয় মানুষটির জন্য হৃদয় ছোঁয়া ভালবাসা নতুন করে পাওয়ার স্বপ্ন দেখায়। ঈদের দিনের মত হোক আমাদের প্রতিটি দিন। হাসি-খুশিতে ভরে উঠুক সবার জীবন। ঈদে ভাললাগার অনুভূতিগুলোতে সহজেই নিবেদন করা যায় আপন জনের কাছে। সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা। অন্যদিকে ঈদ উল ফিতরের মূল উৎসব সে তো আল্লাহ্ পাকের স্বনিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থায় তাঁর প্রিয় বান্দাদের প্রতি নেয়ামত প্রদান। এ যেন সেই পূণ্যপ্রেমে উদ্ভাসিত ইসলামী তৌহীদ। ধারাবাহিকতায় স্বাধীণ স্বদেশ বাংলাদেশের মুসলিম সম্প্রদায় ও আজ এ পবিত্র ঈদ আনন্দের মুহুর্তে স্রষ্টার প্রতি পরম কৃতজ্ঞতায় নিজেকে বিলিয়ে দেয়ার খুশিতে আপ্লুত। ঈদ আনন্দের বাস্তবতা এমনি যে, কেউ দিয়ে খুশি, কেউ পেয়ে খুশি আবার কেউ দোয়া নেয়ার জন্য আকুল মনে বসে থাকেন। আমার ভাবনায় এ সার্বজনীন ঈদের খুশি যেন স্বয়ং রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থায় অন্তত এ ঈদের দিনটিতে হলেও সকল সামর্থহীন বঞ্চিত নাগরিকের ভাগ্যে বরাদ্ধ হয়। ঈদ মোবারক। সুখ, শান্তি সমৃদ্ধি বয়ে আনুক সবার জীবনে। ৩০ রোজার পর শাওয়ালের আকাশে উঁকি দিয়েছে কাঙ্খিত ঈদের চাঁদ। এসেছে খুশির বার্তা নিয়ে ঈদ। ঈদ মোবারক, ঈদ মোবারক।

আরো খবর

Leave a Reply