বাংলাদেশ, মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০১৯ ইং, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

আনোয়ারার ঐতিহ্যবাহী এরশাদ আলী সরকারের (সরগারো) বলী খেলা ও মেলা সম্পন্ন

এইচ এম মহিউদ্দিন মন্জু

জাঁকজমক ভাবে সম্পন্ন হলো ঐতিহ্যবাহী এরশাদ আলী সরকারের (সরগারো) বলী খেলা ও মেলা। আনোয়ারা উপজেলার তৈলারদ্বীপ গ্রামে গতকাল ৪ঠা বৈশাখ ১৭ এপ্রিল বুধবার অনুষ্টিত হয়েছে এরশাদ আলী সরকার এর ১২৯ তম বলী খেলা ও বৈশাখী মেলা। প্রতি বৎসরের ন্যায় এ বৎসরও তৈলারদ্বীপ সরকার বাড়ি, হাট ও হাইস্কুলের মাঠ এলাকা জুড়ে   বিশালভাবে বসেছিল এই মেলা। এই গ্রাম তথা পূরা আনোয়ারা এই মেলাকে ঘিরে উৎসব মুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছিল। দূর দূরান্ত থেকে দোকানীরা এসে বিভিন্ন মালামাল ও জিনিসপত্র এবং নানা-রকমের খাবারের দোকানপাট বসেছিল। বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা কুস্তিগীর বা বলিদের নিয়ে বলি খেলা বিকাল বেলা অনুষ্ঠিত হয়। বিশেষ করে উত্তরবঙ্গ হাতিয়া থেকে শুরু করে মহেশখালীর বলি রা গতকাল বলি খেলায় অংশগ্রহণ করে। এতে চ্যাম্পিয়ন হন মহেশখালীর লালু বলি ও রানার্স আপ হন কাঞ্চন বলি। বিজয়ীদেরকে ক্রেস্ট ও বিভিন্ন পুরস্কার বিতরণ করা হয়। উক্ত বলি খেলাতে প্রায় ১০জন বলি অংশগ্রহণ করেন। তারা হলেন- বদি আলম,মনির,ছৈয়দ নুর,বাচ্চু মহেশখালী, ইমরান হাতিয়া,মামুন,বজল,জকির,শাহাবুদ্দীন বলী, জনি রাঙ্গামাটি,মহেশখালীর লালু এবং কাঞ্চন বলী।

গ্রামীণ মৃৎশিল্প ও কারুপণ্যের বিকিকিনি মেলার অন্যতম আকর্ষণ। সব বয়সী দর্শনার্থীরা জন্য এই মেলা অসম্ভব আকর্ষণীয়। কথিত আছে, তখনকার দিনে মেয়ে বিয়ে দিলে , শ্বশুড় বাড়ির পক্ষ কে বলে দেয়া হত সরকার এর খেলার সময় মেয়েকে (নাইওর) বাপের বাড়ী বেড়াতে আসতে দিতে হবে। ১৮৯০ সালের দিকে চিত্ত বিনোদনের জন্য নিজ গ্রামে জমিদার এরশাদ আলী সরকার প্রচলন করেন এই বলী খেলা ও বৈশাখী মেলা। প্রতি বৎসর নিজ জমিদারীর কাচারী প্রাঙ্গণে জমায়েত হতো পূণ্যাহ উপলক্ষে আসা প্রজারা। সেই থেকে বংশ পরম্পরায় বলী খেলা ও বৈশাখী মেলা অনুষ্টিত হয়ে আসছে এবং প্রতি বছরের ন্যায় গতকাল বসছে ১২৯ তম আসর। এতে মেলায় উপস্থিত ছিলেন মেলা পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোঃ আজিজুর রহমান আজিজ,সাধারণ সম্পাদক মোঃ জসিম উদ্দীন, মোঃ হানিফ মোঃ এনামুল করিম,মোঃ সরোওয়ার জাহান মারুফ,মোঃ আব্দুর রহিম,ইউপি সদস্য মোঃ নিজাম উদ্দীন, এ এস আই রেজাউল করিম, মোঃ ফারুক,নুরুল ইসলাম সওদাগর,মেম্বার আরিফুল কবির,মোঃ নাজিম উদ্দীন ছোটন প্রমুখ।

আরো খবর

Leave a Reply