বাংলাদেশ, শুক্রবার, ২৬শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং, ১৩ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

নুসরাতের শরীরে আগুন দেয় শাহাদাত, জড়িত ১৩ জন: পিবিআই

ফেনীর সোনাগাজীতে হত্যার শিকার মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় শাহাদাত হোসেন শামীম। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিল ১৩ জন। সে ছাড়াও ঘটনার সময় সাইক্লোন সেন্টারের ছাদে উপস্থিত ছিল তিনজন। এর বাইরেও একজন ছাত্রী নুসরাতকে পরীক্ষার কেন্দ্র থেকে ছাদে ডেকে আনে। তবে ওই ছাত্রীর উপস্থিতি ছাদে ছিল কি না সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানা যায়নি।

আজ শনিবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে পিবিআইয়ের সদর দফতরে এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

পিবিআইয়ের ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বলেছেন, ছাদে চারজন ছিলেন। এদের মধ্যে একজনের নাম শম্পা অথবা চম্পা হতে পারে। বাকি দুইজনও বোরখা পরিহিত ছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে, ওই দুইজনও পুরুষ।

ঘটনার ধারা বিবরণীতে ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার জানান, এর আগে গত ৪ এপ্রিল কারাগারে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার সঙ্গে দেখা করেন নুর উদ্দিন। কথোপকথনে সিরাজ নুর উদ্দিনকে বলেন, তোরা আমার জন্য কি করলি? মূলত এরপরেই ৫ এপ্রিল মাদরাসার পশ্চিম হোস্টেলে একটি পরিকল্পনা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে পাঁচজন উপস্থিত ছিলো। পরিকল্পনা অনুযায়ী, নুসরাতকে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়ার পরিকল্পনা নেয়া হয়। সেই অনুযায়ী তিনটি বোরখা ব্যবস্থা করার দায়িত্ব দেয়া হয় এক ছাত্রীকে। কেরোসিন আনার দায়িত্ব দেয়া হয় আরেকজনকে। এ কাজে ওই মাদরাসার তিনজন ছাত্র ও দুইজন ছাত্রী দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়।  সবটুকু খবর পড়তে ক্লীক করুন

আরো খবর

Leave a Reply