বাংলাদেশ, শনিবার, ৪ঠা এপ্রিল, ২০২০ ইং, ২১শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পল্লী কবি জসিম উদ্দিনের৪৩ তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

 

১৩ মার্চ বুধবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্র ও পল্লী কবি জসিম উদ্দিন স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে বাংলাসাহিত্যের অন্যতম কবি, পল্লী বাংলার প্রখ্যাত কবি জসিম উদ্দিনের ৪৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী স্মরনে এক আলোচনা সভা চট্টগ্রাম নগরীর শহীদ মিনার সংলগ্ন মিলনায়তনে ইতিহাস গবেষক সোহেল মো. ফখরুদ-দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত হয়। সভায় পল্লী কবি জসিম উদ্দিনের কবিতা, সাহিত্য ও জীবন কর্ম নিয়ে আলোচনা করেন ইতিহাসবিদ প্রিন্সিপ্যাল ইউনুস কুতুবী, মোহাম্মদ শহীদুল আলম, অধ্যাপক দিদারুল আলম, শাহনুর আলম, মুনিরুল আলম, তৈয়বুর রহমান, এসএম ওসমান। কবিতা পাঠ করেন জিন্নাত বেগম, মনিরুল ইসলাম, আবদুল করিম, নুরুল আলম, মাহমুদ, পারভেজ, নজরুল ইসলাম চৌধুরী, চৌধুরী গীতা আচার্য, ডা.লিটন বড়ুয়া প্রমুখ। স্মরণ সভায় বক্তারা বলেছেন, পল্লী বাংলার অপরূপ সুন্দর রুপ কবি জসিম উদ্দিন সাহিত্য ও কবিতার মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী তুলে ধরেছেন। রুপসী গ্রাম বাংলাকে তাঁরমতো ভালোবেসে অন্যকেউ সাহিত্য রচনা করেননি। তিনি একজন বিখ্যাত বাঙালি কবি। তিনি বাংলাদেশে ‘পল্লী কবি’ হিসেবে পরিচিত। তাঁর লেখা কবর কবিতাটি বাংলা সাহিত্যে এক অবিস্মরণীয় অবদান। তাঁর পুরো নাম জসীম উদদীন মোল্লা হলেও তিনি জসীম উদ্দীন নামেই পরিচিত। স্মরণ সভায় কবি জসিম উদ্দিনের জীবন নিয়ে ইতিহাসবিদ সোহেল মো.ফখরুদ-দীনের একটি প্রবন্ধ পঠিত হয়। প্রবন্ধে বলা হয়, কবি জসিম উদ্দিন মোল্লা ১৯০৩ সনের ১ জানুয়ারি ফরিদপুর জেলার তাম্বুলখানা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবার বাড়ি ছিলো একই জেলার গোবিন্দপুর গ্রামে। বাবার নাম আনসার উদ্দিন মোল্লা। তিনি পেশায় একজন স্কুল শিক্ষক ছিলেন। মা আমিনা খাতুন। জসীমউদ্দীন ফরিদপুর ওয়েলফেয়ার স্কুল ও পরবর্তীতে ফরিদপুর জেলা স্কুল থেকে লেখা পড়া করেন। এখান থেকে তিনি তার প্রবেশিকা পরীক্ষায় ১৯২১ সনে উত্তীর্ন হন। তিনি কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বি.এ. এবং এম.এ. শেষ করেন ১৯২৯ এবং ১৯৩১ সালে। ১৯৩৩ সালে তিনি কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রামতনু লাহিড়ী গবেষণা সহকারী পদে যোগদেন। ১৯৩৮ সনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগের প্রভাষক হিসেবে যোগ দান করেন। ১৯৬৯ সালে রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কবি জসিম উদ্দিনকে সম্মান সূচক ডি লিট উপাধিতে ভূষিত করেন। বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সম্মান একুশে পদক পান ১৯৭৬ সালে এবং ১৯৭৮ সালে তিনি স্বাধীনতা পদক (মরণোত্তর) লাভ করেন। জীবনে অনেক সাফল্য অর্জন করেন। সাহিত্যের আকাশে জসিম উদ্দিন একটি নক্ষত্র। কবি জসিম উদ্দিন ১৩ মার্চ ১৯৭৬ সালে ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। পরে তাঁকে তার নিজ গ্রাম বিমলগুহে সমাধিস্থ করা হয়।

শেয়ার করুনঃ

আরো খবর

Leave a Reply