বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০১৯ ইং, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

সাতকানিয়া বায়তুশ শরফ আখতারিয়া ফাজিল ও ডিগ্রি মাদ্রসায় স্বজনপ্রীতি , বিধি উপেক্ষা করে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিয়োগ

পরিচালনা কমিটিতে ঘনিষ্ট আত্মীয়- স্বজন হওয়ায় অধ্যক্ষ নিয়োগে কোন নিয়ম নীতি পালিত হয়নি। আরবী বিশ্ব বিদ্যলয়ের নীতিও লংঘিত হয়েছে এখানে।ফলে স্বেচ্ছাচারিতা ও সিনিয়র শিক্ষকদের মধ্যে ছাপা ক্রোভ বিরাজ করছে।

সভাপতি ও অধ্যক্ষের ভয়ে কেউ মুখ খুলতেও নারাজ।সভাপতি বিয়ে করছেন অধ্যক্ষের ছোট বোন।বিষয়টি কেউ জানে আবার জানে না।পারত পক্ষে দুইজনেই বিষয়টি এড়িয়ে চলেন।

চট্টগ্রামের সাতকানিয়া বায়তুশ শরফ আখতারিয়া ফাজিল ও ডিগ্রি মাদ্রসায় বিধি উপেক্ষা করে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিয়োগ করে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম।

জানা গেছে, অধ্যক্ষের পদ শূ্ন্য হওয়ায় গভর্নিং বডি ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭ সালের ১লা নভেম্বরে দেয়া অফিস আদেশ পরোয়া না করে এই নিয়োগ দেয়।এতে সুস্পষ্টভাবে অফিস আদেশের ৪ নং ধারা উপেক্ষা করা হয়। নিয়ম পালন করা হলে অধ্যক্ষ পদে অন্য একজন সিনিয়র শিক্ষক এই পদে আসীন হতেন।

অধ্যক্ষের ছোট বোনের জামাই সভাপতি হওয়ায় বিষয়টি কেউ আমলে নিতেও ভয় পায়।সভাপতিও ঘাটে ঘাটে সব বিষয় জানতে চান না সংগতকারণেই। এই ব্যাপারে জানতে চাইলে ভারপ্রা্প্ত অধ্যক্ষ মাওলানা কফিল উদ্দিন বলেন, এমপি সাহেব কেন আমার ছোট বোনের জামাইকে সভাপতি করেছেন আমি জানি না। তিনি ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষর নিয়োগ পাবার রেজুলেশান কপি আমাদের এই প্রতিনিধিকে দেখানোর সময় নির্ধারণ করেও দেখাতে পারেননি।এদিকে স্বেচ্ছাচারিতা সিনিয়র শিক্ষকদের মধ্যে ছাপা ক্ষোভসহ আরো কিছু অনিয়মের তথ্য আমাদের প্রতিনিধির হস্তক্ষেপ হয়েছে।তথ্যগুলো তদন্ত সাপেক্ষে সম্প্রচার করা হবে।

আরো খবর

Leave a Reply