হালিম-লিয়াকত স্মৃতি বৃত্তি পুরস্কার ও সনদ বিতরণী অনুষ্ঠান 

  প্রিন্ট
(Last Updated On: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৮)

গত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ শনিবার বিকালে শহীদ হালিম-লিয়াকত স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষা পাহাড়তলী জোনের পুরস্কার ও সনদ বিতরণী অনুষ্ঠান নিউ মুনছুরাবাদ আলহাজ্ব মোস্তফা-হাকিম কেজি এন্ড হাই স্কুল মিলনায়তনে পরিচালক মোহাম্মাদ দিদারুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, শহীদ হালিম-লিয়াকত স্মৃতি সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণের উপদেষ্টা, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী মাওলানা আশরাফ হোসাইন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, পাহাড়তলী থানার উপদেষ্টা অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম। প্রধান বক্তা ছিলেন, শহীদ হালিম-লিয়াকত স্মৃতি সংসদ কেন্দ্রীয় পরিচালক মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম। বিশেষ বক্তা ছিলেন, স্মৃতি বৃত্তি চট্টগ্রাম মহানগর দক্ষিণ সমন্বয়ক মুহাম্মদ রিয়াজ হোছাইন ও মহানগর সদস্য মুহাম্মাদ আতিকুর রহমান। মুহাম্মদ বরকত উল্লাহ ও সাদেক হোছাইন মানিক এর যৌথ সঞ্চালনায় সম্মানিত অতিথির বক্তৃতা করেন, পাহাড়তলী থানার উপদেষ্টা কে.এম নুরুদ্দিন চৌধুরী, সাবেক পরিচালক মুহাম্মদ এনামুল হক, সাবেক পরিচালক মুহাম্মাদ আব্দুল হালিম, পরিচালনা পর্ষদের পক্ষ থেকে বক্তৃতা করেন, সোহেল মিয়া, আয়াত উল্লাহ হাসান, সানিম হোসেন, আরমান রেজা, মুহাম্মাদ ইয়াসিন রেজা ও আশরাফুল আলম প্রমুখ।
প্রধান অতিথি আশরাফ হোসাইন বলেন, প্রতিটি শিশু জন্ম গ্রহণ করে আল্লাহ প্রদত্ত মেধা নিয়ে। তবে তা প্রথমে নির্ভর করে তার পরিবারের উপর। একটু বড় হওয়ার সাথে সাথে শিক্ষকের উপর ও পরিবেশের উপর। একটি জাতির মেরুদন্ড হলো শিক্ষা। সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে সুশিক্ষিত জনগোষ্ঠী প্রয়োজন। আমাদের সংস্কৃতিতে সন্তানদের শিক্ষিত করতে মা-বাবার দুঃশ্চিন্তার অন্ত নাই। কিন্তু সন্তানদের সৃজনশীল, প্রতিযোগিতামূলক, সুস্থ সংস্কৃতি, বাঙ্গালি সংস্কৃতি, মনোবিকাশের দিকে তাদের ততটা আগ্রহ কিংবা গুরুত্ব নেই। শিশু-কিশোরদের স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসায় বাঙালি সংস্কৃতি মূল্যবোধ সম্পন্ন সৃজনশীলতা ও মননশীলতার উপর শিক্ষা দিতে হবে। সৃজনশীল প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ করে দিতে হবে। এতে শিশুদের সুপ্ত মেধা-মনন বিকশিত হয়।
প্রধান বক্তা ফরিদুল ইসলাম বলেন, সত্যিকারের মানুষ রূপে গড়ে তোলায় শিক্ষার মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত। ন্যায়বোধ সম্পন্ন মানুষ না হয়ে শুধুমাত্র শিক্ষিত হলেই একটি জাতির ভাগ্যের পরিবর্তন হয় না। বাংলাদেশ দুর্নীতিতে পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে শিক্ষিতদের কারণে, মূর্খ কৃষক-শ্রমিকদের কাজে-কর্মে নয়। তাই দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়তে আমাদের প্রয়োজন সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রতি দায়বদ্ধ সুশিক্ষিত প্রজন্ম। দেশের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ হচ্ছে শিশুরা। তাদেরকে মানবিক মূল্যবোধ, সামাজিক মূল্যবোধ, ধর্মীয় অনুশাসন আর নৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে হবে। নতুন প্রজন্মকে সুশিক্ষিত ও প্রযুক্তির সুষম ব্যবহারে দক্ষ গড়ে তুলতে না পারলে বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যেতে পারবে না। তাই দেশ-প্রেমিক দক্ষ সুনাগরিক রূপে গড়ে তুলতে আসুন আমরা নিজেদের পরিবর্তন করি। সন্তানদের গড়ে তুলি।

০ Comments

Leave a Comment

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password