বাংলাদেশ, শুক্রবার, ২৬শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং, ১৩ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

বিশ্বব্যাংক আবাসিক এলাকা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংগঠন কর্তৃক মানববন্ধন

প্রতিবন্ধীদের কর্মসংস্থান ও আবাসনের ব্যবস্থা করব-জহুরুল আলম জসিম

 

চট্টগ্রাম নগরীর আকবরশাহের বিশ্বব্যাংক আবাসিক এলাকায় অহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে পরিত্যক্ত জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। পরিত্যক্ত সেই জি-১৪১নং প্লটটিতে প্রতিবন্ধী সংগঠনের কার্যালয় ও বিদ্যালয় স্থাপনের কথা চলছিল। সেজন্য সরকারিভাবে অর্থায়নও করা হয়। কিন্তু এর দেখাশোনার দায়িত্বে থাকা অহিদুল উক্ত স্থানে ঘর তুলে ভাড়া দেয়ার অভিযোগ তুলেছে স্থানীয় প্রতিবন্ধীরা। শুক্রবার (২২মার্চ) সকাল ১০টায় আকবরশাহের বিশ্বব্যাংক কলোনীতে বিশ্বব্যাংক আবাসিক এলাকা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংগঠন ও সচেতন প্রতিবেশীর ব্যানারে মানববন্ধন কওে তাঁরা। এসময় বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা উপদেষ্টা ও সরকারি দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সামাদ- তিনি বলেন, প্রতিবন্ধীদের স্কুল প্রতিষ্ঠা ও তাদের জায়গা রক্ষার দাবীতে আমাদের এই অবস্থান। আমরা অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা আনেআলন চালিয়ে যাবো। আমরা চাইনা জোর দখলের মাধ্যমে প্রতিবন্ধীরা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হোক। অহিদুর রহমানের দখলদারীত্বের কারণে সাধারণ মানুষও আজ একাত্মতা পোষণ করে আন্দোলনে যোগ দিয়েছে। প্রতিবন্ধীদের অধিকার রক্ষায় প্রতিটি সংগঠন আরো কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলবে। এলাকার ৪লক্ষ মানুষের সাথে তিনি প্রতারণা করেছেন। দলমত নির্বিশেষে তাই সকলেই তার বিরুদ্ধে আজ সোচ্চার হয়েছে। এছাড়া হাউজিং স্টেটের ম্যানেজার আবু জাহান বলেন, ভুমিদস্যুদের কারণে আমাদের এলাকার সৌহার্দ্যপূর্ণ স¤পর্ক নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। দখলকারী ব্যক্তিদের কথিত তাদের জন্য উক্ত জমি বরাদ্দের দাবী স¤পূর্ণ মিথ্যা। সকল সাধারণ মানুষ ও প্রশাসন সহযোগিতা করলে আমরা জায়গাটি দ্রুত পুনরুদ্ধার করতে পারব। থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক কাজী আলতাফ হোসেন বলেন, অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় প্রতিবন্ধীদের জায়গা দখল করে ব্যবসা করছে তিনি। যেটা সম্পূর্ণ অনৈতিক কাজ। জননেত্রী শেখ হাসিনা অবহেলিত মানুষের মৌলিক অধিকার সমূহের পুনর্বাসনের কাজ করে যাচ্ছেন। যে সংঘবদ্ধ চক্র দুঃসাহস দেখাচ্ছে, তারা সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর বিরোধীতা করছে। শুধু উচ্ছেদ নয়, তাকে আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তির মুখোমুখি করা হবে। এলাকাবাসী সহ সর্বস্তরের মানুষের অসহায় প্রতিবন্ধীদের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানান তিনি। প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ জহুরুল আলম জসিম বলেন, ২০১১সালে আমরা প্রতিবন্ধী সংগঠনগুলোর অনুরোধে উক্ত জায়গাটি বরাদ্দ ও একটি ঘর নির্মাণ করে দিয়েছি। সঙগঠনের মধ্যকার বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়–য়াদের ব্যস্ততার সুযোগ নিয়ে অহিদুল ইসলাম ওই জায়গায় ঘর নির্মাণ করে ব্যবসা শুরু করেছে। আমরা বারবার জায়গাটি ছেড়ে দেয়ার অনুরোধ করলেও উনি কর্ণপাত করেননি। প্রতিবন্ধীরা সমাজের বোঝা নয়, তারাও সমাজ উন্নয়নের অংশ। আমরা তিনবার তাকে বিষয়টি সমাধানের জন্য নোটিশ দিলেও তিনি সাড়া দেননি। আমরা আবারো তাকে ৩০ তারিখের মধ্যে জায়গাটি ছেড়ে দেয়ার আহবান জানাচ্ছি। সে জায়গায় আমরা প্রতিবন্ধীদের কর্মসংস্থান ও আবাসনের ব্যবস্থা করব। তিনি তার অবস্থান পরিবর্তন না করলে আমরা নিজেরাই জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের সহায়তায় উক্ত জায়গা উদ্ধার করে নিব। প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংগঠনের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন,মানুষের প্রতিবাদের মাধ্যমে আশাকরি অহিদুল ইসলামের মনুষ্যত্ব ফিরে আসবে। ৩০মার্চের পরে আমরা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করব। এব্যাপারে জানতে চাইলে অহিদুল ইসলামের ছেলে ইকবাল হোসেন জানান, জায়গাটা খালি পড়ে থাকায় সরকারি অর্থায়নে আমরা পাঁচহাজারের অধিক গাছ লাগিয়েছিলাম। খালি জায়গা যে কেউ দখল করতে চায়,তেমনি আমরাও সেটাকে কাজে লাগাতে চাইছি। তবে হাউজিং স্টেট চাইলে আমরা জায়গাটি ছেড়ে দিব। সংগঠনের সাধারণ স¤পাদক মো. শাহজাহানের সঞ্চালনায় এতে আরো বক্তব্য রাখেন, মহিলা কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা উপদেষ্টা আবুল খায়ের, প্রতিষ্ঠাতা স¤পাদক চবি’র আইন বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী সোলায়মান বাদশা, সাংগঠনিক স¤পাদক তানভীর রহমান, সি ব্লক সমাজ উন্নয়ন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শামীম আহমেদ সুমন, জি ব্লক সমাজ কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মোঃ সাইদুর রহমান আরমান, ডি ব্লক সমাজ উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি মোঃ হানিফ, আবুল হোসেন, ডাক্তার মঞ্জু প্রমুখ।

আরো খবর

Leave a Reply